রোববার   ১৩ জুন ২০২১

সর্বশেষ:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে ইসি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ: নূরুল হুদা বারবার আসতে পারব না, যত খুশি সাজা দিন: খালেদা জিয়া ‘আকাশবীণার’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী ত্রিভুবনে আবারও বিমান দুর্ঘটনা ট্রেন-বাসের সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ২৫ ভুয়া ছবি দিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে মিয়ানমার: প্রধানমন্ত্রী
৬৯

শেখ হাসিনার কারামুক্তি ও বাংলাদেশের রাজনীতি

আবদুল মান্নান

প্রকাশিত: ১১ জুন ২০২১  

১১ জুন বঙ্গবন্ধু কন্যা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস। আজ হতে বারো বছর আগে ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই বঙ্গবন্ধু কন্যাকে ভোর হওয়ার আগে ধানমন্ডির ৫ নং সড়কে অবস্থিত তার স্বামীর বাসভবন সুধাসদন হতে অত্যন্ত অসম্মানজনক ভাবে অনেকটা সাধারণ আসামীর মতো টেঁনে হিঁচড়ে পুলিশের গাড়ীতে তুলে কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।

পরে তার বিরুদ্ধে অবৈধ ভাবে তিন কোটি টাকা আদায়ের অজুহাতে প্রথমে একটি মামলা দেয়া হয়। এরপর তার বিরুদ্ধে এগারোটি মামলা রুজ্জু করা হয়। যখন শেখ হাসিনাকে আটক করা হয় তখন তার স্বামী ড. ওয়াজেদ মিয়া অসুস্থ অবস্থায় বাড়িতেই ছিলেন। এর পূর্বে বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী বেগম জিয়া মেয়াদ শেষে ক্ষমতা ছাড়তে গড়িমসি করায় দেশে যে অরাজক রাজনৈতিক পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল তার ফলে দেশে ২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারি রাষ্ট্রপতি সেনাবাহিনীর নিদের্শে জরুরি অবস্থা ও কারফিউ জারি করা হয় এবং সেনাবাহিনীর পছন্দ অনুযায়ী বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ফখরুদ্দিন আহমেদকে প্রধান করে একটি বাছাই করা অসাংবিধানিক সরকার গঠন করা হয়েছিল।

সাংবিধানিক হলে তা সকলের সাথে আলোচনা করে করা হতো আর তার মেয়াদ হতো ছয় মাস। তাদের একমাত্র দায়িত্ব হতো ছয় মাসের মধ্যে একটি নির্বাচনের ব্যবস্থা করে বিদায় নেয়া। কিন্তু যখন ফখরুদ্দিন আহমেদকে প্রধান করে এই অসাংবিধানিক সরকার গঠন করা হয় আর শেখ হাসিনাকে আটক করতে পুলিশ সুধা সদনে আসে তখন সেই সরকারের আইন উপদেষ্টা ব্যারিষ্টার মইনুল হোসেনকে ফোন করে শেখ হাসিনা বলেন ‘কাজটি আপনি ভাল করেননি। আমি শীঘ্রই মুক্ত হয়ে ফিরে আসব। তখন কাউকে রেহাই দেওয়া হবে না। আপনিও না। অতীতে সাহায্যের জন্য আমার কাছে এসেছিলেন, ভবিষ্যতে আবারো আসবেন।’ (বাংলাদেশের তারিখ, বিচারপতি মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান, দ্বিতীয় খণ্ড, প্রকাশকাল মে ২০১৩)।

