মঙ্গলবার   ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

ব্রেকিং:
৫ মাস পর খুললো বিনোদনকেন্দ্র, দর্শনার্থীর উপস্থিতি কম ইউপি তথ্যসেবা কেন্দ্রের মাধ্যমে এনআইডি সেবা দেওয়ার উদ্যোগ বরিশালে পারিবারিক কৃষিতে সফলতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ খালেদার অনুপস্থিতিতেই কারাগারে বিচার চলবে রব ও মান্নার বিয়ে যুক্তফ্রন্টে, পরকীয়া ঐক্যফ্রন্টে: মাহী এটা জোট নয়, ঘোট : তথ্যমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় পেলেন সিনহা আবারও সরকার গঠনে নৌকায় ভোট দেয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর পদ্মা সেতু প্রকল্পের নামফলক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী
৩৫৩

বেড়েছে রপ্তানি, ফিরছে পাটের সোনালি অতীত

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২ সেপ্টেম্বর ২০২০  

বাংলাদেশের ইতিহাসের সঙ্গে পাট তথা সোনালি আঁশের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতি ওতপ্রোতভাবে জড়িত। আধুনিকতার কবলে পড়তে শুরু করে সেই সোনালি আঁশের ভরা যৌবন। বিশ্বজুড়ে পলিথিন, সিনথেটিক ব্যবহার বেড়ে যাওয়ায় দিন দিন নিস্তেজ হতে থাকে পাটশিল্প। কিন্তু বৈশ্বিক করোনা মহামারীকালে পাটজাত পণ্যের কদর বুঝতে শুরু করে বিশ্ববাসী। চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় রপ্তানি বেড়ে যায় হু হু করে। দেশীয় বাজারের কাঁচা পাটের দাম বেড়েছে কয়েকগুণ। হাসি ফুটেছে চাষিদের মুখে। রপ্তানির ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে নীতিসহায়তা পেলে সোনালি আঁশের সোনালি অতীত ফিরে আসবে বলে মনে করছেন খাতসংশ্লিষ্টরা।

বালাদেশ রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্য বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, রপ্তানি আয়ের ক্ষেত্রে বর্তমানে পোশাক খাতের পরেই দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে পাট খাত। চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের (জুলাই-আগস্ট) এই দুই মাসে পাট ও পাটজাত দ্রব্য রপ্তানি করে বাংলাদেশ আয় করেছে ১৯ কোটি ৫৪ লাখ ডলার, যা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রায় ৫০ শতাংশ বেশি।

চলতি অর্থবছরের জুলাই-আগস্টে চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য রপ্তানি করে আয় হয়েছে ১৫ কোটি ৪৭ লাখ ডলার। গত বছরের একই সময়ের চেয়ে এ খাতের আয় কমেছে ১৬ দশমিক ৫৪ শতাংশ। অন্যদিকে এই দুই মাসে পাট ও পাটজাত দ্রব্য রপ্তানি করে আয় হয়েছে ১৯ কোটি ৫৪ লাখ ডলার; প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৪৯ দশমিক ৬৪ শতাংশ। করোনা ভাইরাসের কারণে গেল অর্থবছরে তৈরি পোশাকসহ বড় সব খাতের রপ্তানি আয়ে ধস নামলেও পাট ও পাটজাত পণ্যের রপ্তানি আয়ে বরাবরই দেখা গেছে উল্টো চিত্র।
 
এ বিষয়ে জানতে চাইলে বালাদেশ জুট মিলস অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান পাটোয়ারী বলেন, করোনা ভাইরাসের কারণে পাটের গুরুত্ব বোঝা গেছে। পুরো বিশ্ব এখন পাটের ওপর ঝুঁকছে। পাট পণ্যের ব্যবহার হু হু করে বাড়ছে। রপ্তানিও বাড়ছে। তবে এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে সরকারের নীতি সহায়তা প্রয়োজন। আমাদের দেশীয় পাটকলের চাহিদার তুলনায় প্রায় ১০ লাখ বেল উৎপাদন কম হয়েছে। বাজারে পাটের সংকট চলছে। দাম বেড়েছে কয়েকগুণ। এর পরে কাটা দিয়ে পাট পাওয়া যাচ্ছে না। এমন পরিস্থিতিতে কাঁচা পাট রপ্তানি বন্ধ করা ছাড়া আর কোনো পথ নেই। দেশীয় পাটকল বাঁচাতে হলে কাঁচাপাট রপ্তানি বন্ধ করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, পাটশিল্পের ভবিষ্যৎ আমরা ভালো দেখছি। নীতি সহায়তা পেলে এ শিল্প আবারও সোনালি অতীত ফিরে আসবে।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) থেকে পাওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে (জুলাই-আগস্ট) বিভিন্ন পণ্য রপ্তানি করে বাংলাদেশ ৬৮৭ কোটি ৮০ লাখ ডলার আয় করেছে। এর মধ্যে ১৯ কোটি ৫৪ লাখ হাজার ডলার এসেছে পাট ও পাট পণ্য রপ্তানি থেকে ।

