শনিবার   ০৪ জুলাই ২০২০

ব্রেকিং:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ খালেদার অনুপস্থিতিতেই কারাগারে বিচার চলবে রব ও মান্নার বিয়ে যুক্তফ্রন্টে, পরকীয়া ঐক্যফ্রন্টে: মাহী এটা জোট নয়, ঘোট : তথ্যমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় পেলেন সিনহা আবারও সরকার গঠনে নৌকায় ভোট দেয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর পদ্মা সেতু প্রকল্পের নামফলক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী
৪৭৫

শিশুর উচ্চতা কমবেশি কেন হয়

অধ্যাপক ডা. এমএ জলিল আনসারী

প্রকাশিত: ১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  

কোনো শিশু বড় হয়ে কতটা লম্বা হবে তা জন্মের পরপরই সঠিকভাবে বলে দেয়া না গেলেও মা-বাবার উচ্চতা মেপে চিকিৎসকরা একটা আন্দাজ করতে পারেন। ষোল-সতেরো বছর পর্যন্ত কারও লম্বা হওয়ার সময়। এরপর পঁচিশ পর্যন্ত সর্বোচ্চ ২/১ সেন্টিমিটার উচ্চতা বাড়তে পারে; এরপর আর নয়।

সাবালক হওয়ার পর লম্বা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে না বললেই চলে। কোনো শিশু জন্মের সময় ২০ ইঞ্চি লম্বা হলে প্রাপ্ত বয়সে যদি ৬ ফুট (৭২ ইঞ্চি) উচ্চতা হতে হয় তবে তাকে ১৪ বছরে আরও ৫০ ইঞ্চি লম্বা হতে হবে। গড়ে প্রতি বছর ৪ ইঞ্চি করে। বাস্তবে সবসময় একই হারে উচ্চতা বৃদ্ধি পায় না।

জন্মের পরপর কয়েক বছর ও সাবালক হওয়ার সময় দ্রুত উচ্চতা বৃদ্ধি পায়। অভিজ্ঞ মা-বাবারা অনেকেই তা জানেন। মানুষের উচ্চতা কমবেশি হওয়ার কারণ সাধারণত বংশগত।

অনেক রোগ বিশেষ করে হরমোনজনিত রোগে কারও কারও উচ্চতা অস্বাভাবিকরকম কম বা বেশি হয়। পৃথিবীতে জানামতে সবচেয়ে খর্বাকৃতি মানুষের উচ্চতা মাত্র ২১ ইঞ্চি এবং সবচেয়ে লম্বা মানুষের ১০৭ ইঞ্চি প্রায় পাঁচগুণ তফাৎ! আশ্চর্যজনক বটে। কেন এমন হয় তা নিয়ে গবেষণা হয়েছে।

জানা যায়, মস্তিষ্কের অভ্যন্তরে পিটুইটারি নামক হরমোন নিঃসরণকারী গ্রন্থি থেকে গ্রোথ হরমোন নামক এক প্রকার হরমোন কমবেশি হওয়ার কারণেই কেউ অস্বাভাবিকরকম খাটো বা লম্বা হয়ে থাকে। এই হরমোন কেন কমবেশি হয় তা চিকিৎসকরাই নির্ণয় করতে পারেন। গ্রোথ হরমোন ছাড়াও আরও কিছু কারণে শৈশবাবস্থায় কারও উচ্চতা বিঘ্নিত হতে পারে।

এর মধ্যে সুষম খাদ্যের অভাব, থাইরয়েড হরমোনের অভাব, কিডনির রোগ, ভিটামিন ডির অভাব, পরিপাকতন্ত্র ও ফুসফুসের দীর্ঘমেয়াদি অসুখ ইত্যাদি। চিকিৎসকরা এসব নির্ণয় করে চিকিৎসা প্রদান করলে সাধারণত প্রাপ্ত বয়সে স্বাভাবিক উচ্চতা লাভ করা যায়। তবে কম উচ্চতা নিয়ে কেউ ১৪-১৫ বছর পার হলে চিকিৎসা করেও উচ্চতা আর বাড়ানো সম্ভব হয় না।

