রোববার   ১১ এপ্রিল ২০২১

সর্বশেষ:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে ইসি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ: নূরুল হুদা বারবার আসতে পারব না, যত খুশি সাজা দিন: খালেদা জিয়া ‘আকাশবীণার’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী ত্রিভুবনে আবারও বিমান দুর্ঘটনা ট্রেন-বাসের সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ২৫ ভুয়া ছবি দিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে মিয়ানমার: প্রধানমন্ত্রী
৮৭

হাজারো মানুষের ভাগ্য বদলে দিয়েছে যে বন্দর

ডেস্ক রিপোর্ট:

প্রকাশিত: ৭ এপ্রিল ২০২১  

একসময় আমবাগানে ভোর থেকে শুরু হয়ে সন্ধ্যা পর্যন্ত চলত আম পাড়া, আম প্যাকেট করা, দূরদূরান্তে পাঠানো ও বিক্রিসহ যাবতীয় কর্মযজ্ঞ। তিন মাস কাজ শেষে কখন আসবে পরের মৌসুম; সে অপেক্ষা শুরু হতো। তিন মাসের আয় দিয়ে সারা বছর সংসার চলত না তাদের। আমের রাজধানীখ্যাত দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জের এমন দৃশ্য প্রতি বছরই দেখা যেত।

এমন কর্মকাণ্ড ২০০৬ সালের আগে। তবে এখন এলাকার আর্থসামাজিক অবস্থা বদলে দিয়েছে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম সোনামসজিদ স্থলবন্দর। ২০০৬ সালের ২০ ডিসেম্বর শিবগঞ্জ উপজেলার শাহবাজপুর ইউনিয়নে স্থলবন্দরটি চালু হওয়ার পর এখানকার শ্রমজীবীদের কাজের চিন্তা নেই। সীমান্তঘেঁষা শাহবাজপুর ও দায়পুকুরিয়া— এই দুই ইউনিয়নের পাঁচ হাজার দিনমজুর স্থলবন্দরে কাজ করছেন। এতে স্থলবন্দরের কার্যক্রমের প্রভাব পড়েছে তাদের জীবনযাত্রায়। তারা এখন স্বপ্ন দেখছেন উন্নত ভবিষ্যৎ গড়ার।

জানা যায়, সোনামসজিদ স্থলবন্দরের পানামা পোর্ট লিংকের ভেতরে নিবন্ধিত শ্রমিকের সংখ্যা এক হাজার ২৬৬ জন। বাকি প্রায় সাড়ে তিন হাজার শ্রমিক ফলমূল, মসলা, বিভিন্ন কৃষিপণ্য, পাথর, কয়লা ও জ্বালানি তেলসহ বিভিন্ন পণ্য ভারতীয় ও দেশীয় ট্রাকে ওঠানো-নামানোর কাজ করেন। তবে এখন তাদের অবসর বসে থাকার ফুরসত নেই।

সোনামসজিদ স্থলবন্দর দিয়ে আপেল, কমলা, আঙুর, কিশমিশ, বেদানা, এলাচ, দারুচিনি, জিরা, চিড়া, চাল, গম, ভুট্টা, তামা, দস্তা, শাড়ি, পাথর, কয়লা ও পেঁয়াজ আমদানি-রফতানি হয়।

বন্দরের নিবন্ধিত শ্রমিক বালিয়াদিঘী পূর্বপাড়া গ্রামের আব্দুস সামাদ (৩০)।  তিনি বলেন, কয়েক বছর ধরে স্থলবন্দরে কাজ করি। এখানে কাজ করার আগে কৃষিক্ষেতে দিনমজুরের কাজ করতাম। দুদিন কাজ পেলে পরের দুদিন বসে থাকতে হতো। সংসার চালাতে হিমশিম খেতাম। খুব কষ্টে দিন কাটত। স্থলবন্দরে কাজ শুরু হওয়ার পর থেকে প্রতিদিন ৩০০-৪০০ টাকা আয় করি। পরদিন কাজ পাওয়া না-পাওয়া নিয়েও চিন্তা নেই। প্রতিদিন ব্যস্ত থাকি আমরা।

