রোববার   ১১ এপ্রিল ২০২১

সর্বশেষ:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে ইসি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ: নূরুল হুদা বারবার আসতে পারব না, যত খুশি সাজা দিন: খালেদা জিয়া ‘আকাশবীণার’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী ত্রিভুবনে আবারও বিমান দুর্ঘটনা ট্রেন-বাসের সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ২৫ ভুয়া ছবি দিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে মিয়ানমার: প্রধানমন্ত্রী
১০৭

দেশের বাইরেও খ্যাতি ছড়িয়েছে চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী ‘মেজবান’

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ৬ এপ্রিল ২০২১  

‘মেজবান’ ফারসি শব্দ। এর অর্থ হলো নিমন্ত্রণকর্তা। বৃহত্তর চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী অনুষ্ঠান মেজবান। চট্টগ্রামের ভাষায় এটিকে ‘মেজ্জান’ বলা হয়। ধারণা করা হয়, ১৫শ’ ও ১৬শ’ শতাব্দীর প্রাচীন পুঁথি সাহিত্যে পাওয়া মেজোয়ানি ও মেজমান শব্দ দুটি থেকেই মেজবান শব্দের উৎপত্তি। এখানে মেজোয়ানি অর্থ আপ্যায়নকারী ও মেজমান অর্থ আপ্যায়ন। 

মেজবানের নাম শুনলে জিভে জল আসে না, এমন লোকের সংখ্যা নেই বললেই চলে। তবে অতীতের সঙ্গে বর্তমানের মেজবানের আপ্যায়ন ব্যবস্থায় বেশকিছু পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়। সে সময় মাটিতে চাটাই কিংবা পাটি বিছিয়ে ও মাটির সানকিতে অতিথিদের আপ্যায়ন করা হতো। বর্তমানে চাটাই কিংবা পাটি কোনোটিরই ব্যবহার আর চোখে পড়ে না। দেখা যায় না মাটির সানকিও। এখন চেয়ার-টেবিল ও প্রচলিত থালায় অতিথিদের আপ্যায়ন করা হয়। 

চট্টগ্রামে সাধারণত দুটি কারণে মেজবানের আয়োজন করা হয়। একটি হলো সুখ বা আনন্দ উপলক্ষে। অপরটি হলো শোকে। সুখ বা আনন্দ বলতে শিশুর জন্মের পর আকিকা, জন্মদিন, ব্যক্তিগত সাফল্য, নতুন ব্যবসা শুরু, নতুন বাড়ি তৈরি, বিয়ে, খৎনাসহ বিভিন্ন উপলক্ষে মেজবানের আয়োজন করে থাকেন অনেকেই। এছাড়া কারো মৃত্যুর পর কুলখানি, মৃত্যুবার্ষিকীতেও সাওয়াবের উদ্দেশ্যে মেজবানের আয়োজন করা হয়। 

চট্টগ্রামের বিয়ের অনুষ্ঠানগুলোতে অতিথিদের খাবার গ্রহণের পরিমাণ অনেকটা নির্ধারিত থাকলেও মেজবানে তা থাকে না। ফলে মেজবানের খাবার পরিবেশন ব্যবস্থাকে চট্টগ্রামের ভাষায় ‘ঢালা খানা’ বলা হয়। ঐতিহ্যগতভাবে সকাল থেকে শুরু হয়ে মেজবানের অনুষ্ঠান চলে দুপুর পর্যন্ত। তবে বর্তমান সময়ে সন্ধ্যা থেকে রাত পর্যন্তও এ ভোজন অনুষ্ঠান চলতে দেখা যায়। এ খাবার সবার জন্য উন্মুক্ত। এতে দাওয়াত ছাড়াও অংশ নেন অনেকেই। 

বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলে ধনাঢ্য ব্যক্তিরা মেজবানের আয়োজন করলে লোকের মাধ্যমে সেই ভোজের দাওয়াত বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। তবে আগেকার সময়ে মেজবানের দাওয়াত দেয়া হতো ঢোল পিটিয়ে। মেজবানের রান্নার রয়েছে আলাদা বিশেষত্ব। এর মূল খাবারের তালিকায় থাকে গরুর মাংস ও সাদা ভাত। সঙ্গে থাকে ছোলার ডাল ও গরুর পায়ের হাড়ের ঝোল (চট্টগ্রামের ভাষায় নলার ঝোল)। তবে মেজবানে গরুর মাংসের রান্না হয় ভিন্ন ধরনে। ব্যবহৃত হয় ভিন্ন মসলাও। 

চট্টগ্রামের দক্ষ বাবুর্চিরাই মেজবানে রান্নার কাজটি করে থাকেন। এ রান্নায় দেশি-বিদেশি বিভিন্ন মসলার পাশাপাশি ব্যবহৃত হয় চট্টগ্রামের হাটহাজারী অঞ্চলের শুকনো লাল মরিচ। যা খাবারের স্বাদকে করে তোলে অতুলনীয়। অন্যান্য মরিচের তুলনায় এ মরিচের দামও বেশি। বিশেষ করে মেজবানের অনুষ্ঠানের চাহিদাকে কেন্দ্র করে এটির দামে হেরফের ঘটে। 

