বুধবার   ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

সর্বশেষ:
রোকেয়া পদক পাচ্ছেন ৫ নারী আবারও শ্বাসরুদ্ধকর জয়, ৭ বছর পর ভারতের বিপক্ষে সিরিজ বাংলাদেশের একশ’ প্রভাবশালী নারীর তালিকায় বাংলাদেশের ছোঁয়া দেশের দ্বিতীয় ডিজিটাল পল্লি হবে শরীয়তপুরের ডামুড্যায় প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব হলেন তোফাজ্জল হোসেন মিয়া
৩৫

‘পদ্মার ভাঙনে সর্বস্বান্ত হয়েছি, আশ্রয় দিয়েছেন শেখ হাসিনা’

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৩ জানুয়ারি ২০২৩  

‘দোচালা ঘর, সাজানো সংসার, চাষের জমি - সবই ছিল। পদ্মা নদী সব কিছু গ্রাস করে নিয়েছে। সর্বস্বান্ত হয়েছে পুরো পরিবার। এমনকি মাথা গোঁজার ঠাঁইটুকু পর্যন্ত ছিল না। এখানে-সেখানে, অন্যের জমিতে, সরকারি খাস জমিতে খুপড়ি ঘর করে থেকেছি অনেক দিন। বারবার উচ্ছেদ হয়েছি। আবার নতুন করে বাঁচার চেষ্টা করেছি। এভাবেই জীবনের সঙ্গে লড়াই-সংগ্রাম করে চলেছি ২৫-৩০ বছর। শেখের বেটি জমি দিচ্ছে, ঘর দিচ্ছে শুনে আবেদন করেছিলাম। এখন শেখ হাসিনার দেওয়া ঘরে আশ্রয় নিয়েছি। তাকে ধন্যবাদ দেওয়ার মতো ভাষা নেই মুখে!’ 

গণমাধ্যমের কাছে এভাবেই এক আবেগাপ্লুত স্বরে কথাগুলো বলছিলেন ষাটোর্ধ্ব চার সন্তানের জননী বিজলা বেগম। মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাওয়ার অভিব্যক্তি জানতে চাইলে এসব কথা বলেন তিনি। কথা বলার শুরু যে দীর্ঘশ্বাস আর জীবন যুদ্ধের ক্লান্তি উচ্চারণে, তার সমাপ্তি ঘটে হাসি আর তৃপ্তির ছোঁয়ায়। এটি যেন পুরো মুজিববর্ষের আশ্রয়ণ প্রকল্পে বদলে যাওয়া সব জীবনের কথাই বলছে।

কেবল বিজলা বেগমই নন, তার মতো আরও অনেকে প্রায় একই ধরনের অভিব্যক্তি প্রকাশ করলেন। সবাই রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী উপজেলার ৬ নম্বর মাটিকাটা ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের লালখা পুকুর মোলাইনের আশ্রয়ণ প্রকল্পের বাসিন্দা। এখানে মুজিববর্ষের একক ঘর পেয়েছে ৫৫টি আশ্রয়হীন ও গৃহহীন পরিবার। উপকারভোগী এসব পরিবার পদ্মা ও মহানন্দা নদীর ভাঙনকবলিত বিভিন্ন এলাকার মানুষ ছিলেন। এখন তাদের স্থায়ী ও বর্তমান ঠিকানা এই আশ্রয়ণ প্রকল্পের ২ শতাংশ করে জমি এবং একটি করে ঘর। 

জানা যায়, ১৯৫৪ সাল থেকে এই ভূখণ্ডে বন্যার দাপট বেড়ে যায়। এরপর ১৯৮৮ ও ১৯৯৮ সালে বড় ধরনের বন্যা হয়, যার মধ্যে ১৭টি ছিল প্রলয়ঙ্করী। এসব বন্যায় সর্বগ্রাসী পদ্মা ও মহানন্দার তীরবর্তী বিস্তির্ণ জনপদ নদীগর্ভে বিলিন হয়েছে। এসব জায়গার সহায়-সম্বলহীন মানুষগুলো একটু নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য, পরিবার নিয়ে খেয়ে-পড়ে বেঁচে থাকার জন্য নানান স্থানে পাড়ি জমিয়েছেন। তাদের মধ্যে কিছু পরিবার ৮০ ও ৯০ এর দশকে চলে আসেন রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, গোদাগাড়ীর মাটিকাটা ইউনিয়নের লালখা পুকুরের চারপাশে সরকারি খাস জমিতে আশ্রয় গাড়েন এসব পরিবার। এই পরিবারগুলো কাঁচা ঘর তৈরি করে বসবাস শুরু করে। এগুলো ছিল মূলত বাঁশ, বেত, খড় ও টিনের তৈরি, যা ছিল একেবারেই জরাজীর্ণ। কিছু ঘর ছিল মাটির তৈরি, যার ওপরের অংশে ছিল খড়ের ছাউনি। বর্ষার মৌসুম ও শীকালে এই পরিবারগুলোর দুর্ভোগ সীমা ছাড়িয়ে যেতো।

