শনিবার   ১৫ আগস্ট ২০২০

ব্রেকিং:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ খালেদার অনুপস্থিতিতেই কারাগারে বিচার চলবে রব ও মান্নার বিয়ে যুক্তফ্রন্টে, পরকীয়া ঐক্যফ্রন্টে: মাহী এটা জোট নয়, ঘোট : তথ্যমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় পেলেন সিনহা আবারও সরকার গঠনে নৌকায় ভোট দেয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর পদ্মা সেতু প্রকল্পের নামফলক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী
১৫৪

পাঠ্যবই ছাপায় সাশ্রয় হচ্ছে ৩০০ কোটি টাকা

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৫ জুলাই ২০২০  

প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ে বিনামূল্যের বই ছাপায় সরকারের প্রায় ৩০০ কোটি টাকা সাশ্রয় হচ্ছে। প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরে প্রায় ৩৫ কোটি বই ছাপায় নির্ধারিত দামের চেয়ে ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ কম দামে দরপত্রে অংশ নিয়েছে মুদ্রণ প্রতিষ্ঠানগুলো। এতে সরকারের বিশাল অঙ্কের এ টাকা সাশ্রয় হচ্ছে। বৈশ্বিক করোনা মহামারির মধ্যে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) এ টাকা সাশ্রয়কে সাধুবাদ জানিয়েছেন এ খাতের সংশ্লিষ্টরা। তবে কম দামে কাজ দিতে গিয়ে বইয়ের মানে যেন ধস না নামে সেদিকে নজর দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন মুদ্রণের সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, আন্তর্জাতিক বাজারে কাগজ তৈরির পার্লপের দামে অস্বাভাবিক দরপতন, গেল বাজেটে কাগজের ওপর ১০ শতাংশ ভ্যাট (২৫ শতাংশ থেকে ১৫ শতাংশ) কমানো, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় নোট গাইড ও প্রকাশনা শিল্প বন্ধ এবং আন্তর্জাতিক বাজারে কাগজের তৈরি বিভিন্ন সামগ্রী রপ্তানি বন্ধ থাকায় টনপ্রতি কাগজের দাম কমেছে ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা। এছাড়াও কাগজের মিলগুলো করোনাকালীন ব্যাংক ঋণ পরিশোধ ও নগদ টাকার সংগ্রহে কম লাভে কাগজ বিক্রি করেছে। 

এ কারণে সরকারের নির্ধারিত দামের (প্রাক্কলন) চেয়ে প্রায় ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ কম দামে দরপত্র জমা দিয়েছে মুদ্রণ প্রতিষ্ঠানগুলো। গত বছরের চেয়ে টনপ্রতি ২৮ হাজার টাকা কম দামে এছাড়াও এনসিটিবি সপ্তম শ্রেণির বই সিট মেশিনে ছাপানোর জন্য ১৩ হাজার মেট্রিক টন কাগজ ও বইয়ের মলাটের জন্য ১৩শ' আট পেপার কেনাতেও প্রায় ৩৯ কোটি টাকার সাশ্রয় হয়েছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে এনসিটিবির চেয়ারম্যান প্রফেসর নারায়ণ চন্দ্র সাহা তার দপ্তরে যায়যায়দিনকে বলেন, মুদ্রণ প্রতিষ্ঠানগুলো দরপত্রের নির্ধারিত দরের প্রায় ৩০ শতাংশ কমে জমা দেওয়ায় এবার ভালো অঙ্কের টাকা সাশ্রয় হবে। টাকার পরিমাণে কত তা এখনও হিসাব হয়নি। তিনি বলেন, দেশীয় ও আন্তর্জাতিক বাজারে কাগজের দাম কমে যাওয়া এবং পেপারমিলগুলো কম লাভে কাগজ বিক্রি করায় মুদ্রণ প্রতিষ্ঠানগুলো কম দামে কাজ করতে রাজি হয়েছে।

এনসিটিবি সূত্রে জানা গেছে, আগামী ২০২১ শিক্ষাবর্ষের জন্য প্রাক-প্রাথমিক থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত বিনামূল্যে বিতরণের জন্য প্রায় ৩৫ কোটি বই ছাপানো হবে। এর মধ্যে মাধ্যমিকে প্রায় ২৪ কোটি ৪১ লাখ বই ছাপানো হবে। এতে সরকারি ব্যয় ধরা হয়েছে ৭৫০ কোটি টাকা। প্রাথমিকের বইয়ের চাহিদা এখনও না এলেও গত বছরের চাহিদা ধরে প্রায় ১০ কোটি ৫৪ লাখ বইয়ের দরপত্র দেওয়া হয়েছে। প্রাথমিক ও মাধ্যমিক মিলে বিনামূল্যের ৩৫ কোটি বই ছাপানোর জন্য সরকারের সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছে সাড়ে ১১০০ কোটি টাকা। কিন্তু সেই টাকা থেকে প্রায় ৩০০ কোটি সাশ্রয় হচ্ছে।