অপরদিকে, আদিকাল থেকেই গরুর মাংসের জন্য প্রসিদ্ধ চট্টগ্রাম। এখানকার লাল গরু সবচেয়ে উন্নত দেশি গরুর জাত। চট্টগ্রামের সাতকানিয়া, বাঁশখালী, আনোয়ারা, চন্দনাইশসহ বিভিন্ন অঞ্চলে এ গরু উৎপাদন হয় বেশি। আকারে ছোট হলেও দেখতে সুন্দর এ গরুর মাংস বেশ সুস্বাদু। মেজবানে এ গরুর চাহিদা সবচেয়ে বেশি। একটি কথা বেশ প্রচলিত আছে, সারা দেশে একদিনে যে পরিমাণ গরু জবাই হয়, চট্টগ্রামে ঠিক সমপরিমাণ গরু জবাই হয়। 

চট্টগ্রামের কয়েকজন ইতিহাসবিদের মতে, শতবর্ষের পরিক্রমায় মেজবান শব্দের পরিবর্তন এসেছে। বর্তমান সময়ে এর মানে হচ্ছে, বিশেষ বৈশিষ্ট্যপূর্ণ আপ্যায়নের ব্যবস্থা। অর্থাৎ, ধনী কিংবা গরিব যে-ই মেজবানের আয়োজন করুক না কেন, এতে অতিথির সংখ্যা নিরূপণ করে আয়োজন সম্ভব নয়। যত অতিথি আসুক না কেন, সবার মাঝে খাবার পরিবেশনই পরিপূর্ণ মেজবানের বৈশিষ্ট্য। 

গবেষকদের মতে, দশ শতকের পর চট্টগ্রাম অঞ্চল ছিল হিন্দু ও বৌদ্ধ অধ্যুষিত। বন্দরকে কেন্দ্র করে তখন থেকেই ব্যবসা-বাণিজ্যের সূচনা হয় এ অঞ্চলে। পর্তুগিজ, আরব ও বিভিন্ন অঞ্চলের বহু মুসলিম মনিষী এখানে আসতে শুরু করেন। 

বায়েজিদ বোস্তামি, বদর শাহদের পাশাপাশি বিভিন্ন সময়ে বার আউলিয়া চট্টগ্রামে এসে ইসলাম প্রচার শুরু করেন। সে সময় ধর্মপ্রচারকরা পরিবর্তিত কমিউনিটিকে নতুন খাদ্যাভ্যাসের সঙ্গে পরিচিত করাতে মেজবান বা গরুর মাংসের মাধ্যমে ভোজের আয়োজন শুরু করেন। কয়েক শতাব্দী পেরিয়ে চট্টগ্রাম অঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী ধর্মীয় প্রথায় পরিণত হয়েছে এ মেজবান। মুসলিম ছাড়া অন্যান্য ধর্মাবলম্বীরাও এতে আমন্ত্রিত হয়ে থাকেন। তাদের জন্য থাকে বিকল্প খাবার ব্যবস্থা। 

ঐতিহ্যবাহী এ মেজবান নিয়ে চট্টগ্রামের বিভিন্ন কবি-সাহিত্যিকেরা অসংখ্য ছড়া, কবিতা, গল্প ও প্রবন্ধ রচনা করেছেন। যেমন: ‘কালামন্যা ধলামন্যা আনের আদা জিরা ধন্যা আর ন লাগে ইলিশ-ঘন্যা গরু-খাসি বুটের ডাইলর বস্তা দেখা যায়- মেজবানি খাতি আয়...’।

এখানে ইলিশ ও অন্যান্য সুস্বাদু মাছের তুলনায় গরু-খাসি ও বুটের ডালের মেজবানকে লোভনীয় ও মজাদার হিসেবে উল্লেখ করা হয়। গত কয়েক দশকে চট্টগ্রামের মেজবান ছড়িয়ে পড়েছে দেশ ও দেশের বাইরে। গত কয়েক বছর ধরে জাতীয় শোক দিবসে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় ৩০ হাজার মানুষের জন্য মেজবানের আয়োজন করে আসছিলেন চট্টগ্রামের প্রবীণ রাজনীতিবিদ, নগর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও চসিকের সাবেক মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী। যা এখনও চলমান। 

এর আগে, বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে টুঙ্গিপাড়ায় প্রায় ৫০ হাজার মানুষের জন্য মেজবানের আয়োজন করে চট্টগ্রামে রাউজান থানা আওয়ামী লীগ। এছাড়াও মধ্যপ্রাচ্য, ইউরোপ, আমেরিকাসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মেজবানের আয়োজন করে থাকেন চট্টগ্রাম কমিউনিটির লোকেরা। চাটগাঁয়ের এ ভোজন সংস্কৃতি দিন দিন হয়ে উঠছে জনপ্রিয়।

আরও পড়ুন
জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে চলমান লকডাউন : কাদের

