শুক্রবার   ২২ অক্টোবর ২০২১

সর্বশেষ:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে ইসি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ: নূরুল হুদা বারবার আসতে পারব না, যত খুশি সাজা দিন: খালেদা জিয়া ‘আকাশবীণার’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী ত্রিভুবনে আবারও বিমান দুর্ঘটনা ট্রেন-বাসের সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ২৫ ভুয়া ছবি দিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে মিয়ানমার: প্রধানমন্ত্রী
১৬৭

সৌন্দর্য বর্ধনের পর দর্শনার্থী বাড়ছে দেশের প্রথম রেলস্টেশনে

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১১ অক্টোবর ২০২১  

১৮৭১ সালে ইস্টার্ন বেঙ্গল রেলওয়ে ভারতের কলকাতা ও বাংলাদেশের গোয়ালন্দ রেল যোগাযোগ চালু করলে চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার ভারত সীমান্তবর্তী দর্শনা রেলওয়ে স্টেশনটি চালু হয়। বর্তমানে এটি আমদানি-রফতানির শুল্ক স্টেশন হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। এ স্টেশনের ওপর দিয়ে বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী এক্সপ্রেস ট্রেন যাতায়াত করে এবং এটা ব্যবহার করে ভারত থেকে প্রতিদিনই ট্রেনের ওয়াগানে করে প্রয়োজনীয় পণ্য আমদানী করা হয়। ঐতিহাসিক এই স্টেশনটি আগে ছিল বেশ অপরিষ্কার। চারদিক ছিল ঝোঁপ জঙ্গলে ভরা ও অন্ধকারে নিমজ্জিত। কিন্তু বর্তমানে সেই চিত্র একেবারে ভিন্ন। ঝকঝকে-তকতকে স্টেশনের চারদিকে সবুজ গাছপালায় ঘেরা আর রাতের বেলা ঝলমলে আলোয় আলোকিত।

দেশের প্রথম এই রেলস্টেশনটিতে এখন দারুণ পরিবেশ বিরাজ করছে। আর এটি সম্ভব হয়েছে বর্তমান স্টেশন সুপারিনডেন্ট মীর মো. লিয়াকত আলীসহ কর্মচারীদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায়। ২০১৫ সালের ৫ আগস্ট স্টেশন সুপারিনডেন্ট এ স্টেশনে দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে দর্শনা রেলওয়ে স্টেশনের পরিবেশ পাল্টে যেতে শুরু করে।

সরেজমিনে দর্শনা রেলওয়ে স্টেশন ঘুরে দেখা যায়, স্টেশনের দু’পাশে প্লাটফর্মের ফাঁকা জায়গা টুকু সম্পূর্ণ কাজে লাগানো হয়েছে। প্রথমে তারা ফাঁকা অংশ টুকুতে ফুল বাগান করেন। কিন্তু বাগান পরিচর্যার জন্য জনবল ও ফুলের চারা কিনে বাগান টিকিয়ে রাখার সামর্থ না থাকায়, ফুল বাগানের বদলে সেখান আম, কাঁঠাল, বেল, নীম, দেবদারু, শিউলি ও বকুল ফুল গাছ লাগানো হয়। গাছগুলো ধীরে ধীরে বড় হচ্ছে। ফলজ গাছগুলোতে ফল ধরা শুরু হয়েছে। সবুজে ঘেরা গোটা স্টেশন পাখিদের কলতানে মুখরিত থাকে সব সময়। এ সয়ম একটি বানরকে গাছের ছায়ায় বিশ্রাম নিতে দেখা যায়। অন্য রকম পরিবেশ বিরাজ করছে এ স্টেশনটিতে। দিনের বেশিভাগ সময়ই পরিচ্ছন্নকর্মীরা স্টেশনের প্লাটফর্ম ঝাড়ু পরিষ্কার করে রাখেন। কোনো প্রকার ময়লা-আবর্জনা জমতে দেন না। এই প্লাটফর্মে প্রতিদিন সকাল-বিকাল ও সন্ধ্যায় স্থানীয় নারী-পুরুষ হাঁটতে আসেন। নিরাপত্তা বেষ্টনিতে ঘেরা এই মনোরম পরিবেশে হাঁটাহাঁটি করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন বলে জানিয়েছেন তারা। তাছাড়া অনেকে নিরিবিলি সময় কাটাতেও এখানে আসেন।

দর্শনার এক রেলযাত্রী মাহফুজ উদ্দিন খান, পেশায় সাংবাদিক। তিনি বলেন, সারাদেশে রেলওয়ে স্টেশনগুলোতে দর্শনা স্টেশনের মতো পরিবেশ থাকলে যাত্রীরা রেল ভ্রমণে আরও আকৃষ্ট হবেন।