ছয় মাসের বেশি থাকার যে সরকারের অধিকার নেই সেই সরকার জোরপূর্বক দুই বছর ক্ষমতা দখল করে রাখে। পরবর্তীকালে নির্বাচন প্রসঙ্গ আসলে বেআইনী সরকারের এই উপদেষ্টা বলতেন নির্বাচন অনুষ্ঠিত করা তাদের প্রধান কাজ নয়, তাদের মূল কাজ দেশকে দুর্নীতি মুক্ত করা। বঙ্গবন্ধুর কৃপায় ব্যারিস্টার সাহেব ১৯৭৩ এর নির্বাচনে সংসদ সদস্য হয়েছিলেন সেই কারণেই সম্ভবত শেখ হাসিনা তাকে ফোন করেছিলেন। ১২ জানুয়ারি ফখরুদ্দিন আহমেদ অসাংবিধানিক প্রধান উপদেষ্টা হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন। ফখরুদ্দিন আহমেদের অন্য আর একজন উপদেষ্টা ছিলেন মেজর জেনারেল (অবঃ) আবদুল মতিন। তিনি প্রায়শ বলতেন তারা ক্ষমতায় এসেছেন দেশকে দুর্নীতি মুক্ত করতে, তবে এবার চুনো পুঁটিদের ধরা হবে না ধরা হবে রাঘব বোয়ালদের।


 ফখরুদ্দিনের পেছনে আর একটি সরকার চালু করেছিল সেনা প্রধান মঈন ইউ আহমেদ। আসলে দেশে তখন দুটি সরকার চালু ছিল। মঈন ইউ আহমেদের প্রধান কাজ ছিল সৎ বা অসৎ ব্যবসায়ীদের ধরে এনে তাদের কাছ হতে জোরপূর্বক মোটা অংকের অর্থ আদায় করা। তাকে এই ব্যাপারে সর্বাত্মক সহায়তা করতেন বঙ্গবন্ধুর কৃপাধন্য একজন সিনিয়র সাংবাদিক। বঙ্গবন্ধুর কৃপায় তিনি ১৯৭৩ সালে সংসদ সদস্যও হয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধু সকল মানুষকে সরলভাবে বিশ্বাস করতেন। সেই জন্যই অনেকের বিরাগভাজন হয়েও তার কন্যার উদ্দেশ্যে প্রায়শ বলি বাবার মতো আপনি সেই ভুলটা করবেন না। যারা তথাকথিত দুর্নীতি মুক্ত করতে ক্ষমতা দখল করে ঠিক তাদের অনেকেই আকণ্ঠ দুর্নীতিতে নিমজ্জিত হয়ে দেশ ছাড়তে বাধ্য হয়েছিলেন।

শেখ হাসিনাকে আটক করার পর ২০০৭ সালের ১ সেপ্টেম্বর বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ও তার কনিষ্ঠ পুত্র কোকোকে দুর্নীতির অভিযোগে আটক করা হয়। এর আগে ২০০৭ সালের ৭ মার্চ বেগম জিয়ার জেষ্ঠ্য পুত্র তারেক রহমানকে বিভিন্ন অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়। তার বিচার চলাকালে ২০০৮ সালের ১১ সেপ্টেম্বর স্বাস্থ্যগত কারণে তাকে প্যারোলে মুক্তি দিয়ে লন্ডনে পাঠিয়ে দেয়া হয়। যাওয়ার সময় তিনি মুচলেকা দেন যে তিনি জীবনে আর রাজনীতি করবেন না। বর্তমানে তারেক রহমান বাংলাদেশের নাগরিকত্ব ত্যাগ করে লন্ডনে রাজনৈতিক আশ্রয়ে আছেন। শেখ হাসিনা ও বেগম জিয়ার আটকের পিছনে অনেকে বলে থাকেন মূল উদ্দেশ্য ছিল রাজনীতি হতে তাদের মাইনাস করা। আসলে রাজনীতি হতে শেখ হাসিনাকে মাইনাস করাই ছিল মূল উদ্দেশ্য কারণ বাংলাদেশের রাজনীতিতে বেগম জিয়া বা বিএনপি কোনোটাই শেখ হাসিনা বা আওয়ামী লীগের সাথে তুল্য নয়। আওয়ামী লীগ একটা রাজনৈতিক দল। তার অনেক ভুলত্রুটি আছে সত্য কিন্তু একটি দল একুশ বছর ক্ষমতার বাইরে থেকে, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ দলের সকল গুরুত্বপূর্ণ নেতৃবৃন্দকে নির্মম ভাবে হত্যা করার পরও আবার ক্ষমতায় ফেরা বিশ্বের রাজনৈতিক ইতিহাসে নজিরবিহীন ঘটনা। এটি সম্ভব হয়েছিল আওয়ামী লীগের তৃণমূল পর্যায়ের নেতা ও কর্মীদের দলের প্রতি নিরঙ্কুশ আনুগত্য ও বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার পিতার মতো ধৈর্য্য, সহনশীলতা, সাহস ও দেশপ্রেম যার প্রায় সবগুলিই বিএনপিতে অনুপস্থিত। বিএনপি হচ্ছে বহুমতের মানুষের একটি ক্লাব। শেখ হাসিনাকে রাজনীতি হতে বিদায় করতে দেশের দুটি পত্রিকা ও দু’একটি প্রাইভেট টিভি চ্যানেল খোলাখুলি ইন্ধন যুগিয়েছে আর একজন সম্পাদক তো স্বনামে প্রথম পৃষ্ঠায় সম্পাদকীয়ও লিখেছিলেন দুই নেত্রী ছাড়া কি ভাবে দেশের রাজনীতি চলবে তা নিয়ে।

