শুক্রবার   ১৫ জানুয়ারি ২০২১

সর্বশেষ:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে ইসি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ: নূরুল হুদা বারবার আসতে পারব না, যত খুশি সাজা দিন: খালেদা জিয়া ‘আকাশবীণার’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী ত্রিভুবনে আবারও বিমান দুর্ঘটনা ট্রেন-বাসের সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ২৫ ভুয়া ছবি দিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে মিয়ানমার: প্রধানমন্ত্রী
৪৩০

‘শেখ মুজিব আজও অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবার প্রতীক’

ডেস্ক নিউজ

প্রকাশিত: ৮ মার্চ ২০২০  

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ডয়চে ভেলের কাছে দেয়া সাক্ষাতকারে এ কথা বলেছেন জার্মানির হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের দক্ষিণ এশিয়া ইন্সটিটিউটের প্রধান ড. হান্স হার্ডার। তার সাক্ষাতকার –

ডয়চে ভেলে: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষে রয়েছি আমরা। বাংলাদেশ সরকার দেশে ও অন্যান্য দূতাবাসে তা উদযাপনে নানা আয়োজন করেছে। আপনার অনুভূতি কেমন?

ড. হান্স হার্ডার: বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ নিয়ে যে এতো হইচই হচ্ছে সব জায়গায়, সেটা খুবই স্বাভাবিক। কারণ বাংলাদেশ স্বাধীন রাষ্ট্র হবার পেছনে বঙ্গবন্ধুর বিরাট বড় ভূমিকা ছিলো বলে আমি মনে করি। এমনকি এটা বলা যেতেই পারে যে, শেখ মুজিবের মতো সম্ভ্রান্ত, জোরালো ও সাহসী জননায়ক না থাকলে বাংলাদেশ সেসময় স্বাধীন হতে পারতো কি না, তা সন্দেহের বিষয়।

ডয়চে ভেলে: এবছর যেহেতু তাঁর জন্মশতবর্ষ, সেই উপলক্ষে বাংলাদেশে সরকারিভাবে নানা আয়োজন করা হয়েছে। এরমধ্যে অন্যতম আকর্ষণ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আপনি বিষয়টা কীভাবে দেখছেন?

ড. হান্স হার্ডার: এটা নিয়ে আমার মনে হয় আলোচনার অবশ্যই দরকার আছে। গভীরে যেতে হবে তার জন্য। এই ঘটনা নিয়ে আমি সহজ-সরল কোনও বক্তব্য দিতে পারবো না। আপাতত এই বিষয়ে কথা না বলাই উচিত।

ডয়চে ভেলে: জার্মানিতে কি বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উদযাপন হওয়া উচিত, হলে কীভাবে?

ড. হান্স হার্ডার: হওয়া উচিত। কিন্তু হবে কি না, তা আমার জানা নেই। আমরা এখানে (হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে) কিছু করছি না এখন পর্যন্ত। কিন্তু একদম কিছু করবো না, তা এই মুহূর্তে জানি না। জার্মানিতে অনেক রাজনৈতিক পক্ষ আছেন। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সদস্যরা আছেন। তাঁরা নিশ্চয়ই কিছু না কিছু করবেন। কিন্তু আমার বিস্তারিত জানা নেই সে বিষয়ে। কিন্তু জার্মানি ছাড়াও, বিশ্বের সব জায়গাতেই বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন করা উচিত। কারণ আমি মনে করি তিনি একজন প্রতীক। শেখ মুজিব আজও অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবার প্রতীক। আমি প্রায়ই ওনার বিখ্যাত সব বক্তৃতার লাইন মনে করি। যেমন ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’। রমনাতে ৭ মার্চের এই ভাষণ শুনলে আজও আমাদের গায়ে কাঁটা দেয়। তাই আমি মনে করি শেখ মুজিবকে সাহসের প্রতিমূর্তি হিসাবে দেখা উচিত।

ডয়চে ভেলে: একজন গবেষকের দৃষ্টিভঙ্গী থেকে আপনার কি মনে হয় বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কাজ করার এখনও আরও অনেক জায়গা আছে?