ঠিক একই রকম কথা বলেন আরেক যাত্রী এনজিও কর্মকর্তা কামরুজ্জামান যুদ্ধ। তিনি বলেন, এ রেলস্টেশনে প্রবেশ করলেই মনটা জুড়িয়ে যায়। কোনো প্রকার হট্টগোল বা ঠেলাঠেলি নেই। এখানে সবই সুন্দর পরিবেশে পরিচালিত হচ্ছে। এ রকম পরিবেশ অন্যান্য রেলস্টেশনে হওয়া প্রয়োজন। তাহলে রেল ভ্রমণের প্রতি যাত্রীরা আরও বেশি আগ্রহী হবেন।

রেলস্টেশনে হাঁটতে আসা গৃহবধূ রিনা আক্তারের সঙ্গে কথা হয়। দর্শনাতে তো আরও হাঁটার জায়গা আছে, সেখানে না গিয়ে এখানে কেন এসেছেন- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ রেলস্টেশনটি নারীদের জন্য যথেষ্ট নিরাপদ। তাছাড়া এখানকার সবুজ গাছপালা বেষ্টিত পরিবেশে বেশ স্বচ্ছন্দবোধ করি। সে জন্যই এখানে আসি।

দর্শনা রেলস্টেশনের সুপারিনডেন্ট মীর মো. লিয়াকত আলী বলেন, ২০১৫ সালে এখানে যোগ দেওয়ার পর ঐতিহ্যবাহী এ রেলওয়ে স্টেশনটির পরিবেশ বেশ অপরিচ্ছন্ন ছিল। এখানকার চারপাশ খোলা ছিল। রাত হলেই স্টেশনটি অন্ধকারে নিমজ্জিত হয়ে যেত। বর্তমান পরিচ্ছন্ন পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে বেগ পেতে হয়েছে। এখানকার কর্মচারীরা যথেষ্ট আন্তরিকতা ও সকলের প্রচেষ্টায় এটা সম্ভব হয়েছে। এ স্টেশনে প্রথম পর্যায়ে অনেক কিছুরই অভাব ছিল। সে কারণে এখানে অপরিচ্ছন্ন পরিবেশ বিরাজ করত।

তিনি আরও বলেন, প্রথমে আমরা স্টেশনের প্লাটফর্মের দু’পাশে ফাঁকা জায়গা চারদিকে ঘিরে ফুলের বাগান তৈরি করি। কিন্তু নানা কারণে সেটা আর ধরে রাখা যায়নি। পরে ওই স্থানে আমরা ফলজ ও বনজ গাছের চারা রোপন করি। এ স্টেশনটি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আমাদের চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি। কেউ যেন স্টেশনটি নোংরা করতে না পারে সেদিকে সার্বক্ষণিক দৃষ্টি রাখি।

এই রেলস্টেশনের চারপাশে লাগানো গাছপালাগুলোতে বিভিন্ন প্রজাতের পাখি বসে, যা পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করছে। যখন দেখি ছায়া ঘেরা পরিবেশে মানুষ তাদের সারাদিনের কর্ম শেষ করে এখানে এসে বিশ্রাম নিচ্ছে, তখন খুব ভালো লাগে। আমাদের মত অন্য রেলস্টেশনগুলোও এটাকে অনুকরণ করলে রেলের প্রতি যাত্রীদের আগ্রহ আরও বাড়বে- বলেন মীর মো. লিয়াকত আলী।

আরও পড়ুন
জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • পুলিশের সহায়তায় হারিয়ে যাওয়া শিশুটি ফিরলো পরিবারে

  • বীর মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসা: বারডেমের সঙ্গে এমওইউ নবায়ন

  • জয়পুরহাটকে বাল্যবিয়ে মুক্ত করতে চায় ‘এক ঘণ্টার এসপি’ মাহিরা

  • শাহজালাল বিমানবন্দরের রাডার ক্রয়ে চুক্তি স্বাক্ষর

  • ওয়াকওয়ে হবে ঢাকার সব খালের পাড়ে

  • প্রতিটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে হবে শেখ রাসেল বুক কর্নার

  • ৪২৮ কোটি টাকায় পুলিশের জন্য কেনা হচ্ছে ২টি অত্যাধুনিক হেলিকপ্টার

  • মাগুরায় রোপা আমনের ব্যাপক ফলন

  • বিনা-১৭ ধানে কৃষকের হাসি

  • স্বাস্থ্য খাতে শিগগিরই পৌনে ৫ লাখ নিয়োগ

  • বজ্রপাতে মৃত্যু ঠেকাতে ৪৭৬ কোটি টাকার প্রকল্প হচ্ছে

  • দেশে এলো সিনোফার্মের আরও ৫৫ লাখ ডোজ টিকা

  • ‘এশিয়ার উইমেন অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন সামিটের শারমিন জামান