বেগম জিয়া আটক থাকাকালে তার দলে বিভক্তি দেখা যায়। অসুস্থ সাবেক অর্থমন্ত্রী সাইফুর রহমানকে চ্যাংদোলা করে এনে দলের কয়েকজন সিনিয়র নেতা ঘোষণা করেন এখন হতে তিনিই বিএনপি’র চেয়্যারম্যান। কিন্তু আওয়ামী লীগের ক্ষেত্রে তেমন কিছু ঘটেনি। দু’একজন শুধু দলের সংষ্কারের কথা বলেছেন। এতে প্রমাণ হয় দু’দলের মৌলিক তফাৎ। দুই নেত্রীকে রাখা হয় সংসদ ভবনের দুটি পৃথক কক্ষে। স্থাপন করা হয় সামরিক আদালতের আদলে বিচারিক আদালত। দণ্ডিত হলে কেউই পরবর্তী নির্বাচনে আর প্রতিদ্বন্দ্বীতা করতে পারবেন না। দুজনেরই প্রধান কৌশলী ব্যারিষ্টার রফিকুল হক। তিনি আদালত হতে বের হয়ে এসে বলেন যেভাবে মামলা চলছে সেভাবে চলতে থাকলে এই মামলাগুলোতে সকলেই সাজাপ্রাপ্ত হবেন। মামলা চলাকালীন সময়ে দলের কিছু সদস্য আইনজীবী আদালতে উপস্থিত থাকতেন। তবে যে দিন বর্ষীয়ান নেতা জিল্লুর রহমান তার পুরোনো কালো কোটটা গায়ে চাপিয়ে শেখ হাসিনর পক্ষে আদালতে হাজির হয়েছিলেন সেদিন আদালতে এক আবেগময় মুহূর্ত সৃষ্টি হয়েছিল। দেশের ও দলের এই ক্রান্তিকালে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের অবদান জাতি চিরদিন স্মরণ করবে। অন্যদিকে যদিও ফখরুদ্দিন আহমেদের অসাংবিধানিক সরকার সকল রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ করেছিল তারাই আবার নিজেদের পৃষ্ঠপোষকতায় একাধিক রাজনৈতিক দল গঠনের সুযোগ করে দেয় যার মধ্যে নোবেল লরিয়েট ড. ইউনুসের ‘নাগরিক শক্তি’, জেনারেল ইব্রাহিমের ‘কল্যাণ পার্টি’ ফেরদৌস কোরেশির ‘প্রোগ্রেসিভ ডেমোক্রেটিক পাটি’ অন্যতম। এই সব পার্টিকে বলা হতো কিংস পার্টি।

