বুধবার   ০৩ জুন ২০২০

ব্রেকিং:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ খালেদার অনুপস্থিতিতেই কারাগারে বিচার চলবে রব ও মান্নার বিয়ে যুক্তফ্রন্টে, পরকীয়া ঐক্যফ্রন্টে: মাহী এটা জোট নয়, ঘোট : তথ্যমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় পেলেন সিনহা আবারও সরকার গঠনে নৌকায় ভোট দেয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর পদ্মা সেতু প্রকল্পের নামফলক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী
১৪৮

‘শেখ মুজিব আজও অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবার প্রতীক’

ডেস্ক নিউজ

প্রকাশিত: ৮ মার্চ ২০২০  

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ডয়চে ভেলের কাছে দেয়া সাক্ষাতকারে এ কথা বলেছেন জার্মানির হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের দক্ষিণ এশিয়া ইন্সটিটিউটের প্রধান ড. হান্স হার্ডার। তার সাক্ষাতকার –

ডয়চে ভেলে: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষে রয়েছি আমরা। বাংলাদেশ সরকার দেশে ও অন্যান্য দূতাবাসে তা উদযাপনে নানা আয়োজন করেছে। আপনার অনুভূতি কেমন?

ড. হান্স হার্ডার: বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ নিয়ে যে এতো হইচই হচ্ছে সব জায়গায়, সেটা খুবই স্বাভাবিক। কারণ বাংলাদেশ স্বাধীন রাষ্ট্র হবার পেছনে বঙ্গবন্ধুর বিরাট বড় ভূমিকা ছিলো বলে আমি মনে করি। এমনকি এটা বলা যেতেই পারে যে, শেখ মুজিবের মতো সম্ভ্রান্ত, জোরালো ও সাহসী জননায়ক না থাকলে বাংলাদেশ সেসময় স্বাধীন হতে পারতো কি না, তা সন্দেহের বিষয়।

ডয়চে ভেলে: এবছর যেহেতু তাঁর জন্মশতবর্ষ, সেই উপলক্ষে বাংলাদেশে সরকারিভাবে নানা আয়োজন করা হয়েছে। এরমধ্যে অন্যতম আকর্ষণ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আপনি বিষয়টা কীভাবে দেখছেন?

ড. হান্স হার্ডার: এটা নিয়ে আমার মনে হয় আলোচনার অবশ্যই দরকার আছে। গভীরে যেতে হবে তার জন্য। এই ঘটনা নিয়ে আমি সহজ-সরল কোনও বক্তব্য দিতে পারবো না। আপাতত এই বিষয়ে কথা না বলাই উচিত।

ডয়চে ভেলে: জার্মানিতে কি বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উদযাপন হওয়া উচিত, হলে কীভাবে?

ড. হান্স হার্ডার: হওয়া উচিত। কিন্তু হবে কি না, তা আমার জানা নেই। আমরা এখানে (হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে) কিছু করছি না এখন পর্যন্ত। কিন্তু একদম কিছু করবো না, তা এই মুহূর্তে জানি না। জার্মানিতে অনেক রাজনৈতিক পক্ষ আছেন। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সদস্যরা আছেন। তাঁরা নিশ্চয়ই কিছু না কিছু করবেন। কিন্তু আমার বিস্তারিত জানা নেই সে বিষয়ে। কিন্তু জার্মানি ছাড়াও, বিশ্বের সব জায়গাতেই বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন করা উচিত। কারণ আমি মনে করি তিনি একজন প্রতীক। শেখ মুজিব আজও অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবার প্রতীক। আমি প্রায়ই ওনার বিখ্যাত সব বক্তৃতার লাইন মনে করি। যেমন ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’। রমনাতে ৭ মার্চের এই ভাষণ শুনলে আজও আমাদের গায়ে কাঁটা দেয়। তাই আমি মনে করি শেখ মুজিবকে সাহসের প্রতিমূর্তি হিসাবে দেখা উচিত।

ডয়চে ভেলে: একজন গবেষকের দৃষ্টিভঙ্গী থেকে আপনার কি মনে হয় বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কাজ করার এখনও আরও অনেক জায়গা আছে?

