রোববার   ১৯ মে ২০২৪

সর্বশেষ:
জাইকার উপদেষ্টা কমিটির সঙ্গে স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর বৈঠক ‘অজান্তে মোবাইল ব্যালেন্স কেটে নিলে কঠোর ব্যবস্থা’ আওয়ামী লীগের যৌথ সভা শুক্রবার বিএনপির নির্বাচন বর্জনের রাজনীতি আত্মহননমূলক : পররাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকা পৌঁছেছেন ভারতের পররাষ্ট্র সচিব গণমাধ্যমের তথ্য প্রাপ্তির অধিকার নিশ্চিত করা হবে: প্রতিমন্ত্রী নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি ছিল সন্তোষজনক : ওবায়দুল কাদের রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে যুক্তরাজ্যের সহায়তা চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী
১০৮

বছর শেষে আসছে রূপপুরের বিদ্যুৎ

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০ মে ২০২৪  

দেশের সবচেয়ে বড় ও ব্যয়বহুল প্রকল্প রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের নির্মাণ কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। আশা করা হচ্ছে বিদ্যুৎ সঞ্চালনের লাইন নির্ধারিত সময়ের মধ্যে শেষ করা গেলে চলতি ২০২৪ সালের ডিসেম্বরে কেন্দ্রটির প্রথম ইউনিট পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা হবে। আর প্রথম ইউনিট থেকে বাণিজ্যিকভাবে বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু হবে ২০২৫ সালে। সব ঠিক থাকলে বাণিজ্যিকভাবে দ্বিতীয় ইউনিট উৎপাদনে যাবে ২০২৬ সালে।

প্রকল্প-সংশ্লিষ্টরা এসব তথ্য দিয়ে জানান, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রথম ইউনিট থেকে বাণিজ্যিকভাবে বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য প্রস্তুতিমূলক সব কাজ এখন চূড়ান্ত ধাপে এগিয়ে চলছে। রাশিয়ার অর্থায়নে এই বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের কাজ তত্ত্বাবধান করছে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়।

এই মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান বলেন, আমরা এখন বিশ্বের ৩৩তম পারমাণবিক শক্তিধর দেশ। রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের একটি ইউনিট ২০২৪ সালে আর অপরটি ২০২৬ সালে উৎপাদনে আসবে। গত বছর অক্টোবরে বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির জ্বালানি হিসেবে ইউরেনিয়াম বুঝে পেয়েছে বাংলাদেশ। প্রকল্প চালুর পর পাঁচ থেকে ছয় বছর বাংলাদেশের বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে নিয়ে রাশিয়ার বিশেষজ্ঞরা কেন্দ্রটি পরিচালনা করবেন। পরে বাংলাদেশের বিশেষজ্ঞরা বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি পরিচালনার দায়িত্ব বুঝে নেবেন।

প্রকল্পের সঞ্চালন লাইনের দায়িত্বে থাকা পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ লি. (পিজিসিবি) কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, কেন্দ্রটির উৎপাদিত বিদ্যুতের সঞ্চালন লাইন নিয়ে যে শঙ্কা ছিল সেটিও কেটে যাচ্ছে। এই সঞ্চালন লাইনের স্থলভাগের প্রায় ৯৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। তবে সঞ্চালন লাইনের নদী পারাপারের কাজ এগিয়েছে মাত্র ২৬ শতাংশ। বাকি আছে নদীর ওপর টাওয়ার স্থাপনের কাজ। ডিসেম্বরের আগেই নদী পারাপারের কাজ শেষ করার জন্য এখন পুরোদমে চেষ্টা চলছে। এরই মধ্যে রূপপুর থেকে বগুড়া পর্যন্ত উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন গ্রিড লাইন পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা হয়েছে। এই লাইনে পিজিসিবি সফলভাবে বিদ্যুৎ সঞ্চালন করেছে। এর আগে রূপপুর-বাঘাবাড়ি লাইনের পরীক্ষামূলক বিদ্যুৎ সঞ্চালন করা হয়।