কারাগারে থাকাকালে শেখ হাসিনা অসুস্থ হয়ে পড়েন। তখন সকল মহল হতে দাবি ওঠে তাকে মুক্তি দিয়ে চিকিৎসার জন্য বিদেশ পাঠানোর। যতই দিন যায় ততই শেখ হাসিনার মুক্তির দাবি জোরালো হতে থাকে। এদিকে বিভিন্ন মহল ও আন্তর্জাতিক মহল হতে চাপ আসতে শুরু করে অনির্বাচিত সরকারের বদলে বাংলাদেশে একটি নির্বাচিত সরকারকে রাষ্ট্রের দায়িত্ব দেয়ার। ক্ষমতা দখলকারী ফখরুদ্দিন-মইনুদ্দিন সরকার বুঝতে পারে শেখ হাসিনাকে কারাগারে রেখে কোনো অর্থবহ নির্বাচন সম্ভব নয়। ২০০৮ সালের ১১ জুন শেখ হাসিনাকে আর ১১ সেপ্টেম্বর বেগম জিয়াকে মুক্তি দেয়া হয়। মুক্ত হয়ে চিকিৎসার জন্য শেখ হাসিনা ইংল্যান্ড গমন করেন। ৫ নভেম্বর শেখ হাসিনা চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরে আসেন ও ঘোষিত সাধারণ নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ শুরু করেন।

অনেকে মনে মনে প্রশ্ন করেন যদি শেখ হাসিনা মুক্ত না হতেন তা হলে দেশে কি হতো। যারা বাংলাদেশের রাজনীতির খোঁজখবর রাখেন তারা জানেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে বাইরে রেখে কোনো নির্বাচন এই দেশে সম্ভব নয় অন্তত যতদিন শেখ হাসিনা বা বঙ্গবন্ধুর রক্তের উত্তরাধিকার কেউ একজন রাজনীতিতে আছেন। পূর্বে অনেকে তা করতে চেয়েছেন যা ফলপ্রসূ হয়নি। এটি ঠিক দলের কয়েকজন নেতা শেখ হাসিনা বন্দী থাকা অবস্থায় দলের সংষ্কার চেয়েছেন কিন্তু কখনোই শেখ হাসিনা বিহীন আওয়ামী লীগ চাওয়ার সাহস করেননি যা বিএনপিতে ঘটেছে। সুতরাং এই মুহূর্তে আওয়ামী লীগে শেখ হাসিনার বিকল্প গড়ে উঠেনি। বেঁচে থাকুক বঙ্গবন্ধু কন্য শেখ হাসিনা।

মতামত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • বোয়ালমারী উপজেলা ও পৌর ছাত্রলীগের নতুন কমিটি

  • প্রচার প্রচারণায় জমে উঠেছে সেতাবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন

  • ‘চাঁদপুরের মোলহেডকে পর্যটনবান্ধব হিসেবে গড়ে তুলবো’

  • আ.লীগের উদ্যোগে সুরক্ষাসামগ্রী বিতরণ

  • মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় আরও ১৬ বীরাঙ্গনা

  • ‘বিপুলসংখ্যক তরুণ-তরুণীকে উদ্ভাবনে জড়িত করা দরকার’

  • আরএমপির শাহমখদুম ক্রাইম বিভাগের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ

  • পাকা আমের সুবাসে মাতোয়ারা চাঁপাইনবাবগঞ্জ

  • দাদার কাঁচামিঠা আমের জাত ধরে রাখলেন নাতি

  • বাণিজ্যিকভাবে থাই কৈ মাছ চাষ করার পদ্ধতি

  • নড়াইলে ৭ দিনের আংশিক লকডাউন শুরু

  • বরিশালে ৭১২৭ পরিবার পাচ্ছে সুসজ্জিত নতুন বাড়ি

  • ইউএসজিবিসি’র স্বীকৃতি পেল দেশের ১৪৩ কারখানা

  • এবারও বিশ্বসেরা বাংলাদেশের পুঁজিবাজার

  • প্রাথমিকে যুক্ত হচ্ছে প্রোগ্রামিং শেখার পাঠ্যবই

  • প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারা বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল

  • ‘শেখ হাসিনা আধুনিক-বিজ্ঞানভিত্তিক বাংলাদেশের রূপকার’

  • আরো ৩৫টি ড্রেজার সংগ্রহের কার্যক্রম চলমান: নৌ প্রতিমন্ত্রী

  • করোনার টিকার জন্য চীনের সঙ্গে চুক্তি হয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

  • শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি আবারো বাড়লো

  • ১০ হাজার কনস্টেবল নিয়োগ : পরীক্ষা আয়োজনে এসপিদের চিঠি

  • গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান শক্তিশালী করাই সরকারের লক্ষ্য

  • কে কোন ধরনের স্ট্রোকের ঝুঁকিতে আছেন

  • ১২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে বাড়ি!

