মঙ্গলবার   ১৮ জানুয়ারি ২০২২

সর্বশেষ:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে ইসি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ: নূরুল হুদা বারবার আসতে পারব না, যত খুশি সাজা দিন: খালেদা জিয়া ‘আকাশবীণার’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী ত্রিভুবনে আবারও বিমান দুর্ঘটনা ট্রেন-বাসের সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ২৫ ভুয়া ছবি দিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে মিয়ানমার: প্রধানমন্ত্রী
৬৬

বন্যাজয়ী বিনা ধান-১১ লাভবান করছে কৃষকদের

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১৩ জানুয়ারি ২০২২  

বর্ষার প্রতিকূলতা কোনোভাবেই কাটিয়ে উঠতে পারেন না ময়মনসিংহ জেলার সদর উপজেলার কৃষকেরা। আমন মৌসুমে ধান চাষ করে অর্ধেক ফলনও ঘরে ওঠে না তাদের। মাস দুয়েকের বেশি সময় পতিত থাকে জমি। এভাবে প্রতিবছরই লোকসানের মুখে পড়েন তারা।

তবে চলতি বছরের আমন মৌসুম একেবারে ভিন্নভাবে ধরা দিয়েছে ময়মনসিংহ সদর উপজেলার ছাতিয়ানতলা গ্রামের কৃষকদের কাছে। ধানের ক্ষেত বন্যায় তলিয়ে গেলেও শতভাগ ফলন ঘরে তুলছেন সেখানকার কৃষক।

ওই এলাকার কৃষকদের কাছে আশীর্বাদ হয়ে দেখা দিয়েছে বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বিনা) বিজ্ঞানীদের উদ্ভাবিত বিনা ধান-১১। বন্যাসহিষ্ণু স্বল্পমেয়াদি এ ধানের চাষ করে কৃষকের মুখের হাসি চওড়া হয়েছে। সঙ্গে বাড়তি হিসেবে মিলেছে সরিষা আবাদের সুযোগ। 

সম্প্রতি ময়মনসিংহ সদর উপজেলার ছাতিয়ানতলা গ্রামে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মাঠে সোনালি রঙের বিনা ধান-১১ দোল খাচ্ছে। কিছু জমিতে ইতোমধ্যে ধান কাটা শেষ হয়েছে। মাঠে পৌঁছাতেই কৃষকদের চোখে মুখে গেল দারুণ আত্মতৃপ্তি।

ময়মনসিংহ শহর থেকে প্রায় ১৭ কিলোমিটার দূরে ছাতিয়ানতলা গ্রামের কৃষকেরা এ প্রতিবেদককে জানান, ব্রহ্মপুত্র তীরের এ চরে বন্যা-বৃষ্টিতে ধানের ফলন একেবারেই পাওয়া যায় না। সারা বছর শুধু বোরো ধানেরই ভালো আবাদ হয়। কিন্তু এ বছর অনেকেই বিনা ধান-১১ আবাদ করে ভালো ফলন ঘরে তুলছেন। বোরো মৌসুম শুরুর আগে সরিষার আবাদও করতে পারবেন তারা।

বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বিনা) বিজ্ঞানীরা জানান, এ জাতটি বন্যা সহনশীল। এ ধান ২৫ দিন পর্যন্ত পানিতে ডুবে থাকলেও কোনো ক্ষতি হয় না। আর ফলনও বেশি। আবার উৎপাদন খরচও তুলনামূলক অনেক কম। মাত্র ১০৫ থেকে ১১০ দিনের মধ্যে ফলন ঘরে তোলা যায়। ফলে কৃষক বছরে অন্তত তিনটি ফসল করতে পারবেন এসব জমিতে।

কৃষকদের সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, একই জমি থেকে বছরে তিন ফসল চাষের সুযোগে তারা যেন নতুন করে জেগে উঠেছেন। এখন আর তাদের বন্যায় ধান ডুবে যাওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তা করতে হবে না। পড়তে হবে না আর্থিক ক্ষতিতে। অতীতের সব ক্ষতি এখন পুষিয়ে নেওয়ার পালা।