এই দুই মাসে পাটসুতা (জুট ইয়ার্ন) রপ্তানি হয়েছে ১৪ কোটি ১৬ লাখ ৩০ হাজার ডলারের; প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৬৭ শতাংশ। কাঁচা পাট রপ্তানি হয়েছে ১ কোটি ৯৭ লাখ ৪০ হাজার ডলার; আয় বেড়েছে ৩৭ দশমিক ৯৫ শতাংশ।

পাটের তৈরি বস্তা, চট ও থলে রপ্তানি হয়েছে ২ কোটি ৭ লাখ ৪০ হাজার ডলারের। আয় বেড়েছে ৩৩ দশমিক ৮৯ শতাংশ। পাট ও পাট সুতা দিয়ে হাতে তৈরি বিভিন্ন পণ্য রপ্তানি করে আয় হয়েছে ২ কোটি ২২ লাখ ৩০ হাজার ডলার; প্রবৃদ্ধি হয়েছে ২৩ দশমিক ৭১ শতাংশ। এ ছাড়া পাটের তৈরি অন্যান্য পণ্য রপ্তানি হয়েছে ১ কোটি ৩২ লাখ ৮০ হাজার ডলার।

গত ২০১৯-২০ অর্থবছরে পাট ও পাটজাত পণ্য রপ্তানি করে বাংলাদেশ মোট ৮৮ কোটি ২৩ লাখ ৫০ হাজার ডলার আয় করেছিল, যা ২০১৮-১৯ অর্থবছরের চেয়ে ৮ দশমিক ১০ শতাংশ বেশি। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে আয় বেশি এসেছিল ৭ শতাংশ। গত অর্থবছরে পাটসুতা রপ্তানি থেকে ৫৬ কোটি ৪৬ লাখ ডলার আয় হয়েছিল। অর্থাৎ মোট রপ্তানি ৬৪ শতাংশই এসেছিল পাটসুতা রপ্তানি থেকে। কাঁচাপাট রপ্তানি থেকে আয় হয়েছিল ১৩ কোটি ডলার। পাটের তৈরি বস্তা, চট ও থলে রপ্তানি হয়েছিল ১০ কোটি ৬৫ লাখ ডলারের। ২০২০-২১ অর্থবছরে পাট ও পাটজাত পণ্য রপ্তানি থেকে আয়ের লক্ষ্য ধরা হয়েছে ১১৬ কোটি ৭০ লাখ (১.১৬ বিলিয়ন) ডলার।

এ দিকে বালাদেশ জুট স্পিনার্স অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান মো. জাহিদ মিয়া বলেন, পাট পণ্যের মূল্য নির্ধারণ হয় কাঁচা পাটের ক্রয় মূলের ওপর। পাট পণ্যের প্রায় ৭৫ শতাশ কাঁচা পাট কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এর মূল্য অতিমাত্রায় বেড়ে গেলে পণ্যের উৎপাদন ব্যয় বেড়ে যাবে। কাঁচা পাট সরবরাহ ঘাটতির কারণে পাটকল বন্ধ হয়ে গেলে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক বাজারের ক্রেতারা পাটপণ্য ব্যবহার থেকে সরে দাঁড়াবে। তাই কাঁচা পাট রপ্তানি বন্ধ করতে হবে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, দেশে সাড়ে সাত থেকে আট লাখ হেক্টর জমিতে পাট চাষ হয়। যেখানে কম বেশি ৮০ লাখ বেল পাটের আঁশ উৎপন্ন হয়ে থাকে। দেশের সব জেলাতেই কম-বেশি পাটের চাষ হয়। তবে সবচেয়ে বেশি পাটের চাষ হয় ফরিদপুর জেলায়, সেখানে এবার ৮৪ হাজার হেক্টর জমিতে পাটের চাষ হয়েছে। গত মৌসুমে হয়েছিল ৮০ হাজার হেক্টর জমিতে।

