বৃহস্পতিবার   ২৬ নভেম্বর ২০২০

সর্বশেষ:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে ইসি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ: নূরুল হুদা বারবার আসতে পারব না, যত খুশি সাজা দিন: খালেদা জিয়া ‘আকাশবীণার’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী ত্রিভুবনে আবারও বিমান দুর্ঘটনা ট্রেন-বাসের সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ২৫ ভুয়া ছবি দিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে মিয়ানমার: প্রধানমন্ত্রী
৭১

সাড়া ফেলেছে দেশের বৃহত্তম ত্বীন বাগান

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৯ অক্টোবর ২০২০  

ত্বীন বাংলাদেশে একটি অপ্রচলিত ফল। পবিত্র কোরআনে আত ত্বীন সূরায় বর্ণিত মরু ভূমির মিষ্টি এ ফলের ব্যাপারে কথা রয়েছে। বাংলাদেশের আবহাওয়া ও জলবায়ুতে চাষাবাদের উপযোগী নতুন এই ত্বীন ফল। যা গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার বারতোপা গ্রামে মডার্ণ এগ্রো ফার্ম এন্ড নিউট্রিশন নামের একটি ফার্মে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে চাষ করছে। এটি আয়তনের দিক থেকে দেশের সবচেয়ে বড় বাগান বলে দাবি কর্তৃপক্ষের। এখান থেকে দেশের বিভিন্ন জেলায় ত্বীন ফল ও চারা বিক্রি হচ্ছে। দিনদিন চাহিদা বাড়ার কারণে ফার্ম কর্তৃপক্ষ এটিকে সম্প্রসারণের কাজ করছেন।

প্রতিষ্ঠানটির বিক্রয় ব্যবস্থাপক মো. পারভেজ আলম বাবু জানান, বারতোপা এলাকায় ৭ বিঘা জমিতে ত্বীন ফলের চাষ করছেন। মাদার প্ল্যান্ট (মূল গাছ) থেকে তৈরি করা কলমের তিন মাস বয়স থেকে ফল দেয়া শুরু করে। ফল ধরার এক সপ্তাহের মধ্যে খাওয়ার উপযোগী হয়। প্রতিটি গাছে ন্যূনতম ৭০ থেকে ৮০টি ফল ধরে। সারাবছরই গাছ থেকে ফল পাওয়া যায়। প্রতিটি গাছ ৬ থেকে ৩০ফুট পর্যন্ত লম্বা হয়ে থাকে। খোলা মাঠ ছাড়াও টবের মধ্যে ছাদ বাগানে ত্বীন চাষ করে ভাল ফলন পাওয়া যাচ্ছে। তাই ছাদ বাগানের চাষীদের মধ্যেও ব্যাপক চাহিদা দেখা গেছে।

তিনি আরও জানান, ত্বীন ফল ও গাছের ব্যাপক চাহিদার কারণে সাতটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে ফার্ম কর্তৃপক্ষ। এখান থেকে কলম তৈরি করে নিজেদের প্ল্যান্ট ছাড়াও চাষীদের মধ্যে বিক্রি করা হচ্ছে। প্রতিদিন চট্টগ্রাম, রাজশাহী, ঠাকুরগাঁও, বগুড়া ও যশোরসহ বিভিন্ন জেলা থেকে ফল বিক্রেতাসহ ভোজন রসিকরা এখান থেকে ত্বীন কিনে নিয়ে যান। গড়ে প্রতিদিন ১৫ থেকে ১৬ কেজি ত্বীন বিক্রি হচ্ছে। যার প্রতিকেজির মূল্য এক হাজার টাকা। ফলের পাশাপাশি সৌখিন চাষীরা চারা কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। দুইমাস বয়সী চারার পাইকারী মূল্য ৫২০ টাকা ও খুচরা মূল্য ৭২০ টাকা। এখান থেকে প্রতি মাসে দুই হাজার চারা বিক্রি হচ্ছে। ১০ থেকে ২০ হাজার টাকায় টবসহ ফল ধরা চারা বিক্রি হচ্ছে।

