বুধবার   ০১ এপ্রিল ২০২০

ব্রেকিং:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ খালেদার অনুপস্থিতিতেই কারাগারে বিচার চলবে রব ও মান্নার বিয়ে যুক্তফ্রন্টে, পরকীয়া ঐক্যফ্রন্টে: মাহী এটা জোট নয়, ঘোট : তথ্যমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় পেলেন সিনহা আবারও সরকার গঠনে নৌকায় ভোট দেয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর পদ্মা সেতু প্রকল্পের নামফলক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী
১০৯

মূর্তি পূজা এবং তাজিয়া পূজা: ইসলাম কেন বিরোধিতা করে?

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২২ ডিসেম্বর ২০১৯  

ইসলাম একত্ববাদের ধর্ম। এক আল্লাহর প্রতি ঈমান ও ইবাদত ছাড়া আর কারো ইবাদত বিশ্বাস করে না। সকল চাওয়া পাওয়া তাঁর কাছেই।  আমাদের আল্লাহর দিকে মাথা ঝুঁকাতে হবে। যেমনিভাবে মূর্তি পূজা ভুল, তেমনিভাবে তাজিয়া পূজা ও কবর পূজাও ভুল। দুনিয়ার সকল মানুষ ওই মহান স্রষ্টার প্রতি মুখাপেক্ষী, যিনি সব কিছু সৃষ্টি করেছেন আর যারা কিছুই সৃষ্টি করেনি তারা কি সমান হতে পারে? 

কখনোও নয়। তিনি সব কিছুকে অস্তিত্বহীন থেকে অস্তিত্ব দান করেছেন। মৃত্যুর পর বিচারকও হবেন, যাকে ইচ্ছা ক্ষমা করে দেবেন। আর যাকে ইচ্ছা শাস্তি দেবেন। তিনি সব কিছুতেই সক্ষম।

হিন্দুদের কিছু লোক বলে, মানুষ এবং সকল সৃষ্টির মাঝে আল্লাহ তায়ালার মহত্ত বিদ্যমান আছে। যদি এসব আল্লাহর অস্তিত্বের অংশ হত, তাহলে জান্নাত ও জাহান্নাম, স্বর্গ-নরকের অস্তিত্ব থাকত না। কেননা আল্লাহর অস্তিত্বের একটি অংশ দোযখে জ্বলবে। এটা চূড়ান্ত পর্যায়ের হাস্যকর ধারণা। মৃত্যুর পর প্রতিদান ও শাস্তির ব্যাপারে অকাট্য প্রমাণাদি বিদ্যমান আছে। মৃত্যুর পর রুহ বা আত্মা আল্লাহর কাছে ফিরে যায়। যা হিন্দুদের গ্রন্থেও বিদ্যমান। কখনো অসীম হতে পারে না, যদি আমাদের সসীম চিন্তা আল্লাহকে সীমাবদ্ধ করতে পারত। তাহলে তো অসীম হওয়ার প্রশ্নই আসে না। আমাদের ধর্মীয় গ্রন্থ কোরআনে এভাবে বর্ণনা করেছেন, ‘পৃথিবীর কোনো জিনিস তার সাদৃশ্য নেই।’

স্রষ্টা সম্পর্কে হিন্দুদের ধর্মগ্রন্থ  ও কোরআনের ভাষ্য একই। কোরআনে বলা হয়েছে, যেদিকেই ফিরবে সেদিকেই আল্লাহ তায়ালার চেহারা।..(বাকারা ১১৫)। রিগবেদ আছে ; তিনি চতুর্দিকে আছেন, তার চেহারা সর্বদিকে। তিনি একক। একত্ববাদের দাবি এ বিশ্বাসও রাখা যে, এই দুনিয়া ধ্বংস হয়ে যাবে এবং পৃথিবীর সকল জিনিস শেষ  হয়ে যাবে। মহাপ্রলয় বা কিয়ামত সংগঠি হবে। ইনসাফের দাবিও হলো তা প্রতিষ্ঠিত হওয়া।

যেমন কোনো ব্যক্তি তিনজনকে হত্যা করে ফেলল। এর সর্বোচ্চ শাস্তি হলো তার জানটিকে শেষ করে দেয়া। কিন্তু জান তো হলো একটি। একজনের পক্ষ থেকে বিচার হলো, বাকি দু’জনকে হত্যা করার জন্য তার বিচার কীভাবে হবে? এজন্যই আল্লাহ তায়ালা আখেরাতে এর বিচারের ব্যবস্থা রেখে দিয়েছেন। (নরকে) জাহান্নামে তার তিন হত্যার বিচার করা হবে। তদ্রুপ কোনো ব্যক্তি ভালো আমল করে, তার প্রতিদান স্বরূপ রাখা হয়েছে জান্নাত। সেখানে চিরস্থায়ীভাবে থাকতে হবে। সেখান থেকে ফিরে আসা অসম্ভব। যেমন মায়ের পেটে দ্বিতীয় বার প্রবেশ করা অসম্ভব।

