সোমবার   ২১ অক্টোবর ২০১৯

ব্রেকিং:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ খালেদার অনুপস্থিতিতেই কারাগারে বিচার চলবে রব ও মান্নার বিয়ে যুক্তফ্রন্টে, পরকীয়া ঐক্যফ্রন্টে: মাহী এটা জোট নয়, ঘোট : তথ্যমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় পেলেন সিনহা আবারও সরকার গঠনে নৌকায় ভোট দেয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর পদ্মা সেতু প্রকল্পের নামফলক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী
৪৯৯

সিডও সনদের বাস্তবায়নের জন্য প্রয়োজন সম্মিলিত প্রচেষ্টা

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮  

শাহেদা ফেরদৌসী মুন্নী: পিতৃতান্ত্রিক ব্যবস্থার কারণে যুগ যুগ ধরে নারীর বিরুদ্ধে বৈষম্য এবং নির্যাতন একটি বৈশ্বিক সমস্যা। জাতিসংঘ নারীর প্রতি সকল বৈষম্য বিলোপ করার জন্য নারী এবং পুরুষের বিভেদ রদ করার জন্য দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছে। তবে বৈষম্য বিরুদ্ধে লড়াই এবং সিডও বাস্তবায়নে জাতিসংঘের পাশাপাশি রাষ্ট্র এবং তার নাগরিকদেরও সমান দায়িত্ব আছে। প্রতিটি ব্যক্তি, সমাজ এবং সর্বোপরি পুরো রাষ্ট্রের সচেতন হওয়া দরকার। আমাদের সমাজে প্রচলিত নারীর প্রতি নেতিবাচক ধ্যানধারণা, মনোভাব এবং আচার-আচরণ বদলাতে হবে। এবং এটি প্রথমে শুরু করতে হবে পরিবার থেকেই। মনে রাখতে হবে বাংলাদেশের জনসংখ্যার অর্ধেক নারী। তাই নারীদের বাদ দিয়ে কোনো টেকসই উন্নয়নই সম্ভব নয়। তাদেরকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে আমাদের স্বার্থেই।

বাংলাদেশ জাতিসংঘের ‘নারীর প্রতি সকল ধরনের বৈষম্য বিলোপ সনদ' বা 'সিডও' সনদে স্বাক্ষরকারী দেশ, যে সনদটি নারীর অধিকার রক্ষার আন্তর্জাতিক দলিল হিসেবে পরিচিত। সিডও সনদ বাস্তবায়নের প্রক্রিয়ার অংশ হিসাবে, স্বাক্ষরকারী সদস্য দেশগুলিকে প্রতি চার বছর পর পর সিডও বাস্তবায়নের অগ্রগতি নিয়ে জাতিসংঘের সিডও কমিটির কাছে প্রতিবেদন জমা দিতে হয়। এই প্রক্রিয়ার ধারাবাহিকতায় সিডও কমিটি গত ২০১৬ সালের নভেম্বরে জাতিসংঘের ৬৫তম সিডও অধিবেশনে বাংলাদেশের ৮ম বার্ষিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে। দেশের ৫৬টি মানবাধিকার ও নারী অধিকার সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত জাতীয় প্ল্যাটফরম সিটিজেনস্ ইনিশিয়েটিভস্ অন সিডও, বাংলাদেশ (সিআইসি-বিডি) বাংলাদেশে সিডও সনদ পূর্ণ অনুমোদন ও বাস্তবায়নের লক্ষ্যে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছে। ৬৫তম সিডও অধিবেশনে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি প্রতিনিধি দলের অংশ হিসেবে সিআইসি-বিডি অংশগ্রহণ করে এবং ছায়া প্রতিবেদন পেশ করে। অধিবেশন শেষে সিডও কমিটি প্রদত্ত সমাপনী অভিমতের সুপারিশ অনুযায়ী রাষ্ট্রপক্ষ পরবর্তী ৪ বছরে যে সমস্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করবে সে বিষয়ে আগামী ২০২০ সালে ৯ম জাতীয় প্রতিবেদন জমা দেবে। 