অতীতের সেই সীমাহীন দুর্দশার কথা বলতে গিয়ে চোখের পানিতে গাল ভাসান সামেদা বেগম, যার বয়স এখন ৬৫ বছর। তিনি বলছিলেন, ‘পদ্মা নদীর নাম শোননি বাবা? ওই পদ্মা নদী আমাদের সবকিছু কেড়েছে। সব হারিয়ে পথে পসেছিলাম আমরা। মাথার ওপর ছাদ নাই, পেটে খাওন নাই। এখানে এসে আশ্রয় নেই। ছোট্ট একটি খুপড়ি ঘর বানাই। সেখানেই পুরো পরিবার থাকি। প্রতি বছর মানষের কাছ থেকে খড়-কুটো এনে ছাউনি দিতাম। বৃষ্টির সময় অইলে এখান দিয়ে, ওখান দিয়ে পানি পড়তো। শীতের সময় ঠান্ডায় ঘরেও মধ্যেও টেকা যাইত না। রাস্তা-ঘাট ছিল না। সেই কষ্টের কথা বলে শেষ করা যাবে না।’

উত্তরের হিমেল হাওয়ায় এখনও কাঁপছে রাজশাহীর মানুষ। কোনো দিন সূর্যের দেখা মেলে, কোনোদিন একেবারেই মেলে না। মধ্যবিত্ত পরিবারগুলিই যেখানে ঠান্ডায় কুপকাত, সেখানে এই অসচ্ছল পরিবারের সদস্যদের দুরবস্থা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে প্রতিটি পরিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ত্রাণ তহবিলের টাকায় কেনা দুইটি করে কম্বল পাওয়ায় কিছুটা হলেও সস্তি পেয়েছে।

যেখানে হেঁটে যাওয়ার মতো অবস্থা ছিল না, সেখানে এখন রিকশা-ভ্যান নিয়ে যাতাযাত করার মতো নতুন রাস্‌তাও করা হয়েছে।

এই পরিবর্তনের চিত্র ফুটে উঠলো রোজিনা বেগমের (৩৮) কথায়। স্বামীহারা এই নারীর আশ্রয় এখন বাবার ঘরে, যিনি আশ্রয়ণ প্রকল্পের একটি ঘর পেয়েছেন। তিনি বলেন, আগে কোথায় থাকবো, তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় থাকতাম। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া মায়ের ঘরে থাকছি। নতুন এই ঠিকানায় এসে একটি সেলাই মেশিন পেয়েছি। কাজ করে সংসার চালাচ্ছি। আমার কোনও সন্তান নেই, বোনের বাচ্চাকে মানুষ করছি। সব মিলিয়ে এখন সুখেই আছি।

লালখা পুকুর সোলাইন-এর আশ্রয়ণ প্রকল্প গড়ে তোলা হয়েছে বড় আকারের একটি পুকুরের চারপাশে। এখানে প্রতিটি পরিবারকে দুই শতক জমির মালিকানা বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। সঙ্গে তারা পেয়েছেন আধা পাকা একটি করে ঘর। ঘরের পাশের জমিতে বিভিন্ন ধরনের মৌসুমি শাক-সবজি চাষ করছেন তারা। কেউ সাবলম্বী হতে পালন-পালন করছেন হাঁস-মুরগি, গরু-ছাগল। বিশেষ করে পরিবারগুলোর নারী সদস্যরা গৃহস্থলির কাজের পাশাপাশি এসব কাজ করছেন। এতে পরিবারের আমিষ ও পুষ্টিকর খাবারের চাহিদা পূরণ ছাড়াও বাড়তি আয় হচ্ছে।

সীমা আক্তার নামে ২৮ বছরের এক নারী বলছিলেন, শেখের বেটির দেওয়া এই আশ্রয়ণের জমি ও ঘরই এখন আমাদের আপন ঠিকানা। তার আহ্বানে সাড়া দিয়ে ঘরের তিন পাশে যে টুকু জমি পেয়েছি, তাতে শাক-সবজি লাগিয়েছি। দুইটা গরু, একটা ছাগল পালছি। এখন আর থাকার কষ্ট করতে হয় না। শাক-সবজি আর গরুর দুধ খেতে পারছে বাচ্চারা। আমার মতো অন্যেরাও হাঁস-মুরগি-গরু-ছাগল পালছে। আমাদের জীবন এখন বদলে গেছে।