ছাতিয়ানতলা গ্রামের কৃষক আব্দুল আজিজ বলেন, এবার দুই বিঘা জমিতে বিনা ধান-১১ চাষ করেছি। আমার জমির আশপাশের সবার চেয়ে আগে ধান ঘরে তুলতে পেরেছি। আমার ধান কাটা হয়ে গেছে কিন্তু পাশের জমির ধানে এখনো শীষ আসেনি। আমরা সবাই অবাক হয়ে গেছি এত ভালো জাতের ধান দেখে।

তিনি জানান, বিনার কর্মকর্তারা এ এলাকার কয়েকজন কৃষককে বিনা ধান-১১ চাষ করার পরামর্শ দেন। যারা এ ধান আবাদ করেছেন তারা সবাই লাভবান হয়েছেন। তাদের দেখে এবার অনেকেই এ ধান চাষে আগ্রহ দেখাচ্ছেন। বন্যাপ্রবণ এমন এলাকায় এ যেন সোনা পাওয়ার মতো বিষয়। এখন সরিষা রোপণ করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন তিনি। এরপর বোরো ধান চাষ করবেন।

পাশ থেকে ওই গ্রামের সাঈদ নামে এক কৃষক বলেন, প্রচলিত জাতের চেয়ে এ জাতের ধানের ফলন চার থেকে পাঁচ মণ বেশি পেয়েছি। খরচ কম অথচ ফলন বেশি। এমন জাত সত্যিই আমাদের ভাগ্য বদল করে দেবে। বিনাকে অনেক ধন্যবাদ তারা আমাদের কাছে এসে ধানের জাতটি আবাদ করার কৌশল হাতে কলমে শিখিয়েছেন। তারা না বললে হয়তো অতীতের মতো বছরের পর বছর ক্ষতিতেই পড়তে হতো আমাদের।

গত দুই বছর বিনা তাদের ধানের বীজ দিয়েছে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, বিনার প্রশিক্ষণ পাওয়া সব কৃষকেরা নিজেই বীজ উৎপাদন শিখেছে। এই ধান চাষ চরাঞ্চলের সব কৃষকদের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে পারলে এ অঞ্চলের মানুষের অভাব থাকবে না।

বিনার বিজ্ঞানীরা জানান, শুধু ময়মনসিংহ নয়, চলতি বছর উত্তরের জনপদ রংপুরের বিভিন্ন এলাকা, বরেন্দ্রভূমি, গোপালগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় কয়েক হাজার হেক্টর জমিতে জলমগ্নতাসহিষ্ণু, উচ্চফলনশীল ও আগাম আমন ধানের এ জাত চাষ হয়েছে।

কৃষি বিজ্ঞানীদের মতে, দেশে প্রতি বছর অতিবৃষ্টির কারণে জলাবদ্ধতা ও বন্যায় প্রায় ২০ লাখ হেক্টর জমির ধান কোনো না কোনোভাবে আংশিক বা সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাছাড়া জলোচ্ছ্বাস ও ঘূর্ণিঝড়ের কারণে আকস্মিক বন্যা, অতি বন্যা, জোয়ারের বন্যা, পাহাড়ি ঢলের বন্যার কারণে আবাদি জমি ক্রমাগত কমছে। এসব বিষয় মাথায় রেখে বিনার বিজ্ঞানীরা উদ্ভাবন করেছেন জলমগ্নতাসহিষ্ণু ধানের জাত বিনা-১১। আমনের এ জাত ২০-২৫ দিন জলমগ্নতা সহ্য করার পরও বন্যা আক্রান্ত জমিতে হেক্টরপ্রতি পাঁচ থেকে সাড়ে পাঁচ টন এবং বন্যামুক্ত স্বাভাবিক জমিতে ছয় থেকে সাড়ে ছয় টন পর্যন্ত ফলন দিতে সক্ষম।

বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বিনা) মহাপরিচালক ও বিনা ধান-১১ জাতটির উদ্ভাবক ড. মির্জা মোফাজ্জল ইসলাম বলেন, দেশের টেকসই খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বিনা ধান-১১ বিশেষ ভূমিকা রাখছে এবং ভবিষ্যতে আরও ব্যাপক ভূমিকা রাখবে। স্থানীয় জাতের চেয়ে বিনা-১১ চাষে সার, পানিসহ বিভিন্ন খরচ ৫০ শতাংশ কম লাগে।

