রোববার   ১৯ মে ২০২৪

সর্বশেষ:
জাইকার উপদেষ্টা কমিটির সঙ্গে স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর বৈঠক ‘অজান্তে মোবাইল ব্যালেন্স কেটে নিলে কঠোর ব্যবস্থা’ আওয়ামী লীগের যৌথ সভা শুক্রবার বিএনপির নির্বাচন বর্জনের রাজনীতি আত্মহননমূলক : পররাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকা পৌঁছেছেন ভারতের পররাষ্ট্র সচিব গণমাধ্যমের তথ্য প্রাপ্তির অধিকার নিশ্চিত করা হবে: প্রতিমন্ত্রী নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি ছিল সন্তোষজনক : ওবায়দুল কাদের রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে যুক্তরাজ্যের সহায়তা চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী
৩৪৪

পাথর খনি ও সম্ভাবনার বাংলাদেশ

প্রকাশিত: ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪  

পৃথিবীতে কোনো জাতির উন্নতির নিজস্বতার দিকে যদি আমরা দৃষ্টিপাত করি তাহলে আমরা যেটা দেখতে পাবো সেটা হচ্ছে সে জাতির তার নিজস্ব প্রাকৃতিক সম্পদের প্রতি সচেতনতা ও যথাযথ ব্যবহার। কোনো জাতির জন্য যে কোনো প্রাকৃতিক সম্পদ প্রকৃতি কর্তৃক অমূল্য উপহার স্বরূপ। যার যথাযথ ব্যবহারের মাধ্যমে সে জাতি পরিণত হতে পারে বিশ্বের অন্যতম অর্থনৈতিক ও সমৃদ্ধ রাষ্ট্রে।

ঠিক তেমনি আমাদের অনেকগুলো প্রাকৃতিক সম্পদের মধ্যে অন্যতম ও গুরুত্বপূর্ণ একটি প্রাকৃতিক সম্পদ হচ্ছে পাথর খনি। এই গুরুত্বপূর্ণ প্রাকৃতিক সম্পদটি বাংলাদেশের দিনাজপুর জেলার মধ্যপাড়ায় অবস্থিত বাংলাদেশের একমাত্র ভূগর্ভস্থ গ্রানাইট পাথরের খনি। যা প্রাকৃতিক দিক দিয়ে বাংলাদেশের জন্য আশীর্বাদ স্বরুপ।

পাথর খনিটি মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেড (এমজিএমসিএল) হিসাবে ০৪ আগস্ট ১৯৯৮ তারিখ নিবন্ধিত হয়।  জুলাই ২০০১ সালের মধ্যে প্রকল্প সমাপ্তির সময় নির্ধারিত থাকলেও ২৫ মে ২০০৭ সালে খনিটি এমজিএমসিএল-এর নিকট হস্তান্তর করে।

পরবর্তীতে দেশের ক্রমবর্ধনশীল ভৌত অবকাঠামো নির্মাণে গ্রানাইট পাথর ব্যবহার বৃদ্ধি পাওয়ার প্রেক্ষিতে খনির উন্নয়ন ও উৎপাদন বৃদ্ধি করার লক্ষ্যে “Management of Operation and Development, Production, Maintenance and Provisioning Services of Maddhapara Hard Rock Mine” শীর্ষক চুক্তি স্বাক্ষরের প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। এরই ধারাবাহিকতায় মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেড এবং জার্মানিয়া-ট্রেষ্ট কনসোর্টিয়াম (জিটিসি) এর মধ্যে ২ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে ৬ বছর মেয়াদী বৈদেশিক ও স্থানীয় মুদ্রায় ১৭১.৮৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার (১,৪০০ কোটি টাকা প্রায়) মূল্যমানের একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের সঙ্গে জার্মানিয়া- ট্রেষ্ট কনসোর্টিয়ামের মধ্যে কার চুক্তিটি এখনো চলমান রয়েছে। এবং তারা এই খনির পাথর উত্তলন বৃদ্ধি জন্য ব্যাপক ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। 

বাংলাদেশে পরিমাণের দিক থেকে যত পণ্য আমদানি হয়, তার মধ্যে পাথর অন্যতম। অবকাঠামোর মান বাড়াতে ইটের খোয়ার পরিবর্তে পাথরের ব্যবহার বাড়তে থাকায় দেশে গত পাঁচ বছরে ধারাবাহিকভাবে এই পণ্যের চাহিদা বেড়েছে। বড় বড়  প্রকল্পে ব্যবহার হচ্ছে পাথর যার ফলে পাথরের চাহিদা প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। 