স্বাস্থ্যগত দিক থেকে যে রোগের জন্য কেউ অস্বাভাবিক খাটো বা লম্বা হয়ে থাকে তার গুরুত্বই বেশি। সামাজিক ক্ষেত্রে অতি লম্বা বা অতি খাটো হওয়া নানাবিধ কারণে বিব্রতকর হওয়ায় উচ্চতার জন্য অনেকেই চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়ে থাকেন।

চিকিৎসাবিজ্ঞানের আলোকে দেখা যায়, দেহের উচ্চতা বাড়ার প্রধান অঙ্গ হাতপায়ের লম্বা অস্থিগুলোর প্রান্তের কাছাকাছি অবস্থিত গ্রোথ প্লেট নামক অপেক্ষাকৃত নরম কার্টিলেজগঠিত অংশ হতেই উচ্চতা বৃদ্ধি পায়। অস্থির এই গ্রোথ প্লেট নামক অংশেই গ্রোথ হরমোনের ক্রিয়ার ফলে অস্থি বৃদ্ধি পায় এবং সঙ্গে সঙ্গে দেহের উচ্চতা বাড়তে থাকে।

মস্তিষ্কে অবস্থিত ক্ষুদ্রাকার পিটুইটারি গ্রন্থির হরমোন যাকে গ্রোথ হরমোন বলা হয় ইহাই মূলত আইজিএফ নামক অপর একটি হরমোনের মাধ্যমে উচ্চতা বৃদ্ধির কাজটি করে থাকে। উচ্চতা বৃদ্ধির এই প্রক্রিয়া ১৪-১৫ বছর বয়সে সাবালক হওয়ার পর আর থাকে না কারণ তখন অস্থির গ্রোথ প্লেট অস্থির সঙ্গে মিলিয়ে যায়।

উচ্চতার সঙ্গে অন্যান্য হরমোনের যোগসূত্র থাকলেও গ্রোথ হরমোনের প্রভাবই সবচেয়ে বেশি। গ্রোথ হরমোন বাইরে থেকে ওষুধের আকারে প্রয়োগ করে উচ্চতা বৃদ্ধি করা যায়, তবে এখানে শর্ত হল যত কম বয়সে প্রয়োগ করা যায় ততই ফল ভালো হয়ে থাকে। দশ বছরের পরে এর প্রয়োগে সুফল পাওয়ার সম্ভাবনা কম।

এ ব্যাপারে অজ্ঞতার কারণে বেশি বয়সে অনেকেই লম্বা হওয়ার জন্য চিকিৎসা করাতে চান যা প্রায় অসম্ভব। বেশি বয়সে কেবলমাত্র শল্যচিকিৎসার (সার্জারি) মাধ্যমেই কিছুটা লম্বা হওয়া সম্ভব।

কোনো শিশুর রক্তে গ্রোথ হরমোন কম থাকলে শিশুটি তার সমবয়স্ক স্বাভাবিক বাচ্চার তুলনায় অনেক কম উচ্চতাপ্রাপ্ত হয়। মা-বাবারা অনেক সময় তা খেয়াল করেন না বা বুঝতে দেরি করেন। শিশুর বৃদ্ধি স্বাভাবিক হচ্ছে কিনা তা গুরুত্বসহকারে লক্ষ্য করা উচিত।

অন্তত প্রতি তিন মাস পরপর শিশুর উচ্চতা মেপে লিখে রাখা প্রয়োজন। কোনো শিশু বিশেষজ্ঞের তত্ত্বাবধানে শিশুর দৈহিক ও মানসিক বৃদ্ধি স্বাভাবিক কিনা তা পরীক্ষা করে নিলে সবচেয়ে ভালো হয়। অতীতে গ্রোথ হরমোন ল্যাবরেটরিতে তৈরি করা যেত না এর মূল্যও অনেক বেশি ছিল তাই এর ব্যবহারও ছিল সীমিত।