আরেক শ্রমিক কর্ণখালী গ্রামের নুরুল ইসলাম (৪৫) বলেন, আট বছর ধরে এখানে কাজ করি। আল্লাহর রহমতে কাজ করে অনেক ভালো আছি। দুই মেয়ের বিয়ে দিয়েছি। আরেক ছেলেকে পড়াশোনা করাচ্ছি। এমনকি একটি গাভিও কিনেছি। সবকিছুই সম্ভব হয়েছে স্থলবন্দরে কাজ করে।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ-ভারত সরকার আরও বেশি বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখলে অধিক পরিমাণে পণ্যদ্রব্য আমদানি-রফতানি হবে। এতে শ্রমিকেরাও লাভবান হবেন।

ভারতীয় ট্রাক থেকে পাথর নামানো ও বাংলাদেশি ট্রাকে পাথর ওঠানোর কাজ করেন বালিয়াদিঘী গ্রামের রাজিবুল হকের ছেলে মো. শামীম (২৫)। দরিদ্র পরিবারে জন্ম হওয়ায় পড়াশোনা করা হয়নি। প্রায় পাঁচ বছর ধরে কাজ করে চলেছেন স্থলবন্দরে। এখানে সারাদিন কাজ করে উপার্জন করেন ৬০০-৮০০ টাকা। 

তিনি বলেন, বাজারে সবকিছুর দাম বাড়ছে প্রতিদিন। গত কয়েক বছরে আমাদের মজুরি বাড়েনি। অনেক ভারী ও ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করতে হয়। কাজ করতে গিয়ে বিভিন্ন সময় আহত হই। চিকিৎসার জন্য যেতে হয় সদর হাসপাতাল অথবা রাজশাহীতে। তাই আমাদের দাবি, সোনামসজিদ স্থলবন্দরে একটি হাসপাতাল নির্মাণ করা হোক।

স্থলবন্দরের শরিফুল ইসলাম বলেন, আগে ছেলেমেয়েদের ভালো পোশাক কিনে দিতে পারিনি। ভালো খাওয়াতে পারিনি। নুন আনতে পান্তা ফোরায় অবস্থা ছিল। গত চার বছর ধরে বন্দরে কাজ করে সচ্ছল হয়েছি।   

তিনি বলেন, এখন এখানে কাজের সুবাধে ছেলেমেয়েকে নিয়ে ভালো আছি। এছাড়া তাদের উন্নত ভবিষ্যৎ নিয়েও ভাবতে পারি। সোনামসজিদ স্থলবন্দর এলাকায় কাজ করা সব শ্রমিকের নিবন্ধনের আওতায় নিয়ে আসার দাবি জানান তিনি।

সোনামসজিদ স্থলবন্দরের পানামা পোর্ট লিংকের শ্রমিক ঠিকাদার ও মেসার্স সিয়াম এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী মো. সেনাউল ইসলাম  জানান, স্থলবন্দর চালু হওয়ার আগে শিবগঞ্জ উপজেলা শাহবাজপুর ও দাইপুকুরিয়া ইউনিয়নের বেশির ভাগ মানুষ বিভিন্ন চোরাচালানের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিল। এখন কাজের জায়গা তৈরি হওয়ায় তারা এসব ছেড়ে দিয়ে নতুন করে বাঁচার চেষ্টা করছেন।

শ্রমিকদের জন্য বিমার দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, কাজ করতে গিয়ে শ্রমিকরা বিভিন্ন সময়ে আহত বা নিহত হতে পারেন। তাই তাদের জন্য বিমার ব্যবস্থা থাকলে আমদানি-রফতানি কার্যক্রম গতিশীল হবে এবং তারাও খুশি হবেন। এমনকি এতে তাদের পরিবারও সুরক্ষা পাবে।


ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে শ্রমিকদের বিমার বিষয়ে আলোচনা করা হবে জানিয়ে সোনামসজিদ স্থলবন্দরের পানামা পোর্ট ম্যানেজার মাইনুল ইসলাম বলেন, ২০২০-২১ অর্থবছরে স্থলবন্দর থেকে ৪৮১ কোটি টাকা রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। আমরা আশা করছি তা ৫০০ কোটি ছাড়িয়ে যাবে। এতে অবশ্যই শ্রমিকদের বড় ভূমিকা রয়েছে।

আমদানি-রফতানিকারকদের সংগঠন সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন  বলেন, সীমান্তবর্তী এলাকার শ্রমজীবীদের জন্য সবচেয়ে বড় কাজের ক্ষেত্র সোনামসজিদ স্থলবন্দর। অন্যদিকে সরকারেরও উচিত শ্রমিকদের দক্ষতা উন্নয়নে কাজ করা। কারণ, এখনো পণ্যবোঝাই ও খালাস করতে একমাত্র অবলম্বন শ্রমিকরাই। এই এলাকার শ্রমজীবীদের আর্থসামাজিক উন্নয়নে সোনামসজিদ স্থলবন্দর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

মুঠোফোনে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ডা. শামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল  বলেন, শ্রমিকদের স্বাস্থ্যসুরক্ষা বিবেচনায় ইতোমধ্যে ৩১ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। আশা করি, খুব দ্রুত হাসপাতালের নির্মাণকাজ শুরু করা হবে। এছাড়া করোনাকালে খাদ্যসামগ্রী ও স্বাস্থ্যসুরক্ষার বিভিন্ন উপকরণ শ্রমিকদের বিতরণ করা হয়েছে। এমনকি দুই ঈদে তাদের উৎসব বোনাসের ব্যবস্থাও চালু করা হয়েছে।

এতদিন বিভিন্ন কোন্দলের কারণে শ্রমিকদের নিবন্ধনের আওতায় নিয়ে আসার উদ্যোগ সফল করা সম্ভব হয়নি জানিয়ে তিনি বলেন, ভবিষ্যতে সব শ্রমিকের জন্য বিমা চালুর বিষয়ে সরকারের নীতিনির্ধারণী মহলে আলোচনা করা হবে।

আরও পড়ুন
জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে চলমান লকডাউন : কাদের

  • করোনায় স্বাস্থ্যসেবা সমন্বয়ে ৬৪ জেলার দায়িত্বে ৬৪ সচিব

  • চাইলে বাংলাদেশকে টিকা দেবে যুক্তরাষ্ট্র

  • পদ্মা সেতুর অগ্রগতি ৯৩ শতাংশের বেশি

  • মুজিব নগর সরকারের দলিল পত্রসমূহ

  • ইসলামের জন্য বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার ঐতিহাসিক অবদান

  • গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে জন কেরির সৌজন্য সাক্ষাৎ

  • রাজধানীর দুই এলাকায় করোনার সর্বাধিক সংক্রমণ

  • চলতি বছরই ২০ লাখের বেশি কর্মসংস্থান: পলক

  • ‘বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণাই বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ভিত্তি’

  • দেশে অরাজকতার চেষ্টা করলে ব্যবস্থা নেবে সরকার: আইনমন্ত্রী

  • স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ সরকার গঠিত হয় একাত্তরের ১০ এপ্রিল

  • ‘নিরাপদ মহাসড়ক নেটওয়ার্ক গড়ে তুলতে কাজ করছে সরকার’

  • বইমেলা শেষ হচ্ছে ১২ এপ্রিল: সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী

  • বহুমুখী প্রকল্পে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে বিপ্লব

  • করোনার ইস্যুতে ৬৪ জেলার দায়িত্ব পেলেন ৬৪ সচিব

  • সাংবাদিক হাসান শাহরিয়ারের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক

  • কাস্টমস ও ভ্যাট: করোনাকালেও চলছে ২৪ ঘণ্টা সেবা

  • ভোক্তাপর্যায়ে এলপিজির দাম ঘোষণা সোমবার

  • নদীর বুকে পুকুর-ফসলি জমি

  • যৌবন ফিরেছে তিস্তায়, কৃষক-জেলেদের স্বস্তি

  • মুড়ির গ্রাম তিমিরকাঠি, ঘরে ঘরে ব্যস্ততা

  • ১৭২ কোটি ব্যয়ে বিষমুক্ত সবজি উৎপাদনে বিপ্লব

  • আগাম পাহাড়ি কাঁঠালে বাড়ছে চাহিদা

  • আইসিটি খাতকে জরুরি সেবার আওতায় দেখতে চান উদ্যোক্তারা

  • বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বেড়েছে ৫৩২ শতাংশ

  • বোরো সংগ্রহে ব্যবহার হবে আধুনিক কৃষিযন্ত্র

  • উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত মেট্রোরেলের অগ্রগতি ৮৪ শতাংশ

  • শিমের লবণসহিষ্ণু নতুন জাত উদ্ভাবন

  • এবার ভারত থেকে জি-টু-জিতে চাল আমদানির সিদ্ধান্ত

  • মধুমতিতে নির্মিত হচ্ছে  ৬ লেনের সেতু

  • ২৫ মিনিটে প্রদক্ষিণ করা যাবে ঢাকা

  • রাজধানীতে নামছে ৬০টি দ্বিতল বাস

  • লকডাউনে থেমে নেই মেগা প্রকল্পগুলো

  • মাঠজুড়ে বোরো ধানের সবুজ সমারোহ

  • গণপরিবহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা 

  • মসজিদে নামাজ আদায়ে নতুন নির্দেশনা

  • তারাগঞ্জে সূর্যমুখীর চাষ বেড়েছে 

  • করোনা সংক্রমণ রোধে ফুলহাতা শার্ট পরার নির্দেশ পুলিশের

  • দেশের বাইরেও খ্যাতি ছড়িয়েছে চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী ‘মেজবান’

  • যানজট নিরসনে ঢাকায় হবে ৬১ কিলোমিটার পাতাল রেল

  • ১১ নির্দেশনা দিয়ে লকডাউনের প্রজ্ঞাপন, না মানলে আইনি ব্যবস্থা

  • জোর করে ঘরে রাখার চেয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির চেষ্টা করছি

  • লকডাউন শুরু

  • সোলার প্ল্যান্টে সেচ সুবিধা, কৃষিতে নতুন সম্ভাবনা

  • উৎসব-নববর্ষ-বিজয় দিবস ভাতা পাবেন সব বীর মুক্তিযোদ্ধা

  • লকডাউনে ব্যাংক লেনদেন আড়াই ঘণ্টা

  • শতবর্ষী ঐতিহ্য, আতাইকুলার লুঙ্গি-গামছার হাট

  • পদ্মা সেতুর অগ্রগতি ৯৩ শতাংশের বেশি

  • বুধবার থেকে চলবে গণপরিবহন

  • আন্তরিকভাবে কাজ করতে এনএসআই’র প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

  • করোনা টেস্টের ফি দেওয়া যাচ্ছে ‘নগদ’-এ

  • বাম্পার ফলনের তরমুজ নিয়ে বিপাকে চাষি

  • মেগা প্রকল্পে বদলাচ্ছে দক্ষিণাঞ্চল

  • উন্নয়নের পূর্বশর্ত হলো শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখা: প্রধানমন্ত্রী

  • রোহিঙ্গাদের প্রতি অসাধারণ মানবতায় কৃতজ্ঞ বাইডেন

  • রাঙামাটিতে তরমুজের ফলন ভালো, খুশি কৃষক-ব্যবসায়ী 

  • হাজারো মানুষের ভাগ্য বদলে দিয়েছে যে বন্দর

  • অবশেষে চালু হলো গঙ্গা-কপোতাক্ষ সেচ প্রকল্প

  • কাল থেকে গণপরিবহন বন্ধ : সেতুমন্ত্রী