আমাদের দেশে প্রাকৃতিক ভারসাম্য নষ্টের জন্য ইটের ভাটা গুলো অনেকাংশেই দ্বায়ী। বাংলাদেশের সর্বত্র বিষাক্ত পোকার মত গজিয়ে উঠছে ইটের ভাটা নামক পরিবেশ ধ্বংসকারী যন্ত্র।

হাউস বিল্ডিং রিসার্চ ইন্সটিউটের কর্মকর্তারা বলছেন, ইটভাটা গুলোতে প্রতি বছর ২০ লাখ টন জ্বালানি কাঠ ও ২০ লাখ টন কয়লা পোড়ানো হয়। তাদের হিসেবে  বছরে গ্রিনহাউজ গ্যাস নিঃসরণ হয় প্রায় নব্বই লাখ টন। ইটভাটায় কৃষিজমির উপরিভাগের উর্বর জমি ব্যবহার করা হয়।  ফলে এসব ইটভাটার কারণে কৃষিজমি উর্বরতা হারাচ্ছে। আবার ইটভাটার ছাই ভস্ম ও ধোঁয়া আশেপাশের ফসল উৎপাদনের ক্ষতি করছে। 

তাই আমরা যদি ইটের পরিবর্তে পাথরের ব্যবহারের দিকে মনযোগ দেই তাহলে একদিকে যেমন প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষা হবে অপরদিকে নিজস্ব প্রাকৃতিক সম্পদেরও যথার্থ ব্যবহার নিশ্চিত হবে।

এই পাথর প্রক্রিয়াকরণের মাধ্যমে যে স্টোন ডাস্ট বের হয় সেই স্টোন ডাস্ট ও অনেক গুরুত্বপূর্ণ কারণ এই স্টোন ডাস্ট রাস্তার পিচ ঢালাই এর জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

গত ২০২০-২১ অর্থবছরে দেশে পাথর আমদানি হয়েছে ২ কোটি ৪৮ লাখ টন। প্রতি টন ৩ হাজার ৬০০ টাকা গড় দরে এই পাথরের স্থানীয় বাজারমূল্য দাঁড়ায় প্রায় ৯ হাজার কোটি টাকা।

গুণগত মানের দিক থেকে মধ্যপাড়া খনির পাথর বিদেশ থেকে আমদানি করা পাথরের তুলনায় উন্নত মানের। দামের দিক থেকেও মধ্যপাড়া গ্রানাইট পাথর (টনপ্রতি ৩৫ ডলার) ভারত থেকে আমদানি করা পাথরের ((টনপ্রতি ৪০ ডলার) তুলনায় সাশ্রয়ী। মধ্যপাড়া পাথরের টুকরোর সাইজ চাহিদা অনুযায়ী তৈরি করা সম্ভব।

দেশে বছরে ১ থেকে দেড় কোটি মেট্রিক টন পাথরের চাহিদা রয়েছে। এর অধিকাংশই আমদানি করে আনতে হচ্ছে। কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০২১-২০২২ অর্থবছরে ৯ লাখ ৬৩ হাজার টন পাথর তোলা হয়েছে। আর বিক্রি হয়েছে ১০ লাখ ৯৬ হাজার টন। এতে রাজস্ব আয় হয়েছে ২৫৩ কোটি ৭৩ লাখ টাকা। ওই অর্থবছরে কর পরবর্তী মুনাফা হয়েছে ১৮ কোটি ২৬ লাখ টাকা। এর আগের তিন অর্থবছরেও গড়ে বার্ষিক নয় লাখ টন করে পাথর উত্তোলন করা হয়েছিল।

এই গ্রানাইট পাথর খুবই উন্নত মানের যা প্রায় ২৫ হাজার পিএসআই চাপ ধারণ ক্ষমতার সক্ষমতা রয়েছে এ পাথরের। এর উৎপাদন দ্বিগুণ করা গেলে অনেকটা বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় করা যাবে। যা অর্থনৈতিক ভাবে আমাদের ডলার সাশ্রয় করবে এবং আমদানি ও হ্রাস পাবে।