আশ্রয়ণ প্রকল্পের উপকারভোগীরা বলছেন, পদ্মার বুকে ভিটেমাটি হারিয়ে আশ্রয়হীন হয়ে পড়েছিল। নানা রকম কষ্টে জীবনের ঘানি টানায় অনিশ্চয়তার যেন শেষ ছিল না। পরিবারের সন্তানদের ভবিষ্যত যেন সেই অনিশ্চয়তাকে বাড়িয়ে দিয়েছিল আরও কয়েক গুণ। এখন সব ধরনের অনিশ্চয়তা কেটে গেছে। সংসারে এসেছে অর্থনৈতিক সচ্ছলতা। পুরুষদের পাশাপাশি নারীরাও বিভিন্নভাবে আয়ের উপায় খুঁজছেন। আগামীতে আরও সুন্দর দিন আসবে, সেই আশায় বুক বাঁধছেন তারা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে গোদাগাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জানে আলম জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে লালখা মোলাইন পুকুর এলাকায় মুজিববর্ষের আশ্রয় প্রকল্পে মোট ৫৫টি ঘর তৈরি করা হয়েছে। এসব ঘর এবং দুই শতক জমি এরইমধ্যে উপকারভোগী পরিবারগুলোর কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এর মধ্যে পুকুরের চারপাশে ৪১টি এবং বাকিগুলো কাছেই অবস্থিত। পদ্মা-মহানন্দা নদীর তীরবর্তী নদী ভাঙন কবলিত এলাকার মানুষ এখানে আগে থেকেই অস্থায়ী ঘর তৈরি করে বসবাস করছিলেন। তাদের এখন সরকারি খাস জমিতে পুনর্বাসিত করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, ৫৫টি পরিবারের প্রতিটিকে দুই শতাংশ করে জমি সাব রেজিস্ট্রি করে দেওয়া হয়েছে। এ ক্ষেত্রে ১১০ শতাংশ হলেই হয়ে যেতো। কিন্তু এখানে প্রায় ৫০০ শত জমি আছে। বাকি জমিতে জীবনমান উন্নয়নে কৃষিসহ নানা ধরনের কর্মকাণ্ড করে উপকার ভোগ করছে তারা। এক সময়ের আশ্রয়হীন এই মানুষগুলো এখন বেশ সাচ্ছন্দে জীবানযাপন করছেন। তাদের জীবনে একটি পরিবর্তন এসেছে। এখানে একটি সংযোগ সড়কও তৈরি করা হচ্ছে, সেটির কাজ এখনও চলমান। সামাজিক নিরাপত্তার আওতায় তারা সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা ভোগ করছে।

উপজেলা প্রশাসন জানিয়েছে, গোদাগাড়ি উপজেলার বিভিন্ন স্থানে মুজিববর্ষের আশ্রয় প্রকল্পের প্রথম তিন পর্যায়ের ঘর হস্তান্তর করা হয়েছে এরইমধ্যে। এর ফলে ৯১২টি গৃহহীন পরিবার আশ্রয় পেয়েছে। চতুর্থ পর্যায়ে আরও ৪০৪টি ঘরের নির্মাণকাজ চলমান রয়েছে, যার মধ্যে ২০০টি প্রায় সম্পন্ন হয়েছে। প্রতিটি ঘর তৈরিতে ২ লাখ ৮৪ হাজার এবং পরিবহন ব্যয় বাবদ ৫ হাজার টাকা করে ব্যয় হচ্ছে।

আরও পড়ুন
দেশের খবর বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • লালমনিরহাটে ‘বাংলা ইশারা ভাষা’ দিবস পালিত

  • নবায়নযোগ্য জ্বালানি খাতে বিনিয়োগে আগ্রহী চীন

  • সাতদিনে বইমেলায় ৫৩৫ নতুন বই

  • ভুটানের জালে ৫ গোল দিয়ে ফাইনালে বাংলাদেশের মেয়েরা

  • পদ্মাপাড়ে ‘সমুদ্র বিলাস’

  • রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সম্মাননা পেলেন ড. অরূপরতন চৌধুরী

  • বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে নবনিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূতের সৌজন্য