এ কৃষি বিজ্ঞানী বলেন, এ জাতটি আবাদে অনেক বড় সাড়া পাওয়া গেছে। কোথাও কোথাও বিঘাপ্রতি ২৭ মণ ধান উৎপাদন হয়েছে। এ ধানের সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য হলো পানির নিচে ২৫ দিন থাকলে, এমনকি পানিতে তলিয়ে পচে গেলেও শুকানোর পর ধানের গোড়া থেকে ফের ডগা বা পাতা গজায়। অর্থাৎ নতুন করে ধান রোপণ করতে হয় না।

তিনি জানান, দেশে প্রায় ৫২ লাখ হেক্টর জমিতে আমন ধান চাষ হয়েছে। এর মধ্যে বিনা-১১ জাতটি চাষ হয়েছে ছয়-সাত শতাংশ জমিতে। স্বল্প জীবনকাল বিশিষ্ট এসব জাত চাষ করে কৃষক দুই ফসলি জমিকে তিন-চার ফসলি জমিতে রূপান্তর করেছেন।

বিনা সূত্র জানায়, মধ্য আশ্বিন মাস থেকে এই ধান কাটা হয়। ফলে এ সময় ধানের খড় থেকে গো-খাদ্যের চাহিদা মেটে। কৃষক খড় বিক্রি করেও বাড়তি আয় করতে পারছেন। বিনা-১১ কৃষকের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে বর্তমানে সারা দেশে এক হাজারেরও বেশি মাঠ প্রদর্শনী করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (সম্প্রসারণ) মো. হাসানুজ্জামান কল্লোল বলেন, আমাদের দেশে কৃষিতে সবচেয়ে বড় সমস্যা বন্যা ও ঝড়-বৃষ্টি। এ প্রতিকূলতাকে জয় করতে বিনা ধান-১১ অগ্রণী ভূমিকা রাখছে। কৃষকদের মাঝ থেকেও ভালো সাড়া পাওয়া যাচ্ছে। যা খুবই ইতিবাচক। বন্যা সহনশীল এ ধানটির চাষ চরাঞ্চলসহ বন্যাকবলিত এলাকার কৃষকদের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে হবে।

বাংলার উন্নয়ন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • শিল্পনীতির সুষ্ঠু বাস্তবায়নে আইনি ভিত্তি জরুরি

  • ৯০ বছর বয়সে বিয়ে করলেন কুমিল্লা আইনজীবী সমিতির সভাপতি

  • ডিএমপির ১১ কর্মকর্তাকে বদলি

  • সবাইকে নিয়ে কাজ করবো, নারায়ণগঞ্জের নতুন ডিসি

  • রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ খুলনা জেলা পুলিশ

  • চলতি অধিবেশনেই ইসি আইন পাসের চেষ্টা: কাদের

  • জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল আইনের খসড়া অনুমোদন

  • টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছে ৭৭ লাখ শিক্ষার্থী

  • ‘মার্কিন নিষেধাজ্ঞায় পড়া কর্মকর্তারা দক্ষ ও দেশপ্রেমিক’

  • নির্বাচন কমিশন আইনের খসড়া অনুমোদন

  • নারায়ণগঞ্জে নেতিবাচক রাজনীতির ভরাডুবি: ওবায়দুল কাদের

  • ফায়ার সার্ভিসের ১৩ কর্মকর্তার পদোন্নতি

  • ডিসি সম্মেলন শুরু মঙ্গলবার

  • নারায়ণগঞ্জ ইসির সর্বোত্তম নির্বাচন : ইসি মাহবুব

  • ১৯৭৭ সালের সেনা হত্যাকাণ্ড গুরুত্ব দিয়ে দেখবে সরকার

  • ৫০ বছরের বেশি বয়সীরা বুস্টার ডোজ পাবেন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

  • রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর সংসদে ধন্যবাদ প্রস্তাব

  • ইসি গঠনে রাষ্ট্রপতির কাছে চার প্রস্তাব আওয়ামী লীগের

  • চরাঞ্চলগুলোতে চলছে কৃষকের কর্মযজ্ঞ

  • ১ বছরে ৩৩ বাংলাদেশি নারীকে উদ্ধার করেছে বিএসএফ

  • পর্যটনের নতুন সম্ভাবনা বান্দরবানের তমা তুঙ্গী

  • সম্পদ পুনর্মূল্যায়নের নির্দেশ পেট্রোবাংলাকে

  • বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে গেমিং অ্যাপ ‘আমার বঙ্গবন্ধু’