এখন বর্তমানে এই পাথর খনি থেকে বছরে প্রায় ১৬ লক্ষ মেট্রিকটন পাথর উত্তলন করা হয়। যা বাংলাদেশের বছরের সামগ্রিক পাথরের চাহিদার তুলনায় অত্যন্ত নগন্য। বাংলাদেশে বছরে পাথরের চাহিদা হচ্ছে ১ থেকে দেড় কোটি মেট্রিক টন। ফলে দেখা যাচ্ছে এই ১৬ লক্ষ মেট্রিক টন বাংলাদেশের চাহিদার তুলনায় অত্যন্ত নগণ্য।  যার ফলে আমাদের অন্য দেশ থেকে পাথর আমদানি করতে হয়। সরকার ইতিমধ্যে সেই বিষয় বিবেচনায় নিয়ে পাথর উত্তোলন বৃদ্ধির দিকে মনযোগ প্রদান করেছে। আশা করি, খুব দ্রুত আমরা নিজেদের পাথর দিয়ে দেশীয় চাহিদা অনেকাংশে পূরণ করতে পারবো।

কোনো প্রকার অব্যবস্থাপনার কারণে যেন এমন সম্ভাবনাময় একটি প্রাকৃতিক সম্পদ তার গ্রহণযোগ্যতা না হারায় বাংলাদেশ সরকার এই বিষয়ে অবশ্যই অনেক বেশি সচেতন যার প্রমাণ আমরা ইতিমধ্যে প্রত্যক্ষ করেছি। আরো দুটি কূপ থেকে পাথর উত্তোলনের সিদ্ধান্ত ইতিমধ্যে নেওয়া হয়েছে। আর এর মাধ্যমে আমরা নিজস্ব পাথর দিয়ে আমাদের সার্বিক প্রয়োজনকে অনেকাংশে পূরণ করতে সক্ষম হবো। আমরা যে পরিমাণ ডলার খরচ করে পাথর আমদানি করি সেটা কমে আসবে এবং আমাদের রিজার্ভ ডলার সঞ্চিত থাকবে যা আমরা অন্য কাজে ব্যবহার করতে পারবো। যেটা একটি দেশের অর্থনীতির জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত।  বাংলাদেশ সরকারের এই খনির বিষয়ে সামগ্রিক সচেতনতা একটি উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ যা পরবর্তী ভবিষ্যৎ সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করবে।

কাজী বনফুল 
কলামিস্ট ও গবেষক

মতামত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • জিয়াউর রহমান বাকশালের সদস্য হয়েছিলেন, দাবি ওবায়দুল কাদেরের

  • মূল্যস্ফীতি হ্রাসই লক্ষ্য

  • আম নিতে চায় রাশিয়া-চীন

  • ফের দুই দিনের হিট অ্যালার্ট জারি

  • উন্নয়ন রূপকল্পের অন্যতম পথিকৃৎ শেখ হাসিনা : ধর্মমন্ত্রী

  • ধর্মান্ধরা সমাজকে পিছিয়ে নিয়ে যাচ্ছে: ভূমিমন্ত্রী

  • অন্য দেশের সঙ্গে প্রদর্শনী বাড়ালে সাংস্কৃতিক সম্পর্ক জোরদার হয়

  • রাজধানীতে ‘কক্সবাজার এক্সপ্রেসের’ বগি বিচ্ছিন্ন

  • নির্বাচনের জন্য ট্যুরিস্ট ভিসাতে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দিলো ভারত

  • ৩০ ব্যাংকের এমডি যাচ্ছেন যুক্তরাষ্ট্রে

  • নোংরা পরিবেশে তৈরি হচ্ছিলো রাফসানের ব্লু ড্রিংকস

  • জার্মানিতে আবাসিক ভবনে বিস্ফোরণ, নিহত ৩

  • খারকিভে ‘কঠিন লড়াই’ চলছে: জেলেনস্কি

  • সব ধরনের জঙ্গি-সন্ত্রাসবাদ পুলিশের নিয়ন্ত্রণে: আইজিপি

  • জনগণের উন্নয়ন, মির্জা ফখরুলসহ বিএনপির সহ্য হচ্ছে না: আইনমন্ত্রী

  • রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মূর্তিমান আতঙ্ক সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আরসা: র‌্যাব

  • বাংলাদেশের গ্রামের অর্থনীতি পাল্টে গেছে : প্রধানমন্ত্রী

  • ৬ তারিখে বাজেট দেব, বাস্তবায়নও করব : প্রধানমন্ত্রী

  • চৌদ্দগ্রামে যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ৫ জনের মৃত্যু