জানা গেছে, প্রাথমিকের সাড়ে ১০ কোটি বই ছাপাতে ৯৮টি লটে টেন্ডার করেছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই)। ভারতের দুটি প্রতিষ্ঠানসহ শতাধিক প্রতিষ্ঠান এতে অংশ নিয়েছে। দরপত্র মূল্যায়ন কমিটির একজন সদস্য বলেন, সবক'টি লটে গড়ে প্রায় ৩০ শতাংশ কম দামে দরপত্র জমা দিয়েছে মুদ্রণকারীরা। এখানে সরকারের প্রায় ৩০০ কোটি টাকা সাশ্রয় হয়েছে। এছাড়াও

মাধ্যমিক স্তরে এনসিটিবি সিট মেশিনের জন্য কাগজ কিনে দেয়। এবার ১৩ হাজার মেট্রিক টন হোয়াট পেপার (৬০ ডিএসএম) কিনেছে ৬৫ হাজার টাকা দরে কেনার প্রস্তাব করা হয়েছে। গত বছর এ কাগজ কেনা হয়েছিল ৯৩ হাজার ২২৪ টাকা করে। টনপ্রতি ২৮ হাজার টাকার বেশি সাশ্রয় হয়েছে। গত বছর প্রতি টন আর্টকার্ড ক্রয় করা হয়েছে ১ লাখ ৬ হাজার ২০০ টাকা করে। এ বছর প্রতি টন ৯৩ হাজার টাকা দরে ক্রয় করার প্রস্তাব করা হয়েছে। এ বছর ১৩শ' টন আট কার্ড কেনা হবে। গত বছর কেনা হয়েছিলো ২৪শ' টন। গত বছর ক্রয় করা ৩০০ টন কার্ড বাফারের গুদামে মজুদ থাকায় এ বছর আর্ট কার্ড কম কেনা হচ্ছে। এ বছর কাগজ ক্রয় করতে বাজেট থেকে ৩৯ কোটি টাকা সাশ্রয় হবে। এতে শুধু মাধ্যমিক স্তরেই সাশ্রয় হবে প্রায় ২০০ কোটি টাকা।

মুদ্রণ ব্যবসায়ীরা জানান, প্রতিযোগিতা ও করোনাকালীন ব্যবসায় টিকে থাকতে তারা কম লাভে কাজ করতে প্রায় ৩০ শতাংশ কমে দরপত্র জমা দিয়েছি। তারা বলেন, এনসিটিবি বইয়ের দাম যখন ঠিক করে তখনও কাগজের দাম এত কমেনি। কিন্তু আন্তর্জাতিক বাজারে কাগজের দাম কমে যাওয়ার খবর পেয়ে প্রাক্কলনের চেয়ে প্রায় ৩০ শতাংশ কম দামে হাঁকিয়েছি। এতে সরকারের কয়েকশ' কোটি টাকা সাশ্রয়ের পাশাপাশি দেশীয় শিল্প রক্ষা পাবে।

এনসিটিবির কর্মকর্তারা বলেন, গত বছর কাগজের প্রাক্কলিত দর নির্ধারণ করার সময়ে পার্লপের টনপ্রতি দর ছিল সাড়ে ৮০০ ডলার। এ বছর এ দর ৪৬০ ডলারে নেমে এসেছে। যে কারণে টনপ্রতি কাগজের দাম প্রায় ৩০ হাজারের বেশি কমে গেছে।

এ ব্যাপারে এনসিটিবির সদস্য (অর্থ) মির্জা তারিক হিকমত বলেন, তৃতীয় থেকে পঞ্চম শ্রেণির বই ৯৮টি লটে টেন্ডার দেওয়া হয়। প্রাক্কলিত দরের চেয়ে ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ কম দর দিয়েছে মুদ্রকররা। এতে গত বছরের চেয়ে অন্তত ৫০ কোটি টাকা সাশ্রয় হবে। প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দিলেই বই ছাপার কার্যাদেশ দেওয়া হবে। প্রতি ফর্মা ২ টাকা ১০ পয়সা নির্ধারণ করা হয়েছে। গত বছর এ শ্রেণির একটি বইয়ের গড় ছাপা খরচ ২৩ টাকা। এ বছর সে বই ছাপাতে খরচ হবে ১৮ টাকা ৩২ পয়সা। দুই বছর আগে বইপ্রতি খরচ হয়েছিল ৩৫ টাকা পর্যন্ত। একটি সিন্ডিকেট প্রাক্কলিত দরের চেয়ে বেশি দামে বই ছাপার কাজ নিত। এ বছর সিন্ডিকেট ভেঙে দিতে ইজিপিতে টেন্ডার দেওয়া হয়েছে।

