সোমবার   ২১ অক্টোবর ২০১৯

ব্রেকিং:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ খালেদার অনুপস্থিতিতেই কারাগারে বিচার চলবে রব ও মান্নার বিয়ে যুক্তফ্রন্টে, পরকীয়া ঐক্যফ্রন্টে: মাহী এটা জোট নয়, ঘোট : তথ্যমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় পেলেন সিনহা আবারও সরকার গঠনে নৌকায় ভোট দেয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর পদ্মা সেতু প্রকল্পের নামফলক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী
৮৫

প্রেরণা যোগায় শহীদ জননীর শেষ কথা

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ২৭ জুন ২০১৯  

শয্যাপাশে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছে যমদূত। খানিক বাদেই হয়তো নিভে যাবে শহীদ জননীর স্বপ্নভরা দু’নয়ন। তবুও এতটুকু ভাবনা নেই নিজেকে নিয়ে। ভুলে যাননি আন্দোলনকে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এক হাসপাতালে মৃত্যুর আগেও আন্দোলনের কর্মীদের উদ্দেশ্যে কাঁপা কাঁপা অক্ষরে লিখে গেলেন তার শেষ বার্তা। হৃদয়ের জোরে লিখে গেলেন চরম সত্যটি। যা আজও আমাদের প্রেরণা যোগায়। আজ ২৫ বছরে এসে যার স্বাদ ভোগ করছি আমরা।

তার ২৫ তম মৃত্যুবার্ষিকীতে বার বার মনে পড়ছে সেই মর্মবাণী। শেষ বাক্যে তিনি লিখেছিলেন, ‘জয় আমাদের হবেই’।

প্রিয় জননীর ইচ্ছামত ঠিকই আমাদের জয় হয়েছে। বাংলার মাটিতে যুদ্ধাপরাধের বিচার হয়েছে। স্বর্গে বসে হয়তো তৃপ্তির ঢেকুর তুলছেন তিনি।

জাতির জন্য রেখে যাওয়া শহীদ জননীর উপহার সেই ঐতিহাসিক আন্দোলনের দুই দশকেরও বেশি সময় পর যখন যুদ্ধাপরাধীদের বিচার এবং একের পর এক যুদ্ধাপরাধীর সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত হচ্ছে তখন কোথায় যেন শূন্যতা অনুভ‚ত হয়। পেছনে ফিরে পাই না নতুন প্রজন্মের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধের শহীদ এবং মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য প্রবল ভালোবাসা আর শ্রদ্ধার জাগরণ সৃষ্টিকারী জননীকে। নতুন দিনের নতুন প্রজন্ম আজ যুদ্ধপরাধীদের বিচার চান মনেপ্রাণে। তাদের প্রত্যেকের হৃদয়ের মধ্যমণি জাহানারা ইমাম। হৃদয় নিংড়ানো ভালোবাসা থেকে গবেষক ও লেখক তাহমীদা সাঈদা জননীকে নিয়ে লিখেছেন ‘শহীদ জননী জাহানারা ইমাম’ শীর্ষক গ্রন্থ। শোক চাপা দিয়ে জাহানারা ইমাম মেলে ধরেছেন উত্তাল দিনগুলোর মর্মকথা। তাতে ব্যক্তিগত শোকস্মৃতি রয়েছে, তা যেন যুদ্ধকালীন সময়ে প্রতিটি মায়েরই আত্মকথা। ফলে একাত্তরের দিনলিপি সব মানুষেরই জীবনজয়ী অনুপ্রেরণার উৎস।

সংগঠক হিসেবেই বেশি আলোচিত জাহানারা ইমাম, সেটাই তার জীবনের শ্রেষ্ঠ অবদান, পাশাপাশি লেখক হিসেবেও তিনি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। শিশু-কিশোরদের জন্য অতুলনীয় বহু গ্রন্থের প্রণেতা তিনি। শিশু-কিশোরদের জন্য তিনি যেমন অনেক মৌলিক রচনা লিখেছেন, তেমনই অনুবাদ করেছেন প্রচুর। মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে তার লেখা তো ঐতিহাসিক দলিল। তার স্মৃতিচারণমূলক রচনাগুলো অত্যন্ত উঁচুমানের।