  • দক্ষিণ এশিয়ান গেমসে সোনার পদক বাড়ছে বাংলাদেশের

  • ইলেকট্রিক এয়ার পিউরিফায়ার আনলো টগি সার্ভিসেস

  • রানি এলিজাবেথের জন্মদিনে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা

  • ডিজিটাল বিশ্বের নেতৃত্ব দেবে মেধাবী তরুণরা : পলক

  • শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়ল ৩০ জুন পর্যন্ত

  • মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পেলেন আরও ১৬ বীরাঙ্গনা

  • উন্নয়ন বজায় রাখতে ৬,০৩,৬৮১ কোটি টাকার বাজেট উত্থাপিত

  • এবার একসঙ্গে মেট্রোরেলের ১২ কোচ আনার পরিকল্পনা

  • ‘একাত্তরে বাংলাদেশে সামরিক অভিযান ছিলো ভুল সিদ্ধান্ত’

  • ৯০-এর বেশি বয়সীদের জন্য বিশেষ বয়স্ক ভাতা চালু হচ্ছে

  • ঐতিহাসিক ৬ দফা দিবস আজ

  • খুলনায় ভৈরব সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু

  • ১৩ জুন আসছে চীনের ৬ লাখ টিকা 

  • দেশের যেকোনো স্থানে ৫০০ টাকায় মিলবে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট

  • উত্তরাঞ্চলে বিনামূল্যে করোনা পরীক্ষার পরিকল্পনা

  • অক্সফোর্ডের টিকা নিয়ে বাংলাদেশের দুশ্চিন্তার অবসান

  • প্রবাসীদের সম্মানে বিশ্বনাথে দেশের প্রথম ‘প্রবাসী চত্বর’

  • জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সহ-সভাপতি নির্বাচিত হয়েছে বাংলাদেশ

  • সারা দেশে শুরু টিসিবির পণ্য বিক্রি

  • রপ্তানিতে আয় ১১২ শতাংশ বেড়েছে

  • ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের ঝুঁকিতে কারা, কীভাবে বুঝবেন আক্রান্ত

  • নারী উদ্যোক্তার সংখ্যা বাড়বে, কারণ...

  • স্বপ্নের লেবুখালী সেতু: মাত্র ৫ ঘণ্টায় কুয়াকাটা

  • ‘কৃষকের জানালা’ অনুসরণে মিলছে সফলতা

  • সরকারি কর্মকর্তাদের আবাসন সুবিধা বৃদ্ধি

  • বিশ্বের সবচেয়ে দামি আম এখন দেশেই

  • দেশে হ্যান্ডসেট উৎপাদন-সংযোজনে আরও ২ বছর ভ্যাট অব্যাহতি  

  • তরুণ বিজ্ঞানীর অটো ড্রেন ক্লিনার বাঁচাবে সময়-টাকা

  • করোনাকালেও উড়াল রেলপথ নির্মাণে উড়ন্ত গতি

  • ৬৪ জেলায় ৫৫০ বিডিসেট স্থাপন হবে: পলক

  • ৪৫ বিলিয়ন ডলারের রেকর্ড রিজার্ভ

  • ৫০ মডেল মসজিদ উদ্বোধন বৃহস্পতিবার

  • সারাদেশে ৫০০ টাকায় মাসব্যাপী ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট

  • নতুন মাত্রায় কর্ণফুলী টানেল

  • বঙ্গবন্ধু সেতু থেকে এখন পর্যন্ত টোল আদায় ৬৪৩৪ কোটি টাকা

  • চাঁদপুরে ডিজিটাল সেবায় ভাতার আওতায় ১ লাখ ৮৯ হাজার মানুষ