মানুষ পুনর্জন্ম বিশ্বাস করলে কয়েকটি প্রশ্ন দেখা দেয়। যার উত্তর কোনো হিন্দু ভাইও দিতে পারে না। প্রথম প্রশ্ন সাইন্স বলে, পৃথিবী যখন বানানো হয়, তখন প্রথমে জীব জন্তু সৃষ্টি করা হয়েছে। এরপর গাছপালা, তরুলতা অস্তিত্বে এসেছে। এরপর মানুষকে সৃষ্টি করা হয়েছে। এটা কীভাবে সম্ভব যে, যখন মানুষই ছিল না জীবজন্তু কোন পাপের কারণে দুনিয়াতে এসেছে?

দ্বিতীয় প্রশ্ন উঠে, হিন্দুদের বর্ণনা অনুযায়ী যুগ ছিল সত্য। উদাহরণস্বরূপ সত্য যুগে জনসংখ্যা ছিল ১০,০০০। যদি সকলেই ভালো হয় তাহলে  ১০,০০০ তো এখনো থাকা উচিত। যদি পূর্বের দশ হাজারের মধ্যে কিছু লোক খারাপ ছিল তাহলে জন্ম সংখ্যা হিসেবে জনসংখ্যা কম হওয়া উচিত ছিল। কিন্তু বাস্তবতা হলো এর উল্টো। পূর্বের তুলনায় জনসংখা বেড়েই চলছে। তাহলে এটা আবার কীভাবে সম্ভব? এতে বুঝা গেল, পুনর্জন্মের এই ধারণা সঠিক নয়।

তৃতীয় প্রশ্ন হলো, পুরো দুনয়ার সকল মানুষ ভালো হতে চায়, আর সকলেই যদি ভালো হয়ে যায়, তাহলে শাক-সবজি কোথা থেকে আসবে। নাউজুবিল্লাহ! আল্লাহ কি জালিম? (কখনো নয়) এমনটি নয় যে তিনি একদিকে মানুষকে ভালো হতে বলবেন, আবার অন্য দিকে ভালোও হতে দিবেন না। এটা অসম্ভব। যখন খাবারের কোনো জিনিস থাকবে না তখন এমনিতেই সব কিছু শেষ হয়ে যাবে। এমন স্ববিরোধ? কেমন ধর্ম? মোটকথা এই কথা দ্বারা বুঝা গেল যে, এই পুনর্জন্ম বিশ্বাস সঠিক নয়। আরেকটি প্রশ্ন হচ্ছে, যদি আল্লাহ তায়ালা একই দেশে একই যুগে বিভিন্ন আকার আকৃতিতে আসেন, তাহলে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের ও অন্যান্য দেশের লোকের কী অবস্থা হবে?

যদি সবকিছু আল্লাহর অস্তিত্বের অংশ মনে করি, তাহলে পাপীকে শাস্তি দেবেন, বা নরকে জ্বালাবেন কেন? এমনটি সঠিক নয়। দুনিয়ার সব কিছু আল্লাহ তায়ালা নিজেই পরিচালনা করেন। কিন্তু কিছু কাজের জন্য আল্লাহ তায়ালা ফেরেশতা নির্দিষ্ট করে রেখেছেন এবং সঠিক পথ দেখানোর জন্য রাসূল বা দূতদের পাঠিয়েছেন। যাতে মানুষ এক আল্লাহরই উপাসনা করে। এজন্যই আদি পিতা আদম (আ.)-কে সর্বপ্রথম রাসূল/নবী বানিয়ে পাঠিয়েছেন। দুনিয়াতে যারাই দাবি করেন, আমাদের ঐশী জ্ঞান আছে তাদের প্রত্যেকের গ্রন্থে শেষ নবীর আলোচনা বিদ্যমান আছে। শেষ নবীর আলোচনা তাওরাত, ইঞ্জিল, বৌদ্ধ ধর্ম ও কোরআনে পাওয়া যায়। এ সবগুলো পৃথক পৃথক ভাষায়, যার একটিই অর্থ হয়, মুহাম্মাদ।