ড. হান্স হার্ডার: জায়গা নিশ্চয়ই আছে, কিন্তু সমালোচনারও জায়গা আছে। এইসব সমালোচনার জায়গা হয়তো এখন জন্মশতবার্ষিকীকে ঘিরে নাও করা যেতে পারে। এখানে সেটা মানানসই হবে না। কিন্তু বঙ্গবন্ধুকে দেখার অনেক ধরনের দৃষ্টিভঙ্গী থাকতে পারে। অনেক পরিপ্রেক্ষিত থাকতে পারে। এই দৃষ্টিভঙ্গীগুলির গভীরে গেলে বঙ্গবন্ধুকে শুধুই সাহসী রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব হিসাবে দেখতে পাবো তা তো নয়। তখন অন্যান্য দিকগুলিও দেখবো। এই দুই দৃষ্টিভঙ্গীর মধ্যে যে ব্যবধান রাখা দরকার, তা এখনকার পরিস্থিতিতে আমি দেখছি না।

ডয়চে ভেলে: আপনার কাছে আজকের সময়ে বঙ্গবন্ধু গুরুত্বপূর্ণ কেন?

ড. হান্স হার্ডার: এই সাহসী ব্যক্তিত্বকে মনে রাখা অবশ্যই উচিত। কারণ এই শেখ মুজিব সব ধরনের দলীয় রাজনীতির ঊর্ধ্বে। সব দলের রাজনীতির, রাজনৈতিক লবির হস্তক্ষেপের বাইরে। কোনও বিশেষ দলের নেতা হিসাবে নয়, আমরা যেনো ওনাকে দেখি একজন অসম সাহসী ব্যক্তিত্ব হিসাবে। এভাবেই যেনো ওনার স্মৃতিচারণ করা হয়।

ডয়চে ভেলে: আপনি বাংলাদেশে গেলে সেখানে বঙ্গবন্ধুকে কোথায় খুঁজে পান?

ড. হান্স হার্ডার: আজকাল আমরা বাংলাদেশে শেখ মুজিবকে সর্বত্রই পাই। দেয়ালে দেয়ালে, রাস্তায় রাস্তায় তাঁকে দেখতে পাই। ওনার কথা না ভেবে থাকাই যায় না, কারণ এতো প্রচার হচ্ছে ওনার নামে, এই প্রচারগুলো সব যে ঠিক তা নয়, কিন্তু সেটা অন্য আলোচনা। এখন সেটায় আমি যাচ্ছি না।

ডয়চে ভেলে: পাঠকদের জন্য বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আপনার কোনও বিশেষ বার্তা আছে কি?

ড. হান্স হার্ডার: এ আনন্দ উপলক্ষে সবাইকে আমি আমার আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়ে শেষ করতে চাই।

আরও পড়ুন
সাক্ষাৎকার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • করোনাকালের যোদ্ধা ছাত্রলীগ ও তাকওয়া ফাউন্ডেশন

  • খাদ্য উৎপাদন আরো বাড়াতে সচেষ্ট সরকার: কৃষিমন্ত্রী

  • স্পেনের সর্বোচ্চ বেসামরিক খেতাব পেলেন কুতুবউদ্দিন

  • করোনায় বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে টিউশন ফি আদায় করলে কঠোর ব্যবস্থা

  • কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

  • বাংলাদেশকে ৩৭১ মিলিয়ন ডলার সহায়তা দিবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন

  • ‘মানুষ যাতে খেয়ে-পরে বাঁচতে পারে সেজন্যই শর্ত শিথিলের সিদ্ধান্ত’

  • ন্যাশনাল ব্যাংকের খোয়া যাওয়া ৬০ লাখ টাকা উদ্ধার

  • করোনা-আম্ফান মোকাবিলায় একনেকে প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন

  • সরকারি ত্রাণ পেয়েছে সোয়া ৬ কোটি মানুষ

  • বাংলাদেশে ৬৪১৭ কোটি বিনিয়োগ করবে এডিবি

  • প্রত্যেক জেলা হাসপাতালে আইসিইউ নিশ্চিতের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

  • ঈদের পর কমেছে ৭ নিত্যপণ্যের দাম

  • করোনায় আক্রান্ত হলে শুরুতেই চিকিৎসা নিন

  • পঙ্গপাল নিয়ে বাংলাদেশের উদ্বিগ্ন হওয়ার কারণ নেই

  • কালো টাকা বিনিয়োগের সুযোগ দিতে হবে

  • করোনা জয় করে এখন প্লাজমা দিতে প্রস্তুত তারা

  • স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘনে সরকার আরও কঠোর হবে: কাদের