ত্বীন গাছে রোগ জীবাণু সংক্রমনের মাত্রা একদমই কম। সৌদি আরব ও বাংলাদেশ এই ফলকে ত্বীন নামে ডাকলেও অন্যান্য দেশ বিশেষ করে ভারত, তুরস্ক, মিসর, জর্দান ও যুক্তরাষ্ট্রে এটি আঞ্জির নামে পরিচিত। ডুমুর জাতীয় এ ফলটির বৈজ্ঞানিক নাম Ficus carica ও পরিবারের নাম moraceae. এ ফলটি পুরোপুরি পাকলে রসে ঠাসা ও মিষ্টি হয়ে ওঠে।

প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা মো. আজম তালুকদার বলেন, ‘২০১৪-২০১৫ সালে তিনি থাইল্যন্ড থেকে জীবন্ত গাছ এবং তুরস্ক থেকে ত্বীন গাছের কাটিং নিয়ে আসেন। পরে নিজস্ব প্রোপাগেশন সেন্টারে নির্দিষ্ট তাপমাত্রা ও আদ্রতা বজায় রেখে বারতোপা এলাকায় ২০১৭ সালে বানিজ্যিকভাবে চারা উৎপাদন ও আবাদ শুরু করেন। প্রতিটি গাছে প্রথম বছরে ১ কেজি, দ্বিতীয় বছরে ৭/১১ কেজি, তৃতীয় বছরে ২৫/৪ কেজি পর্যন্ত ফল ধরে। এভাবে ক্রম বর্ধিত হারে একটানা ৩৪ বছর পর্যন্ত ফল দিতে থাকে। গাছটির আয়ু হলো প্রায় ১০০বছর। তিন মাসের মধ্যেই শতভাগ ফলন আসে। আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত ডুমুর আকৃতির এই ফল সবার দৃষ্টি কেড়েছে। প্রতিটি পাতার গোড়ায় গোড়ায় ত্বীন ফল জন্মে থাকে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ত্বীন একটি পুষ্টি সমৃদ্ধ সুস্বাদু ফল, যা মরু অঞ্চলে স্বাচ্ছন্দ্যে জন্মায়। বাংলাদেশের মাটি ও আবহাওয়ার সঙ্গে বেশ মানিয়ে নিয়েছে ত্বীন। কোন রাসায়নিক সার ছাড়াই, মাটিতে জৈব ও কম্পোজড সার মিশিয়ে রোদে মাঠে ও ছাদে টবে লাগিয়ে ফল উৎপাদনে সাফল্য পাওয়া গেছে। তাই ছাঁদ বাগানীদের মধ্যে বেশ আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে। দেশে ছাড়াও বিদেশে এ ফলের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। ইতোমধ্যে ভারত ও জাপানে আমাদের কাছে ত্বীন ফলের চাহিদার কথা জানিয়েছে। ত্বীন চরম জলবায়ু অর্থাৎ শুষ্ক ও শীত প্রধান দেশে চাষ হলেও আমরা প্রমান করেছি নাতিশীতোষ্ণ জলবায়ুতেও ৩৬৫দিন এ ফল উৎপাদন সম্ভব। বিদেশে চাহিদার তুলনায় উৎপাদন কম। এ ফল আমাদের দেশে সারা বছর পুষ্টি ও ফলের চাহিদা পূরণ করে বিদেশে রপ্তানী করা সম্ভব। গার্মেন্টের বিকল্প আরেকটা সম্ভাবনা দেখছি, বাংলাদেশে ব্যাপক ত্বীন চাষ। সরকারের সহযোগিতা পেলে তা রপ্তানী করে আন্তর্জাতিকভাবে বাজার ধরা সম্ভব। দেশের বেকরাত্ব দূর এবং রপ্তানী করে পর্যাপ্ত বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব।’