ড. হান্স হার্ডার: জায়গা নিশ্চয়ই আছে, কিন্তু সমালোচনারও জায়গা আছে। এইসব সমালোচনার জায়গা হয়তো এখন জন্মশতবার্ষিকীকে ঘিরে নাও করা যেতে পারে। এখানে সেটা মানানসই হবে না। কিন্তু বঙ্গবন্ধুকে দেখার অনেক ধরনের দৃষ্টিভঙ্গী থাকতে পারে। অনেক পরিপ্রেক্ষিত থাকতে পারে। এই দৃষ্টিভঙ্গীগুলির গভীরে গেলে বঙ্গবন্ধুকে শুধুই সাহসী রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব হিসাবে দেখতে পাবো তা তো নয়। তখন অন্যান্য দিকগুলিও দেখবো। এই দুই দৃষ্টিভঙ্গীর মধ্যে যে ব্যবধান রাখা দরকার, তা এখনকার পরিস্থিতিতে আমি দেখছি না।

ডয়চে ভেলে: আপনার কাছে আজকের সময়ে বঙ্গবন্ধু গুরুত্বপূর্ণ কেন?

ড. হান্স হার্ডার: এই সাহসী ব্যক্তিত্বকে মনে রাখা অবশ্যই উচিত। কারণ এই শেখ মুজিব সব ধরনের দলীয় রাজনীতির ঊর্ধ্বে। সব দলের রাজনীতির, রাজনৈতিক লবির হস্তক্ষেপের বাইরে। কোনও বিশেষ দলের নেতা হিসাবে নয়, আমরা যেনো ওনাকে দেখি একজন অসম সাহসী ব্যক্তিত্ব হিসাবে। এভাবেই যেনো ওনার স্মৃতিচারণ করা হয়।

ডয়চে ভেলে: আপনি বাংলাদেশে গেলে সেখানে বঙ্গবন্ধুকে কোথায় খুঁজে পান?

ড. হান্স হার্ডার: আজকাল আমরা বাংলাদেশে শেখ মুজিবকে সর্বত্রই পাই। দেয়ালে দেয়ালে, রাস্তায় রাস্তায় তাঁকে দেখতে পাই। ওনার কথা না ভেবে থাকাই যায় না, কারণ এতো প্রচার হচ্ছে ওনার নামে, এই প্রচারগুলো সব যে ঠিক তা নয়, কিন্তু সেটা অন্য আলোচনা। এখন সেটায় আমি যাচ্ছি না।

ডয়চে ভেলে: পাঠকদের জন্য বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আপনার কোনও বিশেষ বার্তা আছে কি?

ড. হান্স হার্ডার: এ আনন্দ উপলক্ষে সবাইকে আমি আমার আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়ে শেষ করতে চাই।

আরও পড়ুন
সাক্ষাৎকার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • জন্মনিবন্ধনে ফিঙ্গার প্রিন্ট বাধ্যতামূলক করতে হাইকোর্টের রুল

  • ধান উৎপাদন দ্বিগুণ করতে আরো উন্নত জাত উদ্ভাবন করতে হবে

  • জঙ্গিদের স্বাভাবিক জীবনে ফেরানোর ধারা বাংলাদেশই প্রথম চালু করেছে

  • ডিএসই’র বাজার মূলধনে নতুন মাইলফলক

  • ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পে দেয়া হচ্ছে ১০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা

  • ২০২৩ সালে ১৩২০ মেগাওয়াট কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের উৎপাদন শুরু

  • ভ্যাকসিন কিনতে দুই দফায় ১৪৫৫ কোটি টাকা বরাদ্দ

  • নয় দিনের মধ্যে করোনার ভ্যাকসিন আসতে পারে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

  • সরকারের অর্জন, খাদ্যঘাটতি থেকে স্বয়ংসম্পূর্ণতায় বাংলাদেশ

  • উপকারভোগীর মোবাইলে ভাতার টাকা পাঠানোর উদ্যোগ নিয়েছে সরকার

  • চট্টগ্রামে বিনিয়োগে আগ্রহী তুরস্কের ব্যবসায়ীরা

  • ‘আওয়ামী লীগ সরকারের কারণেই উন্নয়নের সুফল পাচ্ছে বাংলাদেশ’

  • সরকারি ভাতা ঠিকমতো পৌঁছানোর নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

  • ৯ লাখ গৃহহীনদের ঘর দিচ্ছে সরকার

  • ফেব্রুয়ারিতে উন্নয়নশীল হবে বাংলাদেশ, আশা অর্থমন্ত্রীর

  • করোনাভাইরাসের টিকা কার্যক্রম পরিচালনায় মোবাইল অ্যাপ

  • স্বপ্নের ঠিকানা পাচ্ছে ১১৫ পরিবার

  • লালমনিরহাটে বিমান তৈরি করা হবে : প্রধানমন্ত্রী

  • জঙ্গিদের স্বাভাবিক জীবনে ফেরানোর কাজ চলছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