জানা গেছে, ব্রিটিশ শাসনামল থেকেই এই অঞ্চলে পাটের চাষ হলেও এখানে প্রথম পাটকল প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৫১ সালের মাঝামাঝিতে নারায়ণগঞ্জে; বেসরকারি পরিচালনায় প্রতিষ্ঠিত এই মিলটির নাম ছিল বাওয়া পাটকল। পরবর্তীতে এই সময়েই একই এলাকায় প্রতিষ্ঠিত হয় এশিয়ার বৃহত্তম পাটকল আদমজী পাটকলের এবং এর পরপরই কয়েক বছরের মধ্যে গড়ে ওঠে অসংখ্য শিল্প কারখানা, ১৯৬০ এ যার সংখ্যা ১৬টি ও ১৯৭১ সালে যা দাঁড়ায় ৭৫টিতে।

বাংলাদেশে পাটশিল্পের সূচনাই ঘটে নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদীর তীরে এবং পরবর্তীতে অন্যান্য প্রতিষ্ঠানগুলোও এর আশপাশেই গড়ে ওঠে। ঢাকা, খুলনা ও চট্টগ্রাম - এই তিনটি প্রধান এলাকায় ছড়িয়ে আছে এর প্রতিষ্ঠাগুলো। কিন্তু চলতি বছরের জুলাই মাসে সরকার বিজেএমসির আওতাধীন রাষ্ট্রায়ত্ত ২৬টি পাটকলে উৎপাদন বন্ধ করে ২৪ হাজার ৮৮৬ জন স্থায়ী শ্রমিককে অবসরে পাঠায়।

জানা গেছে, পাটপণ্যের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- নান্দনিক বিভিন্ন ধরনের ব্যাগ, সেমিনার ফাইল এবং প্রমোশনাল পণ্যসমূহ, নানা ধরনের গৃহস্থালি, বাহারি সাজসজ্জায় ব্যবহৃত পণ্যসামগ্রী অন্যতম। দৈনন্দিন জীবনের ব্যবহার পণ্যসামগ্রী যেমন বিভিন্ন প্রকার ব্যাগ (ল্যাপটপ, স্কুল, লেডিস স্পোর্টস, ওয়াটারক্যারি, মোবাইল, পাসপোর্ট, ভ্যানিটি, শপিং, গ্রোসারি, সোল্ডার, ট্রাভেল, সুটকেস, ব্রিফকেস, হ্যান্ড ও মানি ব্যাগ), হোম টেক্সটাইল (বেড কভার, কুশন কভার, সোফা কভার, কম্বল, পর্দা, টেবিল রানার, টেবিল ম্যাট, কার্পেট, ডোর ম্যাট, শতরঞ্জি), পরিধেয় বস্ত্র (ব্লেজার, ফতুয়া, কটি, শাড়ি) ছাড়াও সরকারি ও বেসরকারি সংস্থায় অফিস এক্সেসরিস হিসেবে ফাইল ফোল্ডার, পেনহোল্ডার, কার্ডহোল্ডার, টিস্যুবক্স, টেলিফোন ইনডেক্স, ডায়েরি, প্যাড, ভিজিটিংকার্ড ইত্যাদির চাহিদা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

আরও পড়ুন
অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • নোয়াখালী জেলা আ. লীগের প্রস্তাবিত কমিটিতে বিএনপি-জামায়াত!

  • কৃষক উদ্যোক্তাদের জন্য শিগগিরই চালু হচ্ছে বিপণন ডাক সেবা

  • পুরোদমে চলছে বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনালের নির্মাণকাজ

  • তরমুজের বাম্পার ফলনে এবার ২০ গুণ লাভের আশা

  • স্বাভাবিক ধারায় ফিরেছে দেশের অর্থনীতি

  • বৃক্ষরোপণ সামাজিক আন্দোলনে পরিণত হয়েছে: তথ্যমন্ত্রী

  • কৃষি জমিতে শিল্পকারখানা নয় : প্রধানমন্ত্রী

  • ভাসানচর যেন আধুনিক শহর, মিলবে জীবিকার সুবিধাও

  • আসছে ৩৩৭ কোটি টাকার প্রকল্প

  • ফের চালু হবে বন্ধ সব কোভিড হাসপাতাল

  • ওসমানী বিমানবন্দর হবে বিশ্বমানের

  • প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য এক বন্ডে চার সুবিধা

  • প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শিতায় বিদ্যুৎ খাতে বিপ্লব

  • জন্মদিনে শেখ হাসিনাকে মমতার উপহার

  • বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে শায়িত হলেন মাহবুবে আলম