  • ৫০ বছর বয়সীরাও পাবেন বুস্টার ডোজ

  • বাঙালির অস্তিত্বে বারবার ফিরে আসবে শেখ মুজিব

  • বাঙালির অস্তিত্বে বারবার ফিরে আসবে শেখ মুজিব

  • নিজস্ব ভবনে যাত্রা শুরু আরএমপির সাইবার ক্রাইম ইউনিট

  • নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের নতুন কাউন্সিলর যারা

  • চাঁদপুরে শতাধিক শীতার্তদের পাশে পুনাক

  • খেলাধুলাই পারে যুবসমাজকে মাদক থেকে দূরে রাখতে : মেয়র আতিকুল

  • নগরীতে অত্যাধুনিক দৃষ্টিনন্দন আন্ডারপাস

  • নতুন ১৫৫টি আইএসপি লাইসেন্স দিচ্ছে সরকার

  • রাঙামাটির স্বপ্নের নানিয়ারচর সেতুর যাত্রা শুরু

  • যাত্রীদের নিরাপত্তা ও সড়কে অপরাধ প্রতিরোধে বসছে সিসি ক্যামেরা

  • আপাতত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সীমিত পরিসরে ক্লাস চলবে: শিক্ষামন্ত্রী

  • আইডি বা রেজিস্ট্রেশন কার্ড দেখালেই টিকা পাবে শিক্ষার্থীরা

  • ১৫ জানুয়ারির পর টিকা ছাড়া ক্লাসে যেতে পারবে না শিক্ষার্থীরা

  • ৫৬ কোটি টাকার ‘বঙ্গা’ তৈরি হচ্ছে নওগাঁয়

  • পাসপোর্ট-ভিসার পরিবর্তে স্বল্পমেয়াদি অনুমতিপত্র ‘চালুর পরিকল্পনা’

  • ৬ মাসে হিলি বন্দরে ১৮৯ কোটি টাকার রাজস্ব আদায়

  • এক টানেই জালে ৩০০ মণ মাছ

  • বাস, ট্রেন ও লঞ্চে অর্ধেক যাত্রী নিতে হবে

  • মা হচ্ছেন পরীমণি, বাবা চিত্রনায়ক রাজ

  • ভিক্ষুক পুনর্বাসনে বরাদ্দ পাঁচ গুণ করা হচ্ছে

  • বড়শিতে ধরা পড়ল বিশাল ব্ল্যাক কার্প

  • এক যুগে কৃষি উদ্ভাবনে ঈর্ষণীয় সাফল্য

  • বাংলাদেশ থেকে দ্বিগুণ ইন্টারনেট ব্যান্ডউইডথ নেবে ভারত

  • সরিষায় সফলতা, চাষাবাদ বাড়ায় কমবে আমদানিনির্ভরতা

  • পাবনায় সরিষা ফুলের মধু থেকে আয় হবে ১০ কোটি

  • ঢাকায় হবে আন্তর্জাতিক মানের হেলিপোর্ট

  • এই বিমানেই দেশে ফিরেছিলেন বঙ্গবন্ধু

  • পাহাড়ে নবদিগন্তের সূচনা, স্বপ্ন বুনছেন রাঙামাটিবাসী

  • নারায়ণগঞ্জ আইভীরই

  • সংবিধান অনুযায়ী আইন প্রণয়ন ও ইসি গঠনের প্রস্তাব জেপির

  • পার্বত্য শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নের কাজ চলছে: প্রধানমন্ত্রী

  • বিচ্ছেদ আবেদনের মধুর সমাপ্তি, রায়ে কাঁদলেন হাজারো মানুষ

  • কাঠের জিপ তৈরি করে ২ ভাইয়ের চমক, চলবে সৌরবিদ্যুতে

  • মেট্রোরেলের নিরাপত্তায় হচ্ছে এমআরটি পুলিশ ইউনিট

  • পাল্টে যাচ্ছে দক্ষিণাঞ্চলের স্বাস্থ্যসেবার চিত্র

  • মাঘের শীতেই লালচে-কমলা আভা ছড়াচ্ছে বসন্তের পলাশ