তবে এর মধ্যেই ২০১৮ সালে সমাপনী অভিমতের নির্দিষ্ট কয়েকটি বিষয়ে মধ্যবর্তী একটি লিখিত প্রতিবেদন প্রদান করার জন্যও কমিটি বাংলাদেশ সরকারকে অনুরোধ করেছে। সিডও কমিটি সরকারকে সুর্নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে অভিন্ন পারিবারিক আইন প্রণয়ন, বৈষম্য বিরোধি আইন প্রণয়ন, নারীর উন্নয়নে জাতীয় প্রতিষ্ঠানগুলোতে পর্যাপ্ত ক্ষমতা, জনবল, কারিগরি ও আর্থিক সম্পদ নিশ্চিত করা এবং বৈবাহিক ধর্ষণসহ সব ধরনের নারী নির্যাতনকে অপরাধ হিসেবে গণ্য করে আইন প্রণয়নের জন্য তাগিদ দিয়েছে এবং ২০১৮ সালে এই বিষয়ে অগ্রগতিসমূহ নিয়ে প্রতিবেদন পেশ করতে হবে। এখন সরকারের দায়িত্ব হলো পরবর্তী চার বছরে এই সমাপনী অভিমত তথা সিডও সনদ বাস্তবায়নে যথাসম্ভব উদ্যোগ নেয়া। পাশাপাশি নাগরিক সমাজের কাজ হলো সমাপনী অভিমত বাস্তবায়নে সরকারের সহায়ক ভূমিকা পালন করা এবং এটি যথাযথভাবে বাস্তবায়িত হচ্ছে কিনা তা পর্যবেক্ষণ করা। 

বাংলাদেশ সরকার কয়েকটি ধারায় আপত্তি বা সংরক্ষণসহ ১৯৮৪ সালে সিডও সনদ স্বাক্ষর করেছে এবং এটি বাস্তবায়নে বার বার তাদের অঙ্গীকার পুর্নব্যক্ত করেছে। অথচ যথাযথ প্রচার-প্রচারণা এবং তথ্যের অভাবে এখনো দেশের অনেক সরকারি-বেসরকারি ব্যক্তি ও সংগঠন যাদের সিডও বাস্তবায়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করার কথা, তাদের অনেকেই সিডও সম্পর্কে কিছু জানেই না। ঢাকায় এ নিয়ে কিছু আলোচনা বা কর্মসূচি পালিত হলেও তৃণমূলে এ সংক্রান্ত সচেতনতা ও উদ্যোগ কম। এ কারণে তৃণমূলে নাগরিক সমাজের পক্ষ থেকে সিডও বাস্তবায়নের জন্য সরকারের প্রতি জোরালো দাবি উত্থাপিত হচ্ছে না। এই পরিস্থিতিতে, সিডও সনদ ও জাতিসংঘের সমাপনী অভিমত সম্পর্কে জানা এবং এগুলি বাস্তবায়নে বিভিন্ন অংশীভাগীদের দায়-দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন করা জরুরি। এজন্য সিআইসি-বিডি প্ল্যাটফরম তৃণমূলে সচেতনতা সৃষ্টি এবং নাগরিক সমাজের কণ্ঠগুলোকে একত্রিত করার পাশাপাশি জাতীয় পর্যায়েও দৃশ্যমান কাজ করছে যাতে বাংলাদেশ সরকারের মধ্যে সিডও সনদের পূর্ণ বাস্তবায়নে তাদের পূর্বের অঙ্গীকার রক্ষা করার স্পৃহা এবং পরিবেশ তৈরি হয়। সেইসঙ্গে সিডও সমাপনী অভিমত বাস্তবায়নে করণীয় সম্পর্কে তৃণমূলের পরামর্শ ও মতামত তাদের কাছে পৌঁছে দেয়া যায়।