রূপপুর প্রকল্পের পরিচালক ড. মো. জাহেদুল হাছান বলেন, আশা করছি, বছরের শেষ দিকে আমরা কেন্দ্রের ফুয়েল লোডিং শুরু করব। আর এর মধ্য দিয়েই রূপপুর প্রকল্পের মূল কার্যক্রম শুরু হবে। ফুয়েল লোডিং শেষে পরবর্তীতে পাওয়ার স্টার্ট আপসহ বেশ কিছু ধাপ আছে। এর মধ্যে সঞ্চালন লাইনের নির্মাণ শেষ হলে জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হবে। 

পিজিসিবি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সঞ্চালন লাইন তৈরির কাজ সাতটি প্যাকেজে চলছে। এর মধ্যে রূপপুর থেকে বাঘাবাড়ি পর্যন্ত ৬৫ দশমিক ৩১ কিমি. ডাবল সার্কিট সঞ্চালন লাইন নির্মাণকাজের অগ্রগতি শতভাগ। আমিনবাজার থেকে কালিয়াকৈর পর্যন্ত ৫১ কিমি. নির্মাণকাজের অগ্রগতি ৯০ শতাংশের বেশি। রূপপুর থেকে ঢাকা (আমিনবাজার-কালিয়াকৈর) ১৪৭ কিমি. নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে প্রায় ৮০ শতাংশ। এ ছাড়া গোপালগঞ্জ পর্যন্ত ১৪৪ কিমি.-এর অগ্রগতি ৭০ শতাংশের মতো। ধামরাই পর্যন্ত ১৪৫ কিমি.-এর অগ্রগতি ৬০ শতাংশের কিছু বেশি। বগুড়া পর্যন্ত ১০২ কিমি.-এর অগ্রগতি ৬০ শতাংশের মতো এবং ৯টি বে-এক্সটেনশন নির্মাণকাজের অগ্রগতি ৩০ শতাংশের ওপর। সব মিলিয়ে স্থলভাগের প্রায় ৯৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। তবে স্থলভাগের সঞ্চালন লাইনের কাজ শেষ হলেও রিভার ক্রসিংয়ের কাজের অগ্রগতি অনেকটা পিছিয়ে আছে। এ প্যাকেজে যমুনা ও পদ্মা নদীতে ৪০০ ও ২৩০ কেভির ১৬ কিমি. সঞ্চালন লাইন নির্মাণ করা হবে। এর মধ্যে যমুনা নদীর ওপর সাত কিমি. লাইন নির্মাণ করা হবে। আর পদ্মা নদীতে হবে দুই কিমি. লাইন। প্রথম ইউনিটের জন্য পদ্মা নদীতে রিভার ক্রসিংয়ের কাজ শেষ হয়েছে ২৬ শতাংশ।

সম্প্রতি পিজিসিবির ব্যবস্থাপনার পরিচালক এ কে এম গাউছ মহীউদ্দিন বলেন, রূপপুরের সঞ্চালন লাইনের নির্মাণকাজ সময়মতো শেষ করার জন্য প্রতিদিন কেন্দ্রটির কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করছি। রূপপুর কর্তৃপক্ষের টার্গেট চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে প্রথম ইউনিট উৎপাদনে নিয়ে যাওয়ার। আমরা আশা করছি এ সময়ের মধ্যে আমরাও লক্ষ্য পূরণ করতে পারব।

আমাদের মোট চারটি টাওয়ার। বর্তমানে দুটি টাওয়ারে কাজ চলছে। নদীর মধ্যে যে দুটি টাওয়ার, তার হ্যামার এরই মধ্যে চলে এসেছে। আর দ্বিতীয় ইউনিটের জন্য আমাদের যমুনা রিভার ক্রসিং হবে। সেখানে আমাদের কাজ চলছে। এর মধ্যে প্রথম ইউনিটের সঞ্চালন লাইনের কাজের অগ্রগতি ২৬ শতাংশ আর দ্বিতীয় ইউনিটের কাজের অগ্রগতি ২২ শতাংশ। তিনি আরও বলেন, সঞ্চালন লাইন নির্মাণ করা বিশাল চ্যালেঞ্জের কাজ। এই কাজ করতে গিয়ে অনেকে মামলা করে। তখন কাজ বাধাগ্রস্ত হয়। প্রতিদিনই এই কাজে আমাদের বিভিন্ন বাধার সম্মুখীন হতে হয়।