রচনা করে গেছেন, ‘ক্যান্সারের সঙ্গে বসবাস’, ‘প্রবাসের দিনলিপি’, ‘বুকের ভিতর আগুন’সহ অসংখ্য প্রবন্ধ-নিবন্ধ। সংগঠক জাহানারা ইমাম সারা দেশে যে জাগরণ সৃষ্টি করেছিলেন, একাত্তরের ঘাতক-দালালদের যুদ্ধাপরাধী হিসেবে বিচারের দাবিতে তিনি যে জোয়ার তুলেছিলেন, এক কথায় তা ছিল ঐতিহাসিক। ১৯৯১ সালের ২৯ ডিসেম্বর যুদ্ধাপরাধী গোলাম আযমকে আমীর ঘোষণা করে যুদ্ধাপরাধী সংগঠন জামায়াতে ইসলামী। শহীদ জননীর বুকের ভেতর দাউদাউ করে জ্বলে ওঠে প্রতিবাদের আগুন। ছেলেহারা মায়ের মুখে জেগে ওঠে প্রতিবাদের ভাষা। প্রতিবাদ জানাতে তিনি নেমে আসেন রাজপথে। তার সঙ্গে প্রতিবাদে নামে অসংখ্য দেশপ্রেমিক সাধারণ মানুষ। তারপর সারা দেশেই শুরু হয় জনবিক্ষোভ। বিক্ষোভ ক্রমেই বাড়তে থাকে, ছড়িয়ে পড়তে থাকে সারা দেশে। এ সময় ১৯৯২ সালের ১৯ জানুয়ারি গঠিত হয় একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি। জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে গঠন করা হয় ১০১ সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি।

তার নেতৃত্বে ১২ জন বিচারকের সমন্বয়ে গঠিত গণ-আদালত ১০টি অপরাধে গোলাম আযমকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়। গণ-আদালতের সেই রায় কার্যকর করার দাবি নিয়ে তিনি নিজেই ছুটে যান সংসদে। স্মারকলিপি নিয়ে যান তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ও বিরোধী দলের নেতা শেখ হাসিনার কাছে। ১০০ সংসদ সদস্য জনতার এ রায় সমর্থন করেন। সংসদে একটি চুক্তিও স্বাক্ষর করতে বাধ্য হয় তৎকালীন সরকার। কিন্তু ওই পর্যন্তই। তবে থেমে যাননি জাহানারা ইমাম। পরের বছরের ২৬ মার্চ গঠন করেন গণতদন্ত কমিশন। ঘোষিত হয় আরও আট যুদ্ধাপরাধীর নাম।

এরপর পার হয়েছে অনেক বছর। অনেক জল গড়িয়েছে পদ্মা-মেঘনা-যমুনা-তিতাসে। অনেক আশা-হতাশার মধ্য দিয়ে পার হচ্ছে একেকটি দিন। যুদ্ধাপরাধীরাও সংসদে তাণ্ডব নৃত্য দেখিয়েছে। ক্ষমতার মসনদে বসে মেতেছে নগ্ন উল্লাসে। সবকিছু পেছনে ফেলে সামনে এসেছে শহীদ জননীর শেষ বাক্য- ‘জয় আমাদের হবেই’।

মতামত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • ২৮৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ঝুঁকিপূর্ণ শিশুশ্রম নিরসন প্রকল্প গ্রহণ 

  • ‘চরের মানুষ পাকা রাস্তা,পড়ালেখার জন্য স্কুল-মাদ্রাসা পেয়েছে’

  • ‘সাড়ে ২২ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে’

  • দেশকে শীর্ষ পঞ্চাশে নেওয়ার লক্ষ্য জয়ের

  • অনলাইনে সরকারি সেবা দিতে ‘একপে’, ‘একসেবা’ ও ‘একশপ’-এর যাত্রা শুরু

  • আপনার সন্তান খায় না, তাহলে এভাবে দিন

  • বিরতিহীন দীর্ঘতম বিমান যাত্রায় ফ্লাইট সিডনিতে পৌঁছেছে

  • ‘গণতন্ত্রকে খুন করেছে মমতা’

  • কনের আত্মীয়রা মল মূত্র খাওয়ালো বরের পিতাকে

  • আটক ইসরাইলি সেনাদের বিষয়ে হামাসের ভিডিও বার্তা

  • কুর্দি এলাকায় সিরীয় সেনা মানে যুদ্ধ: তুরস্ক

  • এক অন্য রকম শিক্ষকের গল্প

  • নেতার অভাবেই ক্ষমতায় মোদি: অভিজিৎ

  • বড় সিরীয় ঘাঁটি ছাড়ল যুক্তরাষ্ট্র

  • ভারতের হামলায় পাকিস্তানের ১০ সেনা নিহত

  • বিশ্বে প্রথমবার ড্রোনে পণ্য ডেলিভারি

  • কানাডার জাতীয় নির্বাচন আজ

  • কাশ্মীর নিয়ে কথা বলায় তুরস্ক সফর বাতিল মোদির

  • সিংড়ায় বোনকে তালাক দেয়ায় দুলাভাইকে পিটিয়ে জখম

  • হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে ফের চালু হচ্ছে ‘বঙ্গবন্ধু চেয়ার’

  • আল-আকসায় ফের শত শত কট্টরপন্থী ইহুদির অনুপ্রবেশ

  • মেহেরপুরে যৌন উত্তেজক সিরাপ তৈরির কারখানার সন্ধান

  • লক্ষ্মীপুরে ছাত্রলীগ নেতার ওপর হামলা

  • টিউবওয়েলে দেশলাই ধরলেই আগুন!