নাগরিক সমাজের পক্ষ থেকে সরকারের প্রতি আমাদের দাবি হচ্ছে অবিলম্বে সিডও সনদের দুটি ধারা থেকে সংরক্ষণ প্রত্যাহার করতে হবে এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো বাস্তবায়নের জন্য যথোপযুক্ত পদক্ষেপ নিতে হবে। সংরক্ষিত দুটি ধারা হচ্ছে সিডও সনদের প্রাণ এবং দেশে নারী-পুরুষ বৈষম্যের মূল উৎপাটন করে নারী-পুরুষ সমতা প্রতিষ্ঠায় সিডও পূর্ণ অনুমোদন ও বাস্তবায়নের বিকল্প নেই। নারীর প্রতি বৈষম্য দূরীকরণের সংগ্রাম পরিবার থেকেই শুরু করতে হবে। নারীর প্রতি সংবেদনশীল মানসিকতা পোষণ করতে হবে। নারীর অধিকার সম্পর্কে সংশ্লিষ্ট সকলকে সজাগ করে তুলে বিভিন্ন ক্ষেত্রে নারীর প্রতি বৈষম্য দূর করার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় ক্ষেত্র প্রস্তুত করতে সম্মিলিত প্রয়াস চালাতে হবে। বাংলাদেশ এখনও সিডওর মৌলিক জায়গাগুলোতে আশানুরূপ সাফল্য অর্জন করতে পারেনি। কিন্তু একদিন নিশ্চয়ই কাঙিক্ষত সাফল্য অর্জিত হবে। সে লক্ষ্যে পৌঁছাতে সরকার ও বেসরকারি সংগঠন এবং জনমানুষের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় এগিয়ে যেতে হবে। দেশের প্রতিটি নাগরিকেরই ব্যক্তিগত এবং সাংগঠনিকভাবে স্ব স্ব অবস্থান থেকে প্রেসার গ্রুপ হিসেবে কাজ করার সুযোগ রয়েছে। সেভাবে কাজ করলে একদিন মানবিক মূল্যবোধ এবং সমতার সমাজ প্রতিষ্ঠিত হবেই । 

লেখক : শাহেদা ফেরদৌসী মুন্নী, সমন্বয়ক, স্টেপস্ টুয়ার্ডস ডেভেলপমেন্ট (সিটিজেনস্ ইনিশিয়েটিভস্ অন সিডও, বাংলাদেশ (সিআইসি-বিডি)-এর পক্ষে)

মতামত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • ২৮৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ঝুঁকিপূর্ণ শিশুশ্রম নিরসন প্রকল্প গ্রহণ 

  • ‘চরের মানুষ পাকা রাস্তা,পড়ালেখার জন্য স্কুল-মাদ্রাসা পেয়েছে’

  • ‘সাড়ে ২২ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে’

  • দেশকে শীর্ষ পঞ্চাশে নেওয়ার লক্ষ্য জয়ের

  • অনলাইনে সরকারি সেবা দিতে ‘একপে’, ‘একসেবা’ ও ‘একশপ’-এর যাত্রা শুরু

  • আপনার সন্তান খায় না, তাহলে এভাবে দিন

  • বিরতিহীন দীর্ঘতম বিমান যাত্রায় ফ্লাইট সিডনিতে পৌঁছেছে

  • ‘গণতন্ত্রকে খুন করেছে মমতা’

  • কনের আত্মীয়রা মল মূত্র খাওয়ালো বরের পিতাকে

  • আটক ইসরাইলি সেনাদের বিষয়ে হামাসের ভিডিও বার্তা

  • কুর্দি এলাকায় সিরীয় সেনা মানে যুদ্ধ: তুরস্ক

  • এক অন্য রকম শিক্ষকের গল্প

  • নেতার অভাবেই ক্ষমতায় মোদি: অভিজিৎ

  • বড় সিরীয় ঘাঁটি ছাড়ল যুক্তরাষ্ট্র

  • ভারতের হামলায় পাকিস্তানের ১০ সেনা নিহত

  • বিশ্বে প্রথমবার ড্রোনে পণ্য ডেলিভারি

  • কানাডার জাতীয় নির্বাচন আজ

  • কাশ্মীর নিয়ে কথা বলায় তুরস্ক সফর বাতিল মোদির

  • সিংড়ায় বোনকে তালাক দেয়ায় দুলাভাইকে পিটিয়ে জখম

  • হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে ফের চালু হচ্ছে ‘বঙ্গবন্ধু চেয়ার’

  • আল-আকসায় ফের শত শত কট্টরপন্থী ইহুদির অনুপ্রবেশ

  • মেহেরপুরে যৌন উত্তেজক সিরাপ তৈরির কারখানার সন্ধান

  • লক্ষ্মীপুরে ছাত্রলীগ নেতার ওপর হামলা

  • টিউবওয়েলে দেশলাই ধরলেই আগুন!