জানা যায়, প্রথম ইউনিটের বিদ্যুৎ সঞ্চালনের জন্য তিনটি লাইন লাগবে। প্রথমটি হচ্ছে ২৩০ কেভি বাঘাবাড়ি থেকে রূপপুর। এটি ২০২২ সালে শেষ হয়েছে। এরপর রূপপুর থেকে বগুড়া ২০০ কেভি সঞ্চালন লাইন নির্মাণ শেষ। আর গোপালগঞ্জ থেকে রূপপুরের সিঙ্গেল সার্কিট সঞ্চালন লাইন নির্মাণের কাজ বাকি আছে। এটি ১০৫ কিমি.। ওভারল্যান্ডের কাজ বেশির ভাগই শেষ। এখন তিনটি টাওয়ারের কাজ চলমান আছে। আগামী দু-তিন মাসের মধ্যে ওভারল্যান্ড অংশের কাজ শেষ হয়ে যাবে। তখন বাকি থাকবে রিভার ক্রসিংয়ের কাজ।

আরও পড়ুন
জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • জিয়াউর রহমান বাকশালের সদস্য হয়েছিলেন, দাবি ওবায়দুল কাদেরের

  • মূল্যস্ফীতি হ্রাসই লক্ষ্য

  • আম নিতে চায় রাশিয়া-চীন

  • ফের দুই দিনের হিট অ্যালার্ট জারি

  • উন্নয়ন রূপকল্পের অন্যতম পথিকৃৎ শেখ হাসিনা : ধর্মমন্ত্রী

  • ধর্মান্ধরা সমাজকে পিছিয়ে নিয়ে যাচ্ছে: ভূমিমন্ত্রী

  • অন্য দেশের সঙ্গে প্রদর্শনী বাড়ালে সাংস্কৃতিক সম্পর্ক জোরদার হয়

  • রাজধানীতে ‘কক্সবাজার এক্সপ্রেসের’ বগি বিচ্ছিন্ন

  • নির্বাচনের জন্য ট্যুরিস্ট ভিসাতে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দিলো ভারত

  • ৩০ ব্যাংকের এমডি যাচ্ছেন যুক্তরাষ্ট্রে

  • নোংরা পরিবেশে তৈরি হচ্ছিলো রাফসানের ব্লু ড্রিংকস

  • জার্মানিতে আবাসিক ভবনে বিস্ফোরণ, নিহত ৩

  • খারকিভে ‘কঠিন লড়াই’ চলছে: জেলেনস্কি

  • সব ধরনের জঙ্গি-সন্ত্রাসবাদ পুলিশের নিয়ন্ত্রণে: আইজিপি

  • জনগণের উন্নয়ন, মির্জা ফখরুলসহ বিএনপির সহ্য হচ্ছে না: আইনমন্ত্রী

  • রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মূর্তিমান আতঙ্ক সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আরসা: র‌্যাব

  • বাংলাদেশের গ্রামের অর্থনীতি পাল্টে গেছে : প্রধানমন্ত্রী

  • ৬ তারিখে বাজেট দেব, বাস্তবায়নও করব : প্রধানমন্ত্রী

  • চৌদ্দগ্রামে যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ৫ জনের মৃত্যু