আজকাল গ্রোথ হরমোন বাণিজ্যিক ভিত্তিতে তৈরি হয়, মানও ভালো এবং সব দেশেই পাওয়া যায় অথচ সচেতনতার অভাবে এর সুফল থেকে অনেকেই বঞ্চিত হচ্ছেন বলে ধারণা করা যায়। আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে এখনও এর দাম কিছুটা বেশি মনে হতে পারে।

তবে সঠিক সময়ে অর্থাৎ আগেভাগেই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শানুযায়ী ব্যবহার করা গেলে উচ্চতা নিয়ে ভবিষ্যতে সমস্যা হতে পারে এরূপ অনেক শিশুই পরিণত বয়সে এ সমস্যাকে এড়াতে পারেন। গ্রোথ হরমোন দিয়ে চিকিৎসায় আর্থিক ব্যায় বেশি হওয়া ছাড়াও কিছু শারীরিক সমস্যা কদাচিৎ লক্ষ্য করা যায় তাই চিকিৎসাকালীন কোনো হরমোন বিশেষজ্ঞের তত্ত্বাবধানে থাকা বাঞ্ছনীয়।

লেখক : বিভাগীয় প্রধান, হরমোন ও ডায়াবেটিস বিভাগ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ

আরও পড়ুন
স্বাস্থ্য বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে কমে গেল মুরগির দাম

  • ভারতে আটকে পড়া বাংলাদেশিদের জন্য বিশেষ ফ্লাইট রোববার

  • অগ্রণী ব্যাংকে রেমিট্যান্স পাঠালে নগদ প্রণোদনা ৩ শতাংশ

  • জুলাইয়ে প্রকৃতির কী রূপ হবে, জানালো আবহাওয়া অফিস

  • তিনটি ছাড়া বিমানের বাকি রুটে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট স্থগিত

  • রাজধানীর কাছেই হচ্ছে বড় অর্থনৈতিক অঞ্চল

  • বগুড়া-১ ও যশোর-৬ আসনে ভোট ১৪ জুলাই

  • করোনা দুর্যোগেও দেশে কেউ না খেয়ে থাকেনি: প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

  • ৯৯৯৯ জন গর্ভবতী মাকে স্বাস্থ্যসেবা দিয়েছে সেনাবাহিনী

  • তদবিরে পুলিশে বদলি নয়: আইজিপি

  • করোনা থাকছে, মানুষকেই মানিয়ে নিতে হবে : ইকোনমিস্ট

  • করোনা মোকাবিলায় ৪২৪ কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়া

  • বেতন-ভাতা পরিশোধে মালিকরা সহমর্মিতার নজির দেখাবেন : কাদের

  • বেতন-ভাতা পরিশোধে মালিকরা সহমর্মিতার নজির দেখাবেন : কাদের

  • বেতন-ভাতা পরিশোধে মালিকরা সহমর্মিতার নজির দেখাবেন : কাদের

  • পাটের বহুমুখী ব্যবহারে বিশেষ নজর দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

  • করোনাকালে অর্থনীতির চাকা সচল রাখছে আইসিটি খাত

  • ৯৯৯৯ জন গর্ভবতী মাকে স্বাস্থ্যসেবা সেনাবাহিনীর

  • মাস্ক পিপিই রপ্তানিতে নতুন সম্ভাবনায় বাংলাদেশ 

  • ব্রিটেনে বর্ষসেরা চিকিৎসক নির্বাচিত বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ফারজানা