আজম তালুকদার জানান, ত্বীন ছাড়াও তার বাগানে পেপে, আঠা ও বীজহীন কাঠাল, জৈতুন, চেরি, আপেল, মাল্টাসহ বিদেশী অনেক ফল গাছের চারা উৎপাদন ও তা সম্পসারনের কাজ চলছে। তাদের সংগ্রহে ত্বীন ফলের ১০৩টি জাত রয়েছে। তবে ছয়টি জাত তারা এখানে চাষাবাদ করছেন। জাতগুলোর ফল নীল, মেরুন, লাল, হলুদসহ বিভিন্ন বর্ণের হয়ে থাকে। এখানকার গাছে প্রতিটি ত্বীন ফল ওজনে ৭০ থেকে ১১০ গ্রাম পর্যন্ত হয়ে থাকে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর গাজীপুর কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মো. মাহবুব আলম জানান, আয়তনের দিক থেকে দেশের সবচাইতে বড় শ্রীপুরের ত্বীন ফলের প্রজেক্টটি। বাণিজ্যিক ভাবে এতো বড় পরিসরে ত্বীন চাষ দেশের কোথাও করা হয়নি। আমরা এই প্রকল্পটি পরিদর্শন করে বিভিন্ন ধরনের পরামর্শ দিচ্ছি। রোগ বালাই নাই বললেই চলে। প্রচার-প্রচারনা মাধ্যমে ত্বীন ফলের চাষ কৃষকদের মাঝে ছড়িয়ে দিতে পারলে অনেক বেকার যুবকের কর্মসংস্থান হবে এবং অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। পাশাপাশি বৈদেশিক মুদ্রার সাশ্রয় করা সম্ভব হবে।

বিশেষজ্ঞদের বরাত দিয়ে এই কৃষি কর্মকর্তা আরও জানান, ব্রেস্ট ক্যান্সার রোধে এ ফলটি খুবই উপকারী। এছাড়া নানা রোগ নিরাময়ে বিশেষ করে উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে ত্বীন। এটি চোখের দৃষ্টি শক্তি বাড়ায়। এটি কোষ্ঠকাঠিন্য ও হাঁপানি রোগ নিরাময়েও সহায়তা করে। মানসিক ক্লান্তি দূর করে। এতে আছে প্রচুর পরিমানে পটাশিয়াম ও ক্যালিসিয়ামসহ নানা ভেষজ গুণ।

বাংলার উন্নয়ন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • জানুয়ারিতে ঘর পাবে ‘আম্ফানে’ ক্ষতিগ্রস্ত এক হাজার পরিবার  

  • করোনার টিকায় অগ্রাধিকার পাবেন স্বাস্থ্যকর্মী ও বয়স্করা

  • ২০২২ সালের মধ্যে সব ভোটার স্মার্টকার্ড পাবেন 

  • ২০২১ সালের জুনে পায়রা সেতুতে যান চলাচল শুরু 

  • ভ্যাকসিন সংরক্ষণ ও সরবরাহের প্রস্তুতি নিতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

  • সঞ্চয়পত্রে আস্থা, বিনিয়োগের উত্তম জায়গা ডাকঘর

  • চাকরিপ্রার্থীদের জন্য সুখবর, আসছে দুটি বিসিএসের প্রজ্ঞাপন 

  • ‘জুমায় সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী বক্তব্য প্রচার করতে হবে’

  • করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত ১২ হাজার পরিবার ৫ হাজার করে টাকা পাবে 

  • ৪ বছরের মধ্যে ঢাকা শহরের বৈদ্যুতিক তার ভূগর্ভস্থ করা হবে

  • মাস্ক পরা নিশ্চিতে আরো কঠোর হচ্ছে সরকার 

  • প্রণোদনা প্যাকেজ নিয়ে অর্থ মন্ত্রণালয় মতবিনিময় সভা করবে 

  • নতুন কারিকুলামে অষ্টম থেকেই কর্মমুখী শিক্ষার সুযোগ

  • এসএমই খাতে ৬ শতাংশ সুদে ঋণ

  • ‘হাসিনা-মোদি ভার্চুয়াল বৈঠকে ৪টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর’ 

  • করোনা মোকাবিলা করে এগিয়ে চলছে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেললাইনের কাজ

  • ঝিনাইদহে ৯১ কোটি টাকা ব্যয়ে ৭ মডেল মসজিদ নির্মাণ

  • সৌদি আরবের যুবরাজকে ‘মুজিববর্ষ’ উদযাপনে আমন্ত্রণ

  • জাজিরা থেকে শুরু হয়ে পৌঁছে গেল মাওয়া প্রান্তে

  • ডিজিটাল সেন্টারগুলো হবে অর্থনীতির নতুন কেন্দ্র: পলক

  • করোনার টিকা নিয়ে চিন্তার কিছু নেই: প্রধানমন্ত্রী 

  • জনসেবায় চার কোটি টাকার জমি দিলেন এমপি

  • বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যকে কেন্দ্র করে ধর্মভিত্তিক দলের নাশকতার ছক 