  • নজিরবিহীন রেকর্ড করে ক্ষমতা ছাড়ছেন ট্রাম্প

  • জঙ্গিবাদ ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরলো ওরা ৯ জন

  • ‘পরিবেশের মান উন্নয়নে সবচেয়ে বড় প্রকল্প গ্রহণ করা হচ্ছে’

  • মানিকগঞ্জে গৃহহীন ১১৫ পরিবার পাচ্ছে স্বপ্নের ঠিকানা

  • করোনা তদন্তে চীনে ডব্লিউএইচও`র গবেষক দল 

  • মুজিববর্ষে দেশের কোনো মানুষ গৃহহীন থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী 

  • সরকারি ভাতা সরাসরি পৌঁছাবে উপকারভোগীর হাতে

  • বিমান বহরে যুক্ত হচ্ছে নতুন ২টি উড়োজাহাজ

  • মারা গেছেন ক্রিকেটার সাকিবের দাদি

  • ভ্যালেন্টাইনে অপূর্ব-সাবিলার চমক

  • কৃষিপণ্যের উৎপাদন খরচ বেঁধে দিলো সরকার

  • ঢাকা ইনার রিং রোড প্রকল্প: কমবে যানজট বাড়বে গতি

  • অবৈধ মোবাইল বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু ১ জুলাই

  • করোনার টিকা আসছে ২৫ জানুয়ারির মধ্যে

  • বিদেশে রপ্তানি হচ্ছে যশোরের বাঁধাকপি 

  • বিশ্বের অন্যতম বর্ধনশীল অর্থনীতি বাংলাদেশের

  • বগুড়ার সবজি যাচ্ছে ছয় দেশে

  • কঙ্গোতে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর আরেকটি নতুন সাফল্য

  • যেখানে শেখ হাসিনা বাংলাদেশ একাকার

  • দেশের প্রথম মহাকাশ অবলোকন কেন্দ্র ফরিদপুরে

  • দেশে মাসে ২৫ লাখ মানুষকে টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা সরকারের

  • ‘১২ বছরে দেশ উন্নয়নের সব সূচকে যুগান্তকারী মাইলফলক স্পর্শ করছে’

  • দৃশ্যমান হচ্ছে খুলনা-মোংলা রেলসেতু

  • ৫০ হাজার টন সার আমদানির অনুমোদন

  • ৭৭ উন্নয়ন প্রকল্পে বদলে যাচ্ছে কক্সবাজার

  • ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের জন্য নতুন তহবিল

  • বঙ্গবন্ধুর নামে ৪ দেশে ৫ স্কুল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ

  • বঙ্গবন্ধুর প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ উপলক্ষে স্মারক ডাকটিকিট

  • মাত্র এক যুগেই দেশকে বদলে দিয়েছে সরকার

  • দেশের লবণশিল্পকে আরও সমৃদ্ধ করতে স্বল্পসুদে ঋণ দিচ্ছে সরকার

  • পরীক্ষার জন্য টিকা উৎপাদনের অনুমতি পেলো গ্লোব বায়োটেক

  • দেশের প্রথম সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় দুগ্ধ খামার রংপুরে

  • বাহরাইন দূতাবাসের বঙ্গবন্ধু কর্নার উদ্বোধন

  • বাংলাদেশকে এখন সারাবিশ্ব সম্মান করে: প্রধানমন্ত্রী

  • করোনা প্রতিরোধী নাকের স্প্রে তৈরি করলো বাংলাদেশি বিজ্ঞানীরা

  • ‘ভারতীয় রেলের চেয়ে উন্নত হবে বাংলাদেশের রেলওয়ে’

  • তিনি তো ফিরে আসবেনই

  • বারোমাসী আম বাগান করে স্বাবলম্বী গাইবান্ধার তিন তরুণ

  • একটি সিদ্ধান্তই বাংলাদেশের ভাবমূর্তি পরিবর্তন করে দিয়েছে

  • খাল দৃষ্টিনন্দন করতে হাজার কোটি টাকার প্রকল্প

  • প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী ভর্তিতে পরীক্ষা নয়