  • দেশকে এগিয়ে নিতে অর্থনীতিবিদদের সহযোগিতা চান প্রধানমন্ত্রী

  • ১৭ মে বাংলাদেশের মানুষের হৃদয়ে গাঁথা থাকবে : আইনমন্ত্রী

  • শেখ হাসিনা গণতন্ত্রকামী মানুষের নেতা : খাদ্যমন্ত্রী

  • টানা ৫ দিন বেনাপোল দিয়ে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ

  • দুধ দিয়ে গোসল করানো হলো নাবিক সাব্বিরকে

  • রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মূর্তিমান আতঙ্ক সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আরসা : র‌্যাব

  • শনিবার থেকে বৃষ্টি হতে পারে

  • শেখ হাসিনাকে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন

  • ইসরায়েলি হামলায় এখন পর্যন্ত ৩৫ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি নিহত

  • বেদনানাশক নিয়ে খেলবেন তাসকিন

  • শাহরুখ-অমিতাভদের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন খারিজ

  • লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি বোরো উৎপাদন

  • অতীত ভুলে সামনে তাকাতে চায় যুক্তরাষ্ট্র

  • এসএসসিতে গড় পাসের হার ৮৩.০৪ শতাংশ

  • ফেল করেছে বলে গালমন্দ করবেন না : অভিভাবকদের প্রধানমন্ত্রী

  • অবৈধ অভিবাসী প্রত্যাবাসনে বাংলাদেশকে ‘নিরাপদ’ ঘোষণা ইতালির

  • ‘স্বচ্ছতা নিশ্চিতে ইলেকট্রনিক সরকারি ক্রয় চালু’

  • কূটনৈতিক মিশন খুলতে সম্মত বাংলাদেশ-আয়ারল্যান্ড

  • ঘরে বসেই হজযাত্রীরা পাবে প্রাক-নিবন্ধন রিফান্ডের টাকা

  • ডাবের পানির বিকল্প হিসেবে যে পানীয় পান করতে পারেন

  • জিপিএ-৫ ও পাসের হারে এগিয়ে মেয়েরা

  • ডেঙ্গু ঠেকাতে এবার মাস্টারপ্ল্যান

  • সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনীর আওতা বাড়ছে বাজেটে

  • কিশোর গ্যাংয়ে জড়ানোর কারণ খুঁজতে হবে : শেখ হাসিনা

  • জুন-জুলাইয়ে হতে পারে প্রধানমন্ত্রীর তিন গুরুত্বপূর্ণ সফর

  • ‘ধানের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করতে কৃষক অ্যাপ চালু করা হয়েছে’

  • নিউ ইয়র্ক বাংলা বইমেলায় দশ হাজার নতুন বই

  • ‘মা দিবসে মাকে দেওয়া আমার শ্রেষ্ঠ উপহার জিপিএ-৫’

  • পায়রা বন্দরে প্রথমবারের মতো ভিড়লো বিদেশি জাহাজ

  • ম্যাংগো স্পেশাল ট্রেন এবার চলবে পদ্মা সেতু দিয়ে

  • ‘ডোনাল্ড লু সম্পর্ক এগিয়ে নিতে বাংলাদেশ সফরে আসছেন’

  • বিশ্বাসের ঘাটতি হটিয়ে সম্পর্ক দৃঢ় করতে চায় যুক্তরাষ্ট্র

  • ইলিশের মণ লাখ টাকা

  • নভেম্বর-ডিসেম্বরে ওয়েস্ট ইন্ডিজে সফরে যাবে বাংলাদেশ

  • কোরবানির চামড়ার ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করবে সরকার

  • ‘বিএনপি যে কখন তাবিজ-দোয়ার ওপর ভর করে সেটিই প্রশ্ন’

  • ‘জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় বাংলাদেশের পাশে থাকবে যুক্তরাষ্ট্র’

  • ১৭ মে : জননেত্রীর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন এবং দেশের অগ্রযাত্রা

  • এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের ভাতা বাড়ানোর প্রক্রিয়া শুরু

  • ‘বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক আরও ঘনিষ্ঠ করতে চায় যুক্তরাষ্ট্র’

  • ‘নারীবান্ধব শিক্ষানীতির কারণে মেয়েরা পাসের হারে এগিয়ে’