  • পাঁচ খাতে দক্ষ শ্রমিক নেবে সৌদি আরব

  • পাহাড়ে সৌর বিদ্যুতের সেচ প্রকল্পে উপকৃত বান্দরবানের কৃষকেরা

  • হজের নিবন্ধন শুরু ৮ ফেব্রুয়ারি

  • উত্তরাঞ্চলে চা উৎপাদনের রেকর্ড

  • নওগাঁয় মাশরুম চাষে সাফল্য

  • তুরস্কে প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য হটলাইন চালু

  • এইচএসসির ফল প্রকাশ ৮ ফেব্রুয়ারি

  • ভোলার চরফ্যাশনে বিষমুক্ত সবজি চাষ হচ্ছে

  • তিস্তার চরে পেঁয়াজের বাম্পার ফলনের স্বপ্ন দেখছেন কৃষকরা

  • ফুলচাষেই লাভবান নওগাঁর চাষিরা

  • অক্টোবরে উদ্বোধন হবে শাহজালাল আন্তঃ বিমানবন্দরে তৃতীয় টার্মিনাল

  • পরীক্ষামূলকভাবে চালু হলো নাগরিক ভূমিসেবা কেন্দ্র

  • ১ মাসের ব্যবধানে আরিফিন শুভ`র চোখ ধাঁধানো পরিবর্তন

  • তুরস্কের পাশে দাঁড়াল বাংলাদেশ! যাচ্ছে উদ্ধারকারী দল।

  • তুরস্ক যেন এক মৃত্যুপুরী! বেড়ে চলেছে মৃতের সংখ্যা!

  • ভেজাল ওষুধ উৎপাদন বিক্রিতে যাবজ্জীবন

  • প্রেসক্রিপশন ছাড়া ওষুধ বিক্রি করলে ২০ হাজার টাকা জরিমানা

  • জানুয়ারিতে মূল্যস্ফীতি কমে ৮.৫৭ শতাংশ

  • ১১৬১ কোটি টাকার দুর্নীতি : বিমানের ২৩ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুদকের

  • ফ্লাইওভারের দেওয়াল লিখন ও পোস্টার সরানোর নির্দেশ

  • তুরস্ক-সিরিয়ায় ভূমিকম্পে হতাহতের ঘটনায় রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী

  • বায়ু ও শব্দদূষণের দায়ে ১৬ যানবাহন ও ১২ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

  • ‘মুজিব হানড্রেড সং’র মোড়ক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী

  • নতুন শিক্ষাব্যবস্থার যুগে বাংলাদেশ

  • আদানির বিদ্যুৎ আসছে মার্চে

  • মামলায় সরকারি সাক্ষীদের খরচ দেয়ার নির্দেশ

  • রামপালে জুনের মধ্যে দ্বিতীয় ইউনিটে উৎপাদন শুরু

  • ‘একুশ’ বাঙালির প্রথম পরিচয়

  • সমন্বিত ট্র্যাফিক ব্যবস্থাপনা চালুর পরিকল্পনা করছে সরকার

  • ‘স্মার্ট জাতি গঠনই আমাদের পরবর্তী লক্ষ্য’

  • স্পিকারের সাথে নর্ডিক রাষ্ট্রগুলোর রাষ্ট্রদূতদের সৌজন্য সাক্ষাৎ

  • জাহাজ রফতানিতে নবদিগন্ত

  • রাজস্ব আয় আরও বাড়ানোর পদক্ষেপ নিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

  • বাংলাদেশ একটি সফল উন্নয়নের গল্প: বিশ্ব ব্যাংক

  • জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রি তৃতীয় বর্ষের ফল প্রকাশ

  • জিডিপিতে আমরা মালয়েশিয়া-সিঙ্গাপুরকে পেছনে ফেলেছি : তথ্যমন্ত্রী

  • ধামরাইয়ে কৃষকদের মাঝে ঋণ বিতরণ

  • খুলনায় ১০৭ প্রতিষ্ঠানের পতিত জমিতে ফসলের ঝিলিক

  • বাংলাদেশের জন্য ৪৭০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণ অনুমোদন করেছে আইএমএফ

  • পর্দা উঠলো অমর একুশে গ্রন্থ মেলার

  • দেশের প্রথম পাতাল রেলের নির্মাণকাজ উদ্বোধন ২ ফেব্রুয়ারি

  • জানুয়ারিতে ৫১৪ কোটি ডলারের পণ্য রপ্তানি

  • মেট্রোরেলে টিকিট বেচে আয় আড়াই কোটি টাকা

  • পাতাল রেলের যুগে বাংলাদেশ

  • উন্নয়নের নতুন মুকুট পাতালরেলের আদ্যোপান্ত

  • ঢাকায় আর্জেন্টিনার দূতাবাস চালু হচ্ছে ২৭ ফেব্রুয়ারি

  • প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আরও সাড়ে ৭ হাজার শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি আসছে

  • প্রথমবারের মতো ১২০ কিমি মিসাইল ফায়ারিং এর যুগে বাংলাদেশ

  • ২০২৬ সালেই চালু হবে মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্র বন্দর : নৌ প্রতিমন্ত্রী

  • রিজার্ভ চুরি: সাক্ষ্য দিতে ফিলিপাইনে বাংলাদেশের কর্মকর্তারা

  • ২৭ দিনে রেমিট্যান্স এলো ১৮ হাজার কোটি টাকা

  • চীনকে পেছনে ফেলে পোশাক রপ্তানিতে শীর্ষে বাংলাদেশ

  • জানুয়ারিতে রপ্তানি আয় বেড়েছে ৫.৮৯%