  • এক যুগে বদলে গেছে বাংলাদেশ

  • ‘কুমিল্লার ঘটনার মূলহোতাকে ইন্ধনদাতারা লুকিয়ে রাখতে পারে’

  • অন্য ধর্মকে হেয় করতে কোরআন অবমাননা করা হয়েছে

  • পদ্মা ও মেঘনা নামে দুটি বিভাগ হবে: প্রধানমন্ত্রী

  • কুমিল্লার ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তদের ঘরবাড়ি করে দেবে সরকার

  • বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ উইকেটের বিশ্বরেকর্ড সাকিবের

  • রেকর্ডগড়া জয়ে সুপার টুয়েলভে বাংলাদেশ

  • মালয়েশিয়ায় ১৭২ বাংলাদেশি আটক

  • শিশুদের দাঁতে যেসব সমস্যা দেখা দেয়, কী করবেন?  

  • যে কারণে নাম পরিবর্তন চায় ফেসবুক

  • ইমিউনিটি বাড়াতে খান আমলা জুস

  • দেড় বছর পর
    বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে সশরীরে ক্লাস

  • `মাস্ট উইন` ম্যাচে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

  • সৌরভের বায়োপিকে দাদার চরিত্রে অভিনয় করবেন কে?

  • ডিআইজি হয়ে পুলিশ কর্মকর্তাদের নিয়ে বৈঠক করলেন আফসানা

  • বিদায়বেলায় সুসজ্জিত গাড়িতে বাড়ি গেলেন কনস্টেবল দলিলুর

  • কনস্টেবল নিয়োগ: যোগ্য প্রার্থীদের ক্ষেত্রে সদরদপ্তরের নির্দেশনা

  • চলতি মাসেই পায়রা সেতু উদ্বোধন

  • ১০ মেগাপ্রকল্পে রূপ পাচ্ছে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা

  • দুষ্কৃতকারী যে ধর্মেরই হোক, কঠোর ব্যবস্থা: র‍্যাব প্রধান

  • ইসলামে সব ধর্মের স্বাধীনতার কথা বলা হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

  • ফাতেমা জাতের ধানে বিঘায় ফলন ৫০ মণ

  • প্রতি ইঞ্চি জমিতে আবাদ করুন, খাদ্য অপচয় কমান: প্রধানমন্ত্রী

  • ইউরোপের তিন দেশে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

  • আত্মবিশ্বাস-আত্মমর্যাদা নিয়ে গড়ে উঠুক শিশুরা: প্রধানমন্ত্রী

  • ‌‘গ্যাস বেচতে রাজি না হওয়ায় ২০০১ সালে ক্ষমতায় আসতে পারিনি’

  • করোনাকালে ১৬০০ ভার্চুয়াল সভায় অংশ নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

  • বৈশ্বিক আইনের শাসনে এগিয়েছে বাংলাদেশ

  • দিনে ৪০ হাজার শিক্ষার্থীকে টিকা দেয়া হবে

  • আগামী বুধবার বন্ধ থাকবে সব ব্যাংক

  • জনগণকে হাসিমুখে সেবা দিতে হবে: জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

  • ১০০৭ ইউপিতে ২৮ নভেম্বর ভোট

  • কাঠমিস্ত্রি মোস্তাকিম রাবি ভর্তি পরীক্ষায় প্রথম

  • যাত্রাবাড়ী-ডেমরা মহাসড়ক
    ২০২২ সালে শেষ হবে চারলেনের কাজ

  • কুমিল্লার পূজামণ্ডপের ঘটনা নিয়ে অপপ্রচার, যুবক গ্রেফতার

  • ‘প্রথম পদ্মাসেতুর উদ্বোধনের পরই দ্বিতীয় পদ্মাসেতু নির্মাণ শুরু’

  • ২০৩০ সালের মধ্যে উন্নত নাগরিক সেবা নিশ্চিত করা যাবে: মেয়র তাপস

  • ৬০০ কোটিতে ৩২০ কোরিয়ান এসি বাস কিনবে সরকার

  • বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস প্রদর্শন হবে ট্রেনে

  • স্কুলশিক্ষার্থীদের গণটিকা শুরু ৩০ অক্টোবর

  • বদলে যাচ্ছে মোংলা বন্দর, গতি ফিরছে বাণিজ্যে

  • আজ থেকে স্কুলশিক্ষার্থীদের পরীক্ষামূলক টিকাদান

  • ব্রেন টিউমারের লক্ষণ ও চিকিৎসা

  • দুর্গম চরে বিদ্যুতের আলোতে ৪০ হাজার পরিবারের মুখে নির্মল হাসি

  • সরকারের উদ্যোগের ফলে ২০০ বছর পর নদীতে ভাসছে নৌকা, এসেছে মাছ

  • আমরা নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা দিয়ে যাচ্ছি: ডিএমপি কমিশনার

  • চায়ের রাজ্যে ট্যুরিস্ট বাস