  • দেশকে এগিয়ে নিতে অর্থনীতিবিদদের সহযোগিতা চান প্রধানমন্ত্রী

  • ১৭ মে বাংলাদেশের মানুষের হৃদয়ে গাঁথা থাকবে : আইনমন্ত্রী

  • শেখ হাসিনা গণতন্ত্রকামী মানুষের নেতা : খাদ্যমন্ত্রী

  • টানা ৫ দিন বেনাপোল দিয়ে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ

  • দুধ দিয়ে গোসল করানো হলো নাবিক সাব্বিরকে

  • রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মূর্তিমান আতঙ্ক সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আরসা : র‌্যাব

  • শনিবার থেকে বৃষ্টি হতে পারে

  • শেখ হাসিনাকে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন

  • ইসরায়েলি হামলায় এখন পর্যন্ত ৩৫ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি নিহত

  • বেদনানাশক নিয়ে খেলবেন তাসকিন

  • শাহরুখ-অমিতাভদের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন খারিজ

  • লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি বোরো উৎপাদন

  • অতীত ভুলে সামনে তাকাতে চায় যুক্তরাষ্ট্র

  • এসএসসিতে গড় পাসের হার ৮৩.০৪ শতাংশ

  • ফেল করেছে বলে গালমন্দ করবেন না : অভিভাবকদের প্রধানমন্ত্রী

  • অবৈধ অভিবাসী প্রত্যাবাসনে বাংলাদেশকে ‘নিরাপদ’ ঘোষণা ইতালির

  • ‘স্বচ্ছতা নিশ্চিতে ইলেকট্রনিক সরকারি ক্রয় চালু’

  • কূটনৈতিক মিশন খুলতে সম্মত বাংলাদেশ-আয়ারল্যান্ড

  • ঘরে বসেই হজযাত্রীরা পাবে প্রাক-নিবন্ধন রিফান্ডের টাকা

  • ডাবের পানির বিকল্প হিসেবে যে পানীয় পান করতে পারেন

  • জিপিএ-৫ ও পাসের হারে এগিয়ে মেয়েরা

  • ডেঙ্গু ঠেকাতে এবার মাস্টারপ্ল্যান

  • সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনীর আওতা বাড়ছে বাজেটে

  • কিশোর গ্যাংয়ে জড়ানোর কারণ খুঁজতে হবে : শেখ হাসিনা

  • জুন-জুলাইয়ে হতে পারে প্রধানমন্ত্রীর তিন গুরুত্বপূর্ণ সফর

  • ‘ধানের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করতে কৃষক অ্যাপ চালু করা হয়েছে’

  • নিউ ইয়র্ক বাংলা বইমেলায় দশ হাজার নতুন বই

  • ‘মা দিবসে মাকে দেওয়া আমার শ্রেষ্ঠ উপহার জিপিএ-৫’

  • পায়রা বন্দরে প্রথমবারের মতো ভিড়লো বিদেশি জাহাজ

  • ম্যাংগো স্পেশাল ট্রেন এবার চলবে পদ্মা সেতু দিয়ে

  • ‘ডোনাল্ড লু সম্পর্ক এগিয়ে নিতে বাংলাদেশ সফরে আসছেন’

  • বিশ্বাসের ঘাটতি হটিয়ে সম্পর্ক দৃঢ় করতে চায় যুক্তরাষ্ট্র

  • ইলিশের মণ লাখ টাকা

  • নভেম্বর-ডিসেম্বরে ওয়েস্ট ইন্ডিজে সফরে যাবে বাংলাদেশ

  • কোরবানির চামড়ার ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করবে সরকার

  • ‘বিএনপি যে কখন তাবিজ-দোয়ার ওপর ভর করে সেটিই প্রশ্ন’

  • ‘জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় বাংলাদেশের পাশে থাকবে যুক্তরাষ্ট্র’

  • ১৭ মে : জননেত্রীর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন এবং দেশের অগ্রযাত্রা

  • এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের ভাতা বাড়ানোর প্রক্রিয়া শুরু

  • ‘বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক আরও ঘনিষ্ঠ করতে চায় যুক্তরাষ্ট্র’

  • ‘নারীবান্ধব শিক্ষানীতির কারণে মেয়েরা পাসের হারে এগিয়ে’