  • আক্রান্ত হয়েও সেবায় পিছিয়ে নেই কুর্মিটোলার চিকিৎসাকর্মীরা

  • দু মাসের সঞ্চয়ী আমানতের বিলম্ব ফি ছাড়

  • ১০ হাজার কোটি টাকার জরুরী তহবিল

  • চলমান ক্ষুদ্র ও বৃহৎ উন্নয়ন প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ছে

  • বাংলাদেশী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের বিচারের প্রতিশ্রুতি লিবিয়ার

  • করোনা রোগীদের জন্য খাবার রান্না করে খাওয়ালেন এক মা

  • করোনা আইসোলেশন সেন্টার হচ্ছে তারকা হোটেল

  • ‘আক্রান্তের মাত্রার ওপর ভিত্তি করে দেশকে ভাগ করা হবে’

  • নগদ লভ্যাংশের বিষয়ে নমনীয় হবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

  • ‘হাজী কামাল মধ্যপ্রাচ্যে অবৈধ প্রক্রিয়ায় শ্রমিকদের পাঠাতেন’

  • অদম্য জান্নাতুল কনুই দিয়ে লিখে পেল সাফল্য

  • ইতিহাসের অংশ হতে যাচ্ছে ভার্চুয়াল একনেক সভা

  • প্রধানমন্ত্রী আমার জন্য হাসপাতালে কেবিন বুকড দিয়েছেন: জাফরুল্লাহ

  • ইভারম্যাকটিন, ডক্সিসাইক্লিন ব্যবহারে করোনা মুক্তির হার বেড়েছে

  • আম্ফান-কাল বৈশাখীর ক্ষতিতেও পূরণ হবে বোরোর লক্ষ্যমাত্রা

  • যুক্তরাষ্ট্রে পিপিই রপ্তানি শুরু করলো বাংলাদেশ

  • অফিস-কারখানায় ১৩ দফা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নির্দেশ

  • নিজের করোনা পজিটিভ রিপোর্টে নিজেই স্বাক্ষর করেন ডা. শাকিল!

  • প্রধানমন্ত্রীকে ফোন করে জাতিসংঘ মহাসচিবের শুভেচ্ছা

  • করোনা শনাক্তে দেশেই তৈরি হলো ‘ভিটিএম কিট’

  • করোনাকালীন সংকটেও কৃষির সাফল্য

  • শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের সময়সীমা বাড়ল

  • মসলা মিশ্রিত হালকা গরম পানিতে উপকৃত হচ্ছেন করোনা রোগীরা

  • বিএনপি’র চিন্তাধারা একপেশে: তথ্যমন্ত্রী

  • আরো ১০৬ পুলিশ সদস্য সুস্থ

  • সীমিত পরিসরে গণপরিবহন চলার ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি

  • বিশ্বমানের পিপিই উৎপাদনকারী দেশের তালিকায় বাংলাদেশ

  • মালদ্বীপ থেকে ফিরলেন ১২০০ বাংলাদেশি 

  • ডিএনসিসিতে বিনামূল্যে ডেঙ্গু পরীক্ষা, জানা যাবে তাৎক্ষণিক ফল

  • ১২ লাখ যুবককে আত্মকর্মী তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে সরকার

  • যেকোনো সঙ্কটে আত্মবিশ্বাসটাই সবচেয়ে বড়: প্রধানমন্ত্রী

  • শান্তিরক্ষীদের অবদান দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছে: প্রধানমন্ত্রী

  • যতদিন না করোনা সংকট কাটবে, আমি পাশে থাকবো: প্রধানমন্ত্রী

  • মৃতের জানাজায় কেউ আসেনি, এসেছিল ‘মানবিক পুলিশ’

  • জুন মাসেই প্রাথমিকের শিক্ষার্থীরা পাবে জামা-জুতা কেনার টাকা

  • প্রত্যেক জেলা হাসপাতালে আইসিইউ নিশ্চিতের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

  • দৃশ্যমান হলো পদ্মাসেতুর সাড়ে ৪ কি.মি.

  • করোনাকালে জরুরি সাহায্য পেতে ফোন করুন

  • ৬ কোটি মানুষের কাছে পৌঁছেছে সরকারি ত্রাণ

  • বাণিজ্যিক বিতান ও শপিংমল খুলবে ৩০ মে

  • উন্নত ও মানসম্মত চিকিৎসায় ১১১৯ পুলিশ সদস্যের করোনা জয় 

  • বঙ্গবন্ধুর ছবিযুক্ত ডাকটিকিট অবমুক্ত করল জাতিসংঘ