  • সেই কলেজছাত্রীকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে হত্যার অভিযোগ

  • যুবরাজ শয়তানের ঘনিষ্ঠ: সৌদির শীর্ষ আলেম

  • প্রবাসী স্বামীর প্রতি গৃহবধূর ভালোবাসার অনন্য দৃষ্টান্ত

  • মালদ্বীপের জালে বাংলাদেশের ৬ গোল

  • উত্ত্যক্তের কারণে ছাত্রীর কলেজ যেতে ভয়

  • ডিএনসিসির কাউন্সিলর রাজীবকে ১৪ দিনের রিমান্ড

  • আজ ‘কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস’ ও ১৩টি সেতু উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

  • ১৪ হাজার মুক্তিযোদ্ধাকে পাকা বাড়ি দেওয়া হবে: মোজাম্মেল হক

  • মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় দেশসেরা রংপুরের রাগীব নূর

  • পাতাল মেট্রোরেলে বদলে যাবে ঢাকা শহর

  • বাংলাদেশের প্রথম তৃতীয় লিঙ্গের ভাইস চেয়ারম্যান পিংকী

  • ২০১৯ সালে বিশ্বে তৃতীয় সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি বাংলাদেশে: আইএমএফ

  • বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ১৫৭ পরিবার পেল অর্থ সহায়তা ও বীজ

  • অর্থনীতিকে এগিয়ে নেবে উদ্ভাবনী প্রযুক্তি: মোমেন

  • পর্যটন শিল্প বিকাশে অবদান রাখবে পটিয়া বাইপাস সড়ক

  • ভুলতা উড়ালসড়কের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

  • আগামী প্রজন্মকে পরিচ্ছন্ন হয়ে ওঠার আহ্বান স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর

  • দ্রুত এগুচ্ছে ৬ লেনের মাতামুহুরী সেতুর নির্মাণকাজ

  • ‘সবচেয়ে সুবিধাজনক অবস্থায় বাংলাদেশের অর্থনীতি’

  • প্রকাশ পেল ‌‌‘আহাদ ফাহিম’ এর গান ‘আমি মিথ্যে বলিনি’ এর ভিডিও

  • সরকারি উদ্যোগে সব উপজেলায় গঠন হচ্ছে কিশোর-কিশোরী ক্লাব

  • যানজট নিরসনে ঢাকায় আরও ২টি মেট্রোরেলের প্রকল্প অনুমোদন

  • মুসলিমবান্ধব পর্যটন বিকাশে বাংলাদেশ আদর্শ: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

  • আবরারকে পিটিয়ে হত্যার কারণ জানালেন ডিএমপি

  • নকল জুস তৈরির কারখানায় অভিযান, ৪০ হাজার টাকা জরিমানা 

  • মুন্সিগঞ্জের ১৩ সেতুর উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

  • প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশের ভাষা আমার নেই: আবরারের মা

  • শুধু উন্নয়ন নয়,দেশ এখন দুর্যোগ মোকাবেলাতেও রোল মডেল:প্রধানমন্ত্রী

  • সেনাপ্রধান কাতার যাচ্ছেন মঙ্গলবার

  • ‘‌আমাকে কবর থেকে বের করো, এখানে ভীষণ অন্ধকার’‌

  • এক বাঘিনীর জন্য দুই বাঘের তুমুল লড়াই

  • হাওরের ৩ উপজেলায় রেসিডিন্সিয়াল স্কুল-কলেজ হবে: রাষ্ট্রপতি

  • জেরুজালেমের গভর্নরকে তুলে নিয়ে গেল ইসরাইল

  • যুগোপযোগী সিলেবাস প্রণয়ন করা হবেঃ শিক্ষা উপমন্ত্রী

  • ‘সুন্দরবনকে অক্ষত রেখেই মোংলা ইকোনমিক জোনের কাজ শুরু হয়েছে’

  • এবার ভেঙে ফেলা হচ্ছে রাজমনি সিনেমা হল