এমনিভাবে বেদে মুহাম্মাদ (সা.) এর আলোচনা এসেছে (অর্থ: বেদ-১২৭:২০, রিগবেদ-২:৩:২, রিগবেদ- ২:৫:৫, রিগবেদ- ৩:১৩:১)। আমাদের পিতা আদম (আ.) এর দিকে চিন্তা করি। তিনি যেই ধর্ম নিয়ে এসেছিলেন সেটি হলো ইসলাম। আরবিতে ইসলাম বলা হয়েছে। বাংলায় যাকে বলে আত্মসমর্পণকারী ধর্ম। আমাদের সকলের পিতা-মাতা একজন। আমাদের ধর্মও একটি। আর আপনি সে যুগেই রয়ে গেছেন। আর সর্বশেষ নবী ‘নরাশংশ’ মুহাম্মাদ (সা.)-কে চিনেননি ও মানেননি। আমরা তার ওপর আস্থা রেখে ঈমান এনেছি। 

মোটকথা, আমরা কারো ধর্ম পরিবর্তন করছি না বরং  ভুলে যাওয়া সবক স্মরণ করিয়ে দিচ্ছি। যাতে আপনি সঠিক ধর্মে চলে আসেন এবং ওই ধর্ম থেকে ফিরে আসেন যা নিজেদের জন্য বানিয়ে নিয়েছেন। তাই আমি আপনাদের মাথা থেকে একথা বের করতে চাই যে, ইসলামের প্রতিষ্ঠাতা মুহাম্মাদ (সা.)-ই নন, বরং ইসলামের প্রতিষ্ঠাতা হলেন মানবজাতির আদি পিতা আদম (আ.)। মুহাম্মাদ (সা.) এর মাধ্যমে ইসলাম ধর্ম পূর্ণতা লাভ করেছে। এজন্য আপনি তো অর্ধেক মানেন। আর যদি শেষ নবীকে না মানেন, তাহলে পরিত্রাণ পাওয়ার কোনো উপায় থাকবে না। আধুরা মানুষ হয়ে থাকতে হবে। না এ দিকে, না ওদিকে।
 
হিন্দুদের ধর্মে যে খারাবিগুলো এসেছে, এসব তার স্থানে ঠিক। এই জন্য যে,  মুহাম্মাদ (সা.) এর অনুসারীগণ মাত্র ১৪ শ বছর পরে তাদের মাঝে কবর পূজা এসে গেছে। তাহলে হিন্দুদে এখানে হাজার বছর পর মূর্তি পূজা হয় এতে আশ্চর্যের কী আছে? কিন্তু তখন আশ্চর্য লাগে যখন কোনো  হিন্দুকে হিতাকাক্সক্ষী তাকে তার ভুলে যাওয়া পথের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। তখন সে মুহসিনকে দুশমন মনে করে। অথবা মনে করে যে, সে আমাকে ধোঁকা দিচ্ছে। হ্যাঁ, এই যুগ অবশ্যই ধোঁকার যুগ। কিন্তু সতর্ক করিয়ে দেয়ার পর তার ওপর চলতে অসুবিধা কিসের? 

তাই এক আল্লাহকে উপাস্য হিসেবে মেনে এবং মুহাম্মাদ (সা.)-কে নবী স্বীকার করে তার ওপর অর্পিত হুকুমগুলোর আমল করার অঙ্গিকার নিয়ে মুর্তিপূজারিদের মুসলমান হয়ে যাওয়া আল্লাহর আহ্বান। 

আরও পড়ুন
ইসলাম বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • ৬৫ শতাংশ মানুষের শেষ ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন

  • ভারতে আটকে পড়াদের জন্য হটলাইন

  • গার্মেন্টস খাতকে দুই শতাংশ সুদে ঋণ দেয়া হবে: বাণিজ্যমন্ত্রী

  • ফরিদগঞ্জে রাতের আঁধারে ঘরে ঘরে ত্রাণ পৌঁছে দিচ্ছে তরুণরা

  • করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই পদ্মাসেতুর সবকটি পিয়ারের কাজ সম্পন্ন

  • শ্বাসতন্ত্রে আক্রান্ত রোগী মার্চে ১৪ গুণ বেশি: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

  • করোনাভাইরাসে আক্রান্ত না হলে মাস্ক ব্যবহার নয়: ডব্লিউএইচও

  • বাংলাদেশে মাত্র তিন ঘণ্টায় পরীক্ষা করা যাবে ৯৬ করোনা রোগী!

  • দেশের বিভিন্ন স্থানে মারা যাওয়া কারো শরীরে করোনা সংক্রমণ ছিলো না

  • করোনাভাইরাস মোকাবিলায় চিন্তিত বিশ্ব নেতারাও

  • খুলনায় বাজারে আগুনে পুড়ল একশ দোকান

  • স্বপ্নের শেষ সিঁড়িতে পদ্মাসেতু

  • মৃতের সংখ্যায় চীনকে ছাড়িয়ে গেল যুক্তরাষ্ট্র

  • করোনাভাইরাসে ইতালিতে মৃতের সংখ্যা ১২ হাজার ছাড়াল

  • করোনায় মৃতের সংখ্যা ছাড়ালো ৪১ হাজার

  • রফতানি বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত সৌদির

  • হ্যারি-মেগানের পদত্যাগ

  • নিষেধাজ্ঞা থাকলেও মানছে না জেলেরা

  • করোনাতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন কঙ্গোর সাবেক প্রেসিডেন্ট

  • হঠাৎ চীনে ভয়াবহ দাবানল, নিহত ১৯

  • নাইজেরিয়া লকডাউন

  • করোনাভাইরাস: যুক্তরাষ্ট্রে ভেন্টিলেটর নিয়ে হিমশিম খাচ্ছে!