  • সেই কলেজছাত্রীকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে হত্যার অভিযোগ

  • যুবরাজ শয়তানের ঘনিষ্ঠ: সৌদির শীর্ষ আলেম

  • প্রবাসী স্বামীর প্রতি গৃহবধূর ভালোবাসার অনন্য দৃষ্টান্ত

  • মালদ্বীপের জালে বাংলাদেশের ৬ গোল

  • উত্ত্যক্তের কারণে ছাত্রীর কলেজ যেতে ভয়

  • ডিএনসিসির কাউন্সিলর রাজীবকে ১৪ দিনের রিমান্ড

  • আজ ‘কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস’ ও ১৩টি সেতু উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

  • ১৪ হাজার মুক্তিযোদ্ধাকে পাকা বাড়ি দেওয়া হবে: মোজাম্মেল হক

  • মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় দেশসেরা রংপুরের রাগীব নূর

  • পাতাল মেট্রোরেলে বদলে যাবে ঢাকা শহর

  • বাংলাদেশের প্রথম তৃতীয় লিঙ্গের ভাইস চেয়ারম্যান পিংকী

  • ২০১৯ সালে বিশ্বে তৃতীয় সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি বাংলাদেশে: আইএমএফ

  • বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ১৫৭ পরিবার পেল অর্থ সহায়তা ও বীজ

  • অর্থনীতিকে এগিয়ে নেবে উদ্ভাবনী প্রযুক্তি: মোমেন

  • পর্যটন শিল্প বিকাশে অবদান রাখবে পটিয়া বাইপাস সড়ক

  • ভুলতা উড়ালসড়কের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

  • আগামী প্রজন্মকে পরিচ্ছন্ন হয়ে ওঠার আহ্বান স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর

  • দ্রুত এগুচ্ছে ৬ লেনের মাতামুহুরী সেতুর নির্মাণকাজ

  • ‘সবচেয়ে সুবিধাজনক অবস্থায় বাংলাদেশের অর্থনীতি’

  • প্রকাশ পেল ‌‌‘আহাদ ফাহিম’ এর গান ‘আমি মিথ্যে বলিনি’ এর ভিডিও

  • সরকারি উদ্যোগে সব উপজেলায় গঠন হচ্ছে কিশোর-কিশোরী ক্লাব

  • যানজট নিরসনে ঢাকায় আরও ২টি মেট্রোরেলের প্রকল্প অনুমোদন

  • মুসলিমবান্ধব পর্যটন বিকাশে বাংলাদেশ আদর্শ: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

  • আবরারকে পিটিয়ে হত্যার কারণ জানালেন ডিএমপি

  • নকল জুস তৈরির কারখানায় অভিযান, ৪০ হাজার টাকা জরিমানা 

  • মুন্সিগঞ্জের ১৩ সেতুর উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

  • প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশের ভাষা আমার নেই: আবরারের মা

  • শুধু উন্নয়ন নয়,দেশ এখন দুর্যোগ মোকাবেলাতেও রোল মডেল:প্রধানমন্ত্রী

  • সেনাপ্রধান কাতার যাচ্ছেন মঙ্গলবার

  • ‘‌আমাকে কবর থেকে বের করো, এখানে ভীষণ অন্ধকার’‌

  • এক বাঘিনীর জন্য দুই বাঘের তুমুল লড়াই

  • হাওরের ৩ উপজেলায় রেসিডিন্সিয়াল স্কুল-কলেজ হবে: রাষ্ট্রপতি

  • জেরুজালেমের গভর্নরকে তুলে নিয়ে গেল ইসরাইল

  • যুগোপযোগী সিলেবাস প্রণয়ন করা হবেঃ শিক্ষা উপমন্ত্রী

  • ‘সুন্দরবনকে অক্ষত রেখেই মোংলা ইকোনমিক জোনের কাজ শুরু হয়েছে’

  • এবার ভেঙে ফেলা হচ্ছে রাজমনি সিনেমা হল