Banglar Unnoyon :: বাংলারউন্নয়ন.নেট

শত স্বপ্ন জিইয়ে রেখেছে দেশের সবচেয়ে বড় সেচ প্রকল্প

ডেস্ক নিউজ

বাংলারউন্নয়ন.নেট কম

প্রকাশিত : ০৭:০৫ পিএম, ২৫ আগস্ট ২০১৯ রোববার

দেশে আশা-নিরাশার দোলাচলে শত স্বপ্ন জিইয়ে রেখেছে দেশের সবচেয়ে বড় সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারাজ। উত্তরের এই প্রকল্প নিয়ে সাধারণ মানুষেরও উৎসাহের কমতি নেই। দেশের নানা প্রান্ত থেকে মানুষ রোজ দেখতে আসছেন দেশের এই বৃহৎ প্রকল্প। একদিকে ব্যারাজের বিশেষত্ব, অন্যদিকে তিস্তার নয়নাভিরাম সৌন্দর্য সহজেই বিমোহিত করছে সবাইকে। শীত মৌসুমে পিকনিকের আসর বসে নিয়মিত। বিশেষ দিনগুলোতে তিল ধারণের ঠাঁই থাকে না ব্যারাজ এলাকায়। যতই দিন যাচ্ছে, তিস্তা ব্যারাজ দেশ-বিদেশের মানুষের কাছে বিশেষ পরিচিতি পাচ্ছে।

ব্যারাজ প্রকল্প এলাকায় সৌন্দর্য আরো বাড়াতে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে নেয়া হচ্ছে বিশেষ উদ্যোগ। বিশেষ করে বিনোদন প্রেমী মানুষের আকৃষ্ট করতে ঢেলে সাজানোর উদ্যোগ নিয়েছেন মন্ত্রণালয়ের সচিব কবির বিন আনোয়ার। দায়িত্ব নেয়ার পর থেকেই তিনি তিস্তা ব্যারাজ প্রকল্পের উন্নয়ন এবং প্রকল্পসংলগ্ন এলাকার সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে বিশেষ তাগিদ দিয়ে আসছেন। 

এরই অংশ হিসেবে শুক্রবার (২৩অগাস্ট) বৃক্ষরোপণ করেন ব্যারাজসংলগ্ন বাংলোর (অবসর) পুকুর পাড়ে। বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন মন্ত্রণালয়ের সচিব। পানি উন্নয়ন বোর্ড (ডালিয়া বিভাগ) ওই কর্মসূচির আয়োজন করে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফর, পানি উন্নয়ন বোর্ডের উত্তরাঞ্চলের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী জ্যোতি প্রসাদ ঘোষ, হাতীবান্ধা থানা নির্বাহী কর্মকর্তা সামিউল আমীন, ডিমলা থানা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুন নাহার, পানি উন্নয়ন বোর্ড ডালিয়া বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম, উপবিভাগীয় প্রকৌশলী হাফিজুল হকসহ অন্য কর্মকর্তারা। 

পানি উন্নয়ন বোর্ডের উত্তরাঞ্চলের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী জ্যোতি প্রসাদ ঘোষ বলেন, নানা কারণেই তিস্তা ব্যারাজ এবং ব্যারাজসংলগ্ন এলাকা জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। ইতোমধ্যে উত্তরবঙ্গের অন্যতম দর্শনীয় স্থান হিসেবে খ্যাতি পেয়েছে। পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় তথা পানি উন্নয়ন বোর্ডের পক্ষ থেকে এলাকার সৌন্দর্য বৃদ্ধি এবং অবকাঠামো নির্মাণে বিশেষ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব বিশেষ তাগিদে মানসম্মত পিকনিক স্পট, কটেজ, টয়লেট সুবিধাসহ নানা বিষয়ে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যেই কাজ শুরু হয়ে গেছে। যার ধারাবাহিকতা আজকের এই বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি।