বুধবার   ২৭ জানুয়ারি ২০২১

সর্বশেষ:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে ইসি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ: নূরুল হুদা বারবার আসতে পারব না, যত খুশি সাজা দিন: খালেদা জিয়া ‘আকাশবীণার’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী ত্রিভুবনে আবারও বিমান দুর্ঘটনা ট্রেন-বাসের সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ২৫ ভুয়া ছবি দিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে মিয়ানমার: প্রধানমন্ত্রী
১৭৫

যেখানে শেখ হাসিনা বাংলাদেশ একাকার

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৭ জানুয়ারি ২০২১  

দুই বছর আগে ২০১৯ সালের ৭ জানুয়ারি আওয়ামী লীগের টানা তৃতীয় মেয়াদের সরকার শপথ গ্রহণ করেছিল। সে হিসাবে বর্তমান সরকারের দুই বছর পূর্তি আজ। এর আগে ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিশাল বিজয় অর্জনের মাধ্যমে ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার গঠিত হয়। ফলে বুধবার সরকারের টানা এক যুগ থাকার বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করল আওয়ামী লীগ। আর দলটির সভাপতি, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা দীর্ঘ সময় সরকারপ্রধান অর্থাৎ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালনের অনন্য রেকর্ড স্থাপন করলেন। একই সঙ্গে আর এক মাস পর এ বছর ফেব্রুয়ারিতে আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে চার দশক পূর্ণ হচ্ছে এই নেত্রীর।

বাংলা একাডেমির সভাপতি অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান বুধবার বলেন, তাঁর রাজনৈতিক বিশ্বাস ও কর্মপরিকল্পনায় আন্তরিকতা এবং মানব ভাগ্য উন্নয়নে দৃঢ় অঙ্গীকার আছে বলেই এমন সাফল্য এসেছে। তিনি প্রশ্ন উত্থাপন করে নিজেই জবাব দেন, ‘শেখ হাসিনার এ সাফল্যের উৎস কী? আমার বিবেচনায় এর প্রথম কারণ তিনি বঙ্গবন্ধুকন্যা। তবে শুধু এ কারণেই তাঁর এই স্বর্ণ সাফল্য আসেনি। তিনি বঙ্গবন্ধুর যোগ্য উত্তরসূরি হিসেবে নিজেকে প্রমাণ করতে পেরেছেন বলেই এ সাফল্য এসেছে। এটা সম্ভব হয়েছে কারণ তিনি বঙ্গবন্ধুর মতোই সাধারণ মানুষের বিশ্বাস, আস্থা জয় করেছেন এবং পরম মমতায় তাদের আপন করে নিয়েছেন। সেই সঙ্গে তাঁর অসম্ভবকে সম্ভব করার নেতৃত্ব গুণ ও দৃঢ়তা আছে।’

লেখক ও গবেষক মহিউদ্দিন আহমদ বলেন, ‘আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে শেখ হাসিনাকে দলের সংকটকালে আনা হয়েছিল। সেই থেকে তিনি সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ওই সময় তিনি সভাপতি নির্বাচিত না হলে আওয়ামী লীগ তিন টুকরা হতো। আমি মনে করি আশির দশকের আওয়ামী লীগের এক ধরনের পুনর্জাগরণ হয়। ’৯৬ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়লাভের মাধ্যমে আওয়ামী লীগে শেখ হাসিনার নিরঙ্কুশ নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা পায়। এরপর এক-এগারোতে তিনি দলে চ্যালেঞ্জের মধ্যে পড়েন। কিন্তু যাঁরা চ্যালেঞ্জ ছুড়েছিলেন তাঁরা আওয়ামী লীগের তরুণ নেতাকর্মীর সমর্থন পাননি। ফলে এ ঘটনার পর দলে শেখ হাসিনার নেতৃত্ব আরো সুসংহত হয়েছে। তাই, যদি কোনো মিরাকল না ঘটে তাহলে আমৃত্য তিনি আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব দেবেন। সরকারের এক যুগ প্রসঙ্গে মহিউদ্দিন আহমদ বলেন, যেভাবে নির্বাচন হচ্ছে তাতে আওয়ামী লীগ ২০২৪ সালেও জয়ী হবে।’     

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বুধবার ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে বলেন, বঙ্গবন্ধু দিয়েছেন ভৌগোলিক মুক্তি, তাঁর কন্যা অর্থনৈতিক। তিনি বলেন, শেখ হাসিনা সরকারের ধারাবাহিকতায় গত ১২ বছরে বাংলাদেশ উন্নয়ন-অগ্রগতির সব সূচকে যুগান্তকারী মাইলফলক স্পর্শ করেছে।

সাবেক সিনিয়র সচিব ড. মো. মোজাম্মেল হক খান বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব নেন তখন সব নেতাকর্মীর মধ্যে আস্থার সৃষ্টি হয়েছিল। তাঁরা বুঝতে পেরেছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অঙ্গীকার তাঁর যোগ্য উত্তরসূরির মাধ্যমেই বাস্তবায়ন সম্ভব। পরবর্তী সময়ে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা সে আস্থা রেখেছেন। তিনি আওয়ামী লীগকে পুনর্গঠন করেন। সবাইকে একই পতাকাতলে আনেন এবং সব পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। তাঁর নেতৃত্বে চতুর্থবারের মতো আওয়ামী লীগ রাষ্ট্র ক্ষমতায়। বাংলাদেশ পেয়েছে মধ্যম আয়ের দেশের মর্যাদা। তাঁর দৃঢ় মনোবলের কারণেই সম্পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে তৈরি হয়েছে পদ্মা সেতু। যেসব মেগা প্রকল্প রয়েছে বা তিনি বাংলাদেশকে উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশে রপান্তরিত করার যে স্বপ্ন দেখিয়েছেন, সে সব যে বাস্তবায়ন সম্ভব, তা এখন সবাই মনে প্রাণে বিশ্বাস করে।’

চার দশক আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কালরাতে সপরিবারে নিহত হন। ওই সময় বিদেশে অবস্থান করার কারণে ভাগ্যক্রমে বেঁচে যান বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা। বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতে জাতি যেমন এক ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছিল, তেমনি আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব নিয়েও চরম সংকট তৈরি হয়। এ পরিস্থিতিতে ১৯৮১ সালের ১৩ থেকে ১৫ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিলে দলটির সভাপতি নির্বাচিত হন শেখ হাসিনা। ওই সময় তিনি দিল্লিতে নির্বাসিত জীবন যাপন করছিলেন। সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার প্রায় তিন মাস পর শেখ হাসিনা দেশে ফিরে এসে দলের হাল ধরেন। তারপর অনেক চড়াই-উত্রাই অতিক্রম করতে হয়েছে তাঁকে। এই চার দশকের নেতৃত্বে তিনি আওয়ামী লীগকে চারবার ক্ষমতায় নিয়ে গিয়ে বিশ্বে বিরল নেতৃত্বের দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। পরিণত হয়েছেন নেতাকর্মীদের আস্থার প্রতীক হিসেবে।

বিশ্বে দীর্ঘ মেয়াদে ক্ষমতাসীন নারী

নারী হিসেবে দীর্ঘমেয়াদে রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকার অনন্য রেকর্ড অর্জন করেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মারকেল টানা ১৫ বছর ক্ষমতায় থাকার রেকর্ড ধরে রেখেছেন। শেখ হাসিনা টানা ১২ বছর হলেও চার মেয়াদে এরই মধ্যে ১৭ বছর প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন।

যুক্তরাজ্যের প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী মার্গারেট থ্যাচার প্রধানমন্ত্রী ছিলেন প্রায় ১১ বছর সাত মাস। ভারতের প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী ষাটের দশকে ক্ষমতায় এসে টানা ১১ বছর তিন মাস এবং আশির দশকে আবার ক্ষমতায় এসে নিহত হওয়ার আগে প্রায় পৌনে চার বছর ক্ষমতায় ছিলেন। এ ছাড়া শ্রীলঙ্কার শ্রীমাভো বন্দরনায়েক তিন মেয়াদে মোট প্রায় সাড়ে ১৭ বছর সরকারের নেতৃত্ব দেন। তাঁর মেয়ে চন্দ্রিকা বন্দরনায়েক কুমারাতুঙ্গা প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতি হিসেবে প্রায় ১১ বছর সাত মাস ক্ষমতায় ছিলেন। সবচেয়ে বেশিদিন ক্ষমতায় থাকা নারী সেন্ট লুসিয়ার গভর্নর জেনারেল ডেম পারলেট লুইজি। তিনি ১৯৯৭ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ২০ বছর ১০৫ দিন দেশ শাসন করেন।

উন্নয়নে বদলে গেছে দৃশ্যপট

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মহামারি করোনাভাইরাস মোকাবেলা করে বাংলাদেশ এখন সারা বিশ্বে প্রশংসিত। একটির পর একটি সূচকে উঠে আসছে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির তথ্য এবং সারা বিশ্বে প্রশংসা হচ্ছে শেখ হাসিনার সরকারের। ২০০৮ সালের ডিসেম্বরের নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয় নিয়ে সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। সে সময় দেশের অর্থনীতি ছিল অনেকটাই নাজুক। বিদ্যুতের বেহাল অবস্থায় নাকাল ছিল দেশের মানুষ। সে অবস্থার বৈপ্লবিক পরিবর্তন সূচিত হয়েছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকারের টানা এক যুগের শাসনামলে। দেশের মানুষ ভুলতে বসেছে ‘লোডশেডিং’ শব্দটি।

যোগাযোগব্যবস্থাকে সহজ এবং সাধারণ মানুষের আওতায় এনে অর্থনীতির চাকাকে গতিশীলও করেছে এই সরকার। এই মূল্যায়ন দেশের মানুষের। ভেঙে পড়া রেল যোগাযোগকে পুনরুজ্জীবিত করার পাশাপাশি ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-ময়মনসিংহ ফোর লেন মহাসড়ক, ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ে এবং ঢাকা ও চট্টগ্রামে নির্মিত ফ্লাইওভারের সুফল পাচ্ছে দেশবাসী। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট স্থাপন, চট্টগ্রামে নদীর নিচে ট্যানেল নির্মাণ, চরম প্রতিকূল পরিস্থিতিতে পদ্মা সেতু নির্মাণ শেষ, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বৃদ্ধির পাশাপাশি বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তর শেখ হাসিনার সরকারের ফসল।

২০০৯ সালে ৫ শতাংশের বৃত্ত ভেঙে ৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জনের মধ্য দিয়ে নতুন এক অধ্যায় শুরু করে বাংলাদেশ। সবশেষ ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৮.১৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে। এরপর করোনাভাইরাস মহামারিতে সারা বিশ্বের প্রায় সব দেশই নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি পেলেও বাংলাদেশ ৫.২৪ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে। বাংলাদেশের এ অর্জন এখন সারা বিশ্বে প্রশংসিত এবং দৃষ্টান্ত হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে।

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • প্রয়োজনে আরও টিকা ক্রয় করা হবে: প্রধানমন্ত্রী

  • কমলগঞ্জে পাকা ঘরে উঠলেন ৬০ গৃহহীন পরিবার

  • তারল্য বাড়াতে ১০০ কোটি ডলারের বন্ড ছাড়বে আইসিবি

  • দুর্ভোগ থেকে মুক্তি পাচ্ছে নিরপরাধরা

  • টিকায় এগিয়ে বাংলাদেশ

  • ‘কাজ ঝুলিয়ে রাখা ঠিকাদারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে’

  • প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কড়া নির্দেশনা

  • অ্যান্টিবায়োটিকের যত্রতত্র ব্যবহার বন্ধে প্রধানমন্ত্রীর ৬ প্রস্তা

  • সিলেটে ঘর পাচ্ছে ৪১৭৮টি পরিবার

  • ধর্ষণের হুমকিতে আমি ভয় পায় না: নুসরাত

  • মুক্তমনে স্বাধীনভাবে খেলছে শিশুরা

  • আন্তর্জাতিক অ্যাওয়ার্ড পেলেন ঢাবি ছাত্রী সাজিয়া

  • যুক্তরাষ্ট্রের পাঠ্যপুস্তকে রাজুব ভৌমিকের আরেকটি বই

  • দেশের ইতিহাসে প্রথম টিকা নিচ্ছেন নার্স রুনু

  • কৃষিযন্ত্রের বাজার বাড়ছে

  • নির্ভরতার কৃষিতে ছুটছে অর্থনীতির চাকা

  • মাষকলাইয়ে আগ্রহ ফেরাতে প্রণোদনা

  • ‘সৌন্দর্যের’ কাঠবাদামে বাণিজ্যিক সম্ভাবনা

  • ধান চাষে বেড়েছে প্রযুক্তির ব্যবহার

  • দ্বিগুণ লাভে গাজর চাষে বিপ্লব!

  • বৈশ্বিক উদ্যোগ ব্যর্থ অর্থ ও সদিচ্ছার অভাবে: প্রধানমন্ত্রী

  • চাল আমদানির ফলে বাজার স্থিতিশীল হয়েছে: কৃষিমন্ত্রী

  • আগামী বছরের জুনেই শেষ হবে পদ্মাসেতুর কাজ

  • টিকা প্রদানে প্রস্তুত কুর্মিটোলা হাসপাতাল

  • সারাদেশে টিকাদান ৭ ফেব্রুয়ারি শুরু: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

  • মার্চে খুলছে ঢাবির হল

  • দক্ষিণ এশিয়ায় একমাত্র বাংলাদেশেরই বাড়ছে জিডিপি

  • পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে ফোন করবেন জন কেরি

  • বাসা-ভাড়াটিয়ার তথ্য সংগ্রহ করবে ডিএমপি

  • ঘরে বসেই খাজনা পরিশোধ: ভূমিমন্ত্রী

  • মুজিবর্ষে ৭০ হাজার গৃহহীন পরিবারকে ঘর দিলেন প্রধানমন্ত্রী

  • অনুমোদন পেল বাংলাদেশে উদ্ভাবিত কোভিড টেস্ট কিট

  • বিনাশুল্কে চীনের বাজারে যাচ্ছে ৮২৫৬ বাংলাদেশি পণ্য

  • স্বপ্নের মেট্রোরেল: উত্তরা থেকে আগারগাঁও ৮০ ভাগ কাজ সম্পন্ন

  • ২০২৩ সালের মধ্যে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ উৎক্ষেপণ

  • বাংলাদেশে পৌঁছালো ভারতের উপহারের ২০ লাখ ডোজ টিকা

  • ৩ থেকে ৫ কোটি টাকা ঋণ পাবে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উদ্যোক্তারা

  • আজ ‘স্বপ্ননীড়ে’ পা রাখছে ৬৬ হাজার ১৮৯ পরিবার

  • বাড়ি পেয়ে প্রধানমন্ত্রীর দীর্ঘায়ু কামনা করলেন গৃহহীনরা

  • কারা নিতে পারবেন না করোনা ভ্যাকসিন

  • দেশের প্রথম স্বয়ংক্রিয় দুগ্ধ খামার চালু

  • ২০৩০ সালে শিল্পখাতের উৎপাদনশীলতা হবে ৫.৬ শতাংশ: শিল্পমন্ত্রী

  • আপাতত সপ্তাহে একদিন ক্লাসের পরিকল্পনা : শিক্ষামন্ত্রী

  • ১৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে টিসিবির পেঁয়াজ

  • ৫০ বছর পর সুন্দরী খাল সংস্কার

  • নতুন ৬টি দেশে শ্রমিক পাঠানোর উদ্যোগ নিয়েছে সরকার

  • শাহজালাল বিমানবন্দর হবে দক্ষিণ এশিয়ার কেন্দ্রবিন্দু

  • দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের কৃষির উন্নয়নে হচ্ছে বিশ্বমানের গবেষণাকেন্দ্র

  • সর্বপ্রথম ভ্যাকসিন নিতে অর্থমন্ত্রীর আগ্রহ প্রকাশ

  • এক ‘মা’ জন্ম দিয়েছেন, আরেক ‘মা’ দিলেন ঘর

  • করোনা টিকা নিয়ে গুজব রোধে সতর্ক সরকার

  • দেশের সব নদী দখলমুক্ত করা হবে: নৌপ্রতিমন্ত্রী

  • আগামী মাসে বাড়ি পাচ্ছে আরও ১ লাখ পরিবার

  • বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধুকে তুলে ধরতে ৫০ দেশ ঘুরবে গাড়ি

  • দু-একদিনের মধ্যেই আরও ৫০ লাখ টিকা আসবে: পাপন

  • চলতি অর্থবছরে ১২ শিল্পনগরী স্থাপন হচ্ছে: শিল্পমন্ত্রী

  • নয়াদিল্লির রাজপথে কুচকাওয়াজে বাংলাদেশের সেনা বাহিনী

  • অবশেষে ফেব্রুয়ারিতে খুলছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান

  • বাংলাদেশের কেনা টিকার প্রথম চালান আসবে ২৫ জানুয়ারি

  • কুমিল্লায় অতিথি পাখির মিলনমেলা