এদিকে মুদ্রণকারীদের একাংশ দাবি করেছে, এত কম দামে কাজ দিলে বইয়ের মান নিয়ে প্রশ্ন উঠবে। যেসব প্রতিষ্ঠান প্রাক্কলনের চেয়ে মাত্রাতিরিক্ত কম দামে বই ছাপা দাম দিয়েছে তাদের প্রতি প্রতি বিশেষ নজর রাখতে হবে। তারা করোনাকালীন বিশেষ পরিস্থিতিকে সামনে রেখে শেষ সময়ে নিম্নমানের বই দিতে পারে। এজন্য এসব প্রতিষ্ঠানের পিজি (পারফরমেন্স সিকিউরিটি) বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন তারা। 

এ ব্যাপারে এনসিটিবির চেয়ারম্যান বলেন, সরকারের বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধির সমন্বয়ে মূল্যায়ন কমিটি এসব বিষয় দেখবে। তারা যদি মনে করে তবে পিজি বাড়াসহ আরও কঠোর কিছু শর্ত দিতে হতে পারে। মূল্যায়ন না হওয়া পর্যন্ত এখনই কিছু বলা ঠিক হবে না।

মান ঠিক রাখতে এনসিটিবি এবারও আরও শক্ত অবস্থানে থাকবে বলে জানান সংস্থাটির চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, কম দামে কাজ নিলেও মানের ব্যাপারে কোনো মুদ্রণ প্রতিষ্ঠানকে ছাড় দেওয়া হবে না। মান যাচাইয়ে মনিটরিং এজেন্সি ছাড়াও এনসিটিবির নিজস্ব টিম, শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সব সময় তৎপর থাকে। এবার সেটি আরও বাড়ানো হবে।

জানা গেছে, ২০০৯ সালে মুদ্রণ ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে প্রাক্কলনের চেয়ে অনেক কমে দরপত্র করে। ওই সময় বইয়ের মান ঠিক রাখতে একটি স্টিয়ারিং কমিটি করা হয়। সরকারের বিভিন্ন সংস্থার সঙ্গে এলিট ফোর্স র‌্যাবকে রাখা হয়। ফোর্সটি বিভিন্ন সময় অভিযানও পরিচালনা করে। এবারও স্টিয়ারিং কমিটির দাবি উঠলেও মূল্যায়ন না হওয়া পর্যন্ত চূড়ান্ত কিছু বলতে চাচ্ছেন না কর্মকর্তারা।

আরও পড়ুন
শিক্ষা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • বৃত্তি পাচ্ছে এসএসসি’র সাড়ে ২৫ হাজার শিক্ষার্থী

  • কোটি মানুষের হৃদয়ে রয়েছে বঙ্গবন্ধু

  • টুঙ্গিপাড়ার খোকা থেকে বাঙালির মুক্তির মহানায়ক

  • বাবার লাশ আর সাদা হাতাকাটা গেঞ্জিই একমাত্র স্মৃতি: তাপস

  • পদ্মা রেল প্রকল্পে দেশে স্লিপার ফ্যাক্টরি চালু করেছে সিআরইসি

  • কর্মসংস্থানের জন্য ৭৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ

  • চামড়া রপ্তানিতে ঈর্ষণীয় সাফল্য

  • বনানীতে ১৫ আগস্টের শহীদদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

  • মুর্তজা বশীরের অবদান ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে অনুপ্রেরণা জোগাবে

  • চিত্রশিল্পী মুর্তজা বশীর আর নেই

  • বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

  • সাম্প্রদায়িকতা ও বঙ্গবন্ধুর রাষ্ট্রচিন্তা

  • বঙ্গবন্ধু আগামী প্রজন্মের অনুপ্রেরণার উৎস: ইউনেস্কো

  • ইতিহাসের জঘন্যতম হত্যাকাণ্ড

  • বাংলাদেশের অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার হবে দ্রুত

  • অবশেষে সাড়ে তিন লাখ শিক্ষকের বেতন বৈষম্য নিরসন  

  • তিস্তাপাড় ঘিরে সরকারের মহাপরিকল্পনা 

  • ঋণ নিয়ে আত্মসাতের মামলায় এস কে সিনহার বিচার শুরু 

  • স্নাতক পর্যায়ের অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের জন্য উপবৃত্তি 

  • কর্মসংস্থানের জন্য রাষ্ট্রায়ত্ত ৩ ব্যাংককে ৭৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ

  • ব্যক্তি স্বার্থে শোক দিবসের পরিবেশ যেন নষ্ট না হয় : কাদের

  • ২০২২ সালের মধ্যে ৮ বিভাগে ক্যান্সার হাসপাতাল হবে 

  • উন্নয়ন প্রকল্পে বাড়তি অস্বাভাবিক খরচ মানা হবে না

  • দিল্লিতে আমাদের নামও পরিবর্তন করতে হয়েছিল : শেখ রেহানা 

  • ‘বঙ্গবন্ধু হত্যার কুশীলবদের মুখোশ উন্মোচনে কমিশন গঠন প্রয়োজন’ 

  • ‘বঙ্গবন্ধুর পলাতক ৫ খুনিকে ফিরিয়ে আনার প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে’

  • ‘সোনার বাংলা’ প্রতিষ্ঠায় বঙ্গবন্ধুর শিক্ষাভাবনা

  • বঙ্গবন্ধুর সমান উচ্চতার নেতা বিশ্বে বিরল

  • তোমরাই আমার সব থেকে আপন : এতিমদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী

  • আজ জাতীয় শোক দিবস

  • বাস্তবায়নের পথে ব-দ্বীপ স্বপ্ন

  • তৈরি পোশাক রপ্তানিতে ২য় অবস্থান ধরে রেখেছে বাংলাদেশ

  • দুর্গম ৩১ দ্বীপে উচ্চগতির ইন্টারনেট দিচ্ছে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট 

  • ২৫৪ টাকায় করোনার ডোজ পাবে বাংলাদেশ

  • ফোরলেন হচ্ছে যশোর-ঝিনাইদহ সড়ক, উপকৃত হবে ২ কোটি মানুষ

  • রেলে চড়ে পণ্য যাবে নেপালে

  • পুঁজিবাজারে গতি ফিরেছে, ঘুরে দাঁড়াচ্ছে দেশের অর্থনীতি

  • উত্তরের কৃষকদের স্বপ্ন দেখাচ্ছে ‘সোনালি আঁশ’

  • অন্যের টিকিট নিয়ে ট্রেন ভ্রমণ করলেই কারাদণ্ড

  • করোনাকালেও আমদানি বাণিজ্যে রেকর্ড

  • দেড় লাখ কৃষককে সোয়া ১০ কোটি টাকা প্রণোদনা দিবে সরকার 

  • প্রথমবার ২ কোটি টন উৎপাদন ছাড়ালো বোরো

  • দীর্ঘস্থায়ী বন্যা মোকাবিলায় প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

  • ‘একজন দক্ষ সামরিক কর্মকর্তা ছিলেন মেজর (অব.) সিনহা’

  • তার যাবে মাটির নিচে, আসছে ২০ হাজার কোটি টাকার প্রকল্প

  • বিদ্যুৎ ব্যবস্থা উন্নয়নে সরকারের দেড় হাজার কোটি টাকার প্রকল্প

  • রেমিট্যান্স পাঠানোয় শীর্ষে সৌদি প্রবাসীরা

  • বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনে যাচ্ছে সরকার

  • স্বাস্থ্যখাতের দুর্নীতি দূর করতে সরকার কঠোর: হানিফ

  • বাগেরহাটে শসার বাম্পার ফলন, দামও ভালো

  • সুন্দরবনে মধু ও মোমের উৎপাদন বেড়েছে

  • শেখ হাসিনার দেওয়া পাকাঘর পেলো আত্রাইয়ের ১৮ গৃহহীন পরিবার 

  • তিস্তা নদীর দুই পাড় ঘিরে স্থায়ী উন্নয়নের মহাপরিকল্পনা

  • বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটিতে কর্মসংস্থান হচ্ছে দুই হাজার মানুষের

  • ইলিশে সরগরম মাছের আড়তগুলো

  • করোনা ভ্যাকসিন: বাংলাদেশসহ ৯২ দেশের জন্য সুসংবাদ

  • পটুয়াখালীতে সাবমেরিন ক্যাবলে ত্রুটি, ইন্টারনেটে ধীরগতি

  • ঢাকার যানজট কমাতে তৈরি হচ্ছে ১০ ইউটার্ন ও ২২ ইউলুপ

  • ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ছিলেন বঙ্গবন্ধুর বিশ্বস্ত সহচর: প্রধানমন্ত্রী

  • বঙ্গবন্ধু শিল্প নগরীকে ৫০ কোটি ডলার দিচ্ছে বিশ্বব‌্যাংক