  • ঢাকার কাছেই অর্থনৈতিক অঞ্চল, কারখানা যাবে নবাবগঞ্জ

  • করোনা নিয়ন্ত্রণে দ্বন্দ্ব ভুলে সবাই জেগে ওঠো: ডব্লিউএইচও

  • ডেল্টা প্ল্যান: প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে গভর্ন্যান্স কাউন্সিল

  • শতাব্দীর সেরা ক্রিকেটারের তালিকায় সাকিব

  • ঢাকার চারপাশের নদী দখলমুক্তে শিগগিরই অভিযান

  • কমলো জমি ও ফ্ল্যাট নিবন্ধন ফি 

  • সাহারা খাতুনকে সোমবার থাইল্যান্ড নেয়া হবে

  • বন্যা পরিস্থিতি মনিটরিংয়ের দায়িত্বে ১০ কর্মকর্তা

  • ঈদে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ট্রেন চালানোর প্রস্তুতি

  • শ্রমজীবীদের নেই করোনা ভীতি, সংক্রমণও কম

  • পানির নিচে ১৩ ঘণ্টা যেভাবে বেঁচে ছিলেন সুমন

  • রেমিট্যান্স ১৮ বিলিয়ন ডলার ছাড়াল 

  • বাংলাদেশিদের গড় আয়ু বেড়েছে

  • এনআইডি: অনলাইনে সেবা নিয়েছেন ১২ লাখ নাগরিক

  • বাংলাদেশ থেকে ওষুধ আমদানির আগ্রহ দেখিয়েছে ইন্দোনেশিয়া

  • বাদাম চাষে কৃষকের ভাগ্য পরিবর্তন

  • রাজধানীতে বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা দিচ্ছে ছাত্রলীগ

  • রাঙামাটির আম যুক্তরাজ্য-ইতালিতে

  • করোনায় সরকারি সহায়তা পেয়েছে ৭ কোটি ১১ লাখ মানুষ

  • ব্রিটেনে বর্ষসেরা চিকিৎসক নির্বাচিত বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ফারজানা

  • মুজিববর্ষে বেকারদের জন্য আসছে ‘বঙ্গবন্ধু যুব ঋণ’ প্রকল্প

  • বুধবার থেকে বাড়ছে দোকানপাট খোলা রাখার সময়

  • লকডাউন নিয়ে নতুন সিদ্ধান্ত নিল সরকার

  • ৫ সমুদ্র বন্দরের মালিক হচ্ছে বাংলাদেশ

  • দেড় হাজার সাংবাদিক ১০ হাজার টাকা করে অনুদান পাবেন: তথ্যমন্ত্রী

  • পাটকল শ্রমিকদের শতভাগ পাওনা পরিশোধের সিদ্ধান্ত 

  • আম পরিবহনে সাড়া ফেলেছে ‘ম্যাংগো স্পেশাল’ ট্রেন

  • মোবাইলে কথা বলার খরচ কমানো হচ্ছে

  • শিগগিরই ২ হাজার ডাক্তার ও ৪ হাজার নার্স নিয়োগ: প্রধানমন্ত্রী

  • আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে মাছ রপ্তানি শুরু

  • করোনা দুর্দিনের সারথি কৃষি

  • বাংলাদেশের ছয় তরুণ ডায়না অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত

  • ৭০ হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেন চালু হচ্ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

  • করোনার স্থবিরতাকে আশির্বাদে পরিণত করেছে বাংলাদেশ: আরব নিউজ

  • দেশে করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কারের ঘোষণা 

  • পটুয়াখালীতে নির্মিত হচ্ছে দৃষ্টিনন্দন ১২ সেতু

  • ‘সব বয়সেই কারিগরির ডিপ্লোমায় ভর্তি হওয়া যাবে’

  • প্রথমবারের মত বৈধভাবে দেশে স্বর্ণ আমদানি, কমবে দাম

  • করোনা মোকাবিলায় বহির্বিশ্বে প্রশংসিত শেখ হাসিনা

  • ‘প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় কাঁকরোল রাখুন’