  • ই-পাসপোর্টের চাহিদা বাড়ছে, ভোগান্তি কমছে 

  • ভাস্কর্য আর মূর্তি এক নয়: সম্মিলিত ইসলামী জোট 

  • অর্থপাচারকারীদের যাবতীয় তথ্য চেয়েছে হাইকোর্ট

  • বাংলাদেশে ব্যাপকভাবে বিনিয়োগে আগ্রহী সৌদি আরব

  • বিষয় যখন ভাস্কর্য কিছু বলা অপরিহার্য

  • সিঙ্গাপুরের চেয়েও শক্তিশালী বাংলাদেশের অর্থনীতি 

  • ঢাকাকে আধুনিক করতে বিশেষ পরিকল্পনা

  • দৃশ্যমান হলো পদ্মা সেতুর পৌনে ৬ কিলোমিটার

  • ডিসেম্বরের মধ্যে বসবে পদ্মা সেতুর বাকি ৪ স্প্যান

  • ১৬ ডিসেম্বর চিলাহাটি-হলদিবাড়ি লাইনে রেল চলাচল শুরু: রেল মন্ত্রী

  • বুড়িগঙ্গা-তুরাগ তীরে নির্মাণ হচ্ছে ডিজিটাল ওয়াকওয়ে

  • ৮টি এলএনজি ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মিত হচ্ছে

  • ১০ মডেল গ্রামের মানুষ পাবে শহরের সব সুবিধা

  • জুড়ীতে ৪ কোটি টাকায় নির্মাণ হচ্ছে বৃন্দারঘাট ব্রিজ

  • নেপালের বিপক্ষে সিরিজ জয় বাংলাদেশের

  • দুই শতাধিক নতুন জাতের ধানের উদ্ভাবক স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত নূর

  • মেট্রোরেল প্রকল্পের প্রথম অংশের কাজ এখন দৃশ্যমান

  • গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নে সরকারের বৃহৎ পরিকল্পনা 

  • জন্মের পরই ইউনিক আইডি পাবে শিশু 

  • ভ্যাকসিনের জন্য ১০০০ কোটি টাকা বুকিং দিয়েছে বাংলাদেশ

  • ‘বঙ্গবন্ধু শিল্পনগরে ১৫ লাখ কর্মসংস্থান হবে’

  • এশিয়ার ‘আউটস্ট্যান্ডিং লিডার’ পুরস্কার পেলেন আজিজ খান

  • চুয়াডাঙ্গায় ১৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নিরাপদ পানির পাম্প চালু  

  • এক বছরে ই-কমার্স লেনদেন বেড়েছে ১০৮ শতাংশ

  • বিশ্বের সেরা ২০ নারী ক্রিকেটারের একজন মুর্শিদা

  • কুমির চাষে সম্ভাবনা দেখছে বাংলাদেশ

  • বিমানের বহরে যুক্ত হচ্ছে ‘ধ্রুবতারা’, নাম দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

  • অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহারের ঝুঁকি মারাত্মক : প্রধানমন্ত্রী

  • চমেকে ১০০ শয্যার পূর্ণাঙ্গ ক্যান্সার চিকিৎসা সেন্টার হচ্ছে 

  • প্রত্যেক উপজেলায় ফায়ার স্টেশন হচ্ছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

  • ই-পাসপোর্টের চাহিদা বাড়ছে, ভোগান্তি কমছে 

  • এশিয়ার সেরা ১০ ফুটবলারের তালিকায় বাংলাদেশের সাদ

  • সিঙ্গাপুরের চেয়েও শক্তিশালী বাংলাদেশের অর্থনীতি 

  • রাত আটটার মধ্যে দোকান-পাট বন্ধের আহ্বান

  • পদ্মা সেতুর পৌনে ৬ কিলোমিটার দৃশ্যমান

  • নাটোরে মাস্ক না পরায় ৪০ জন আটক

  • সুফিয়া কামালের আদর্শ বাঙালি নারীর প্রেরণার উৎস : প্রধানমন্ত্রী