  • কিউবান চিকিৎসকদের চাহিদা বাড়ছে

  • করোনা: সৌদি আরবে আরও এক বাংলাদেশি মারা গেছেন

  • চট্টগ্রামে নাভানা গ্রুপের করোনা চিকিৎসার ‘ফিল্ড’ হাসপাতাল

  • করোনাভাইরাস: স্পেনে ৬৬ বাংলাদেশি আক্রান্ত

  • করোনা: দেশে বেড়েছে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের জনপ্রিয়তা 

  • মশার গান আর শুনতে চাই না: মেয়রকে প্রধানমন্ত্রী

  • করোনা ছুটির প্রভাবে মুরগি ৪৪ টাকা, ডিম ৫ আর বাচ্চা শূন্য!

  • ভারতে নেই পিপিই, হেলমেট-রেইনকোটেই লড়ছেন ভারতীয় চিকিৎসক!

  • করোনায় আক্রান্ত হওয়ার নতুন উপসর্গ

  • কল করার ৩০ মিনিটেই বাজার নিয়ে হাজির পুলিশ!

  • নওগাঁয় একাই ৩০ হাজার পরিবারের দায়িত্ব নিলেন জলিল জন

  • চিকিৎসা সরঞ্জাম নিয়ে ঢাকায় চীনের বিশেষ বিমান

  • করোনার সাহায্য নিয়ে নয়-ছয় করলে ছাড়ব না, হুশিয়ারি প্রধানন্ত্রীর

  • বাজারে নিরাপদ দূরত্ব নিশ্চিতে লালবৃত্ত এঁকে দিচ্ছে ডিএমপি

  • হায়রে কুশিক্ষিত, অর্বাচীন মেধাবী!

  • দাফনের পর মৃতদেহ থেকে করোনাভাইরাস ছড়ায় না

  • লার্জ ফার্মায় ৪ টাকার হ্যান্ডগ্লাভস ২০ টাকা, ১ লাখ টাকা জরিমানা

  • ‘করোনা রোধে প্রয়োজনে অন্য দেশকেও সহায়তা করতে প্রস্তুত বাংলাদেশ’

  • করোনা প্রতিরোধে সোচ্চার বাংলাদেশ সেনাবাহিনী

  • সবাইকে ঘরে থেকে পরিবারকে সময় দেয়ার অনুরোধ জানালেন করোনাজয়ী তরুণ

  • পরিস্থিতি বিবেচনায় ছুটি আরও বাড়ছে: প্রধানমন্ত্রী 

  • করোনার কালকেটা কেমন হবে?

  • ‘পদ্মা সেতুর ৪২টি খুঁটির সবগুলোর নির্মাণ কাজ শেষ’

  • ‘বৈশ্বিক মহামারীতে আমাদের যা করণীয়’

  • ভেন্টিলেটর তৈরির কৌশল উন্মুক্ত করলেন বাংলাদেশের ইশরাক

  • ভারতীয় রুপির বিপরীতে শক্তিশালী হচ্ছে টাকার মান

  • ‘সতর্ক থেকে নিজে বাঁচুন, অন্যকে বাঁচতে দিন’

  • টানা দ্বিতীয় দিনেও নতুন কোনো করোনারোগী শনাক্ত হয়নি: আইইডিসিআর

  • এবার চোখ রাঙাচ্ছে হান্টাভাইরাস

  • আজ জাতীয় গণহত্যা দিবস

  • প্রধানমন্ত্রীর তহবিলে ২৫ কোটি টাকা দিল সশস্ত্র বাহিনী

  • গণহত্যা দিবসে প্রধানমন্ত্রীর বাণী

  • করোনার বিস্তার আটকে দিতে পারে উষ্ণ আর্দ্র আবহাওয়া

  • মানবিক দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন প্রধানমন্ত্রী

  • মশার গান আর শুনতে চাই না: মেয়রকে প্রধানমন্ত্রী

  • জেনে নিন, করোনাভাইরাস নিয়ে সত্য মিথ্যা

  • জনগণের কল্যাণেই এবার নববর্ষের অনুষ্ঠান হবে না: প্রধানমন্ত্রী

  • করোনা প্রতিরোধে ৩১ লাখ টাকা দিলেন টাইগাররা