  • শ্রীলংকা যাচ্ছে না টাইগাররা

  • এইচএসসি পরীক্ষা: যে প্রস্তাব দিল আন্তঃশিক্ষা বোর্ড

  • ডিসেম্বরে বৈঠকে বসছেন শেখ হাসিনা-মোদী

  • আমার কাছ থেকে দেশের মানুষের যেন উপকারই হয়: প্রধানমন্ত্রী

  • কে হচ্ছেন অ্যাটর্নি জেনারেল

  • প্রেরণার দীপ্যমান শিখা শেখ হাসিনা: কাদের

  • ডিসেম্বর পর্যন্ত কিস্তি না দিলেও ঋণখেলাপি করা যাবে না

  • ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মানবতারও অনন্য উদাহরণ’

  • শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে পরামর্শ চাইলে জানাবো:মন্ত্রিপরিষদ সচিব

  • ‘স্বাধীনতার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধু, শেখ হাসিনায় অর্থনৈতিক মুক্তি’

  • ‘সবার যাওয়ার ব্যাপারে আশ্বাস দিয়েছে সৌদি’

  • পিতার মতো শেখ হাসিনা দূরদৃষ্টিসম্পন্ন: রাষ্ট্রপতি

  • করোনা মোকাবেলায় মার্কেল জেসিন্ডাকে ছাড়িয়ে বঙ্গকন্যা

  • শেখ হাসিনা: একজন সফল রাষ্ট্রনায়ক

  • শেখ হাসিনা, সারা বিশ্বের বিস্ময়

  • ৫৪ হাজার রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে পাঠাবে না সৌদি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

  • ভাসানচরে আধুনিক জীবনের সব সুবিধা পাবেন রোহিঙ্গারা

  • কেনার আগে মোবাইলের বৈধতা যাচাইয়ের পরামর্শ বিটিআরসির

  • পিরোজপুরে তৈরি হচ্ছে বিশ্বমানের ক্রিকেট ব্যাট

  • তিস্তায় পাল্টে যাবে জীবন

  • প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে পায়রা নদীর ওপর নির্মিত হবে সেতু

  • রোহিঙ্গাদের কারণে নানামুখী সমস্যায় পড়েছে বাংলাদেশ

  • গোয়াইনঘাটে ৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ হচ্ছে ৮টি আশ্রয় কেন্দ্র

  • রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর নিয়ে প্রোপাগান্ডা করছে একটি মহল

  • মোংলাকে আধুনিক বন্দরে রূপ দিতে বাস্তবায়ন হবে ১০ প্রকল্প

  • এলইডির আলোয় ঝলমলে ঢাকা

  • পেঁয়াজ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়ার পথে বাংলাদেশ

  • উদ্বোধনের অপেক্ষায় দেশের সর্ববৃহৎ সৌরবিদ্যুৎ প্রকল্প

  • সেফটিপিনের চেইন তৈরি করে গিনেস বুকে স্থান পেলো পার্থ দেব

  • ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচিতে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন ২২ লাখের বেশি মানুষ

  • নতুন কারা মহাপরিদর্শক হলেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোমিনুর রহমান

  • দেশের সব মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে হবে ডিজিটাল একাডেমি

  • পেঁয়াজ আমদানিতে শুল্ক প্রত্যাহার, প্রজ্ঞাপন জারি

  • পায়রা নদীর ওপর নির্মিত হবে ‘শেখ হাসিনা পায়রা ব্রিজ’

  • বানের পানির মতো আসছে রেমিট্যান্স, রিজার্ভেও রেকর্ড

  • ইস্পাত শিল্পে কর্মসংস্থান হলো তিন লাখ মানুষের

  • নাটোরে ২২ লাখ টাকার কৃষি প্রণোদনা পাচ্ছেন ৩,০০০ কৃষক

  • গৃহহীনদের খুঁজে খুঁজে ঘর করে দেবে সরকার : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

  • আমন ধানের ক্ষেতে সবুজের হাসি

  • ইকামার মেয়াদ বাড়িয়েছে সৌদি সরকার

  • ১ অক্টোবর থেকে সৌদিতে ফ্লাইটের অনুমতি পেল বিমান

  • ‘পরিকল্পিত উপায়ে দেশব্যাপী রাস্তা নির্মাণে মাস্টারপ্ল্যান হবে’

  • ‘বিশ্বের ৮০ দেশে সফটওয়্যার রফতানি করছে বাংলাদেশ’

  • করোনা মোকাবিলায় দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

  • আমন ধানে স্বপ্ন দেখছেন কৃষক