  • করোনায় স্বাস্থ্যসেবা সমন্বয়ে ৬৪ জেলার দায়িত্বে ৬৪ সচিব

  • চাইলে বাংলাদেশকে টিকা দেবে যুক্তরাষ্ট্র

  • পদ্মা সেতুর অগ্রগতি ৯৩ শতাংশের বেশি

  • মুজিব নগর সরকারের দলিল পত্রসমূহ

  • ইসলামের জন্য বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার ঐতিহাসিক অবদান

  • গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে জন কেরির সৌজন্য সাক্ষাৎ

  • রাজধানীর দুই এলাকায় করোনার সর্বাধিক সংক্রমণ

  • চলতি বছরই ২০ লাখের বেশি কর্মসংস্থান: পলক

  • ‘বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণাই বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ভিত্তি’

  • দেশে অরাজকতার চেষ্টা করলে ব্যবস্থা নেবে সরকার: আইনমন্ত্রী

  • স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ সরকার গঠিত হয় একাত্তরের ১০ এপ্রিল

  • ‘নিরাপদ মহাসড়ক নেটওয়ার্ক গড়ে তুলতে কাজ করছে সরকার’

  • বইমেলা শেষ হচ্ছে ১২ এপ্রিল: সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী

  • বহুমুখী প্রকল্পে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে বিপ্লব

  • করোনার ইস্যুতে ৬৪ জেলার দায়িত্ব পেলেন ৬৪ সচিব

  • সাংবাদিক হাসান শাহরিয়ারের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক

  • কাস্টমস ও ভ্যাট: করোনাকালেও চলছে ২৪ ঘণ্টা সেবা

  • ভোক্তাপর্যায়ে এলপিজির দাম ঘোষণা সোমবার

  • নদীর বুকে পুকুর-ফসলি জমি

  • যৌবন ফিরেছে তিস্তায়, কৃষক-জেলেদের স্বস্তি

  • মুড়ির গ্রাম তিমিরকাঠি, ঘরে ঘরে ব্যস্ততা

  • ১৭২ কোটি ব্যয়ে বিষমুক্ত সবজি উৎপাদনে বিপ্লব

  • আগাম পাহাড়ি কাঁঠালে বাড়ছে চাহিদা

  • আইসিটি খাতকে জরুরি সেবার আওতায় দেখতে চান উদ্যোক্তারা

  • বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বেড়েছে ৫৩২ শতাংশ

  • বোরো সংগ্রহে ব্যবহার হবে আধুনিক কৃষিযন্ত্র

  • উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত মেট্রোরেলের অগ্রগতি ৮৪ শতাংশ

  • শিমের লবণসহিষ্ণু নতুন জাত উদ্ভাবন

  • এবার ভারত থেকে জি-টু-জিতে চাল আমদানির সিদ্ধান্ত

  • মধুমতিতে নির্মিত হচ্ছে  ৬ লেনের সেতু

  • ২৫ মিনিটে প্রদক্ষিণ করা যাবে ঢাকা

  • রাজধানীতে নামছে ৬০টি দ্বিতল বাস

  • লকডাউনে থেমে নেই মেগা প্রকল্পগুলো

  • মাঠজুড়ে বোরো ধানের সবুজ সমারোহ

  • গণপরিবহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা 

  • মসজিদে নামাজ আদায়ে নতুন নির্দেশনা

  • তারাগঞ্জে সূর্যমুখীর চাষ বেড়েছে 

  • করোনা সংক্রমণ রোধে ফুলহাতা শার্ট পরার নির্দেশ পুলিশের

  • দেশের বাইরেও খ্যাতি ছড়িয়েছে চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী ‘মেজবান’

  • যানজট নিরসনে ঢাকায় হবে ৬১ কিলোমিটার পাতাল রেল

  • ১১ নির্দেশনা দিয়ে লকডাউনের প্রজ্ঞাপন, না মানলে আইনি ব্যবস্থা

  • জোর করে ঘরে রাখার চেয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির চেষ্টা করছি

  • লকডাউন শুরু

  • সোলার প্ল্যান্টে সেচ সুবিধা, কৃষিতে নতুন সম্ভাবনা

  • উৎসব-নববর্ষ-বিজয় দিবস ভাতা পাবেন সব বীর মুক্তিযোদ্ধা

  • লকডাউনে ব্যাংক লেনদেন আড়াই ঘণ্টা

  • শতবর্ষী ঐতিহ্য, আতাইকুলার লুঙ্গি-গামছার হাট

  • পদ্মা সেতুর অগ্রগতি ৯৩ শতাংশের বেশি

  • বুধবার থেকে চলবে গণপরিবহন

  • আন্তরিকভাবে কাজ করতে এনএসআই’র প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

  • করোনা টেস্টের ফি দেওয়া যাচ্ছে ‘নগদ’-এ

  • বাম্পার ফলনের তরমুজ নিয়ে বিপাকে চাষি

  • মেগা প্রকল্পে বদলাচ্ছে দক্ষিণাঞ্চল

  • উন্নয়নের পূর্বশর্ত হলো শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখা: প্রধানমন্ত্রী

  • রোহিঙ্গাদের প্রতি অসাধারণ মানবতায় কৃতজ্ঞ বাইডেন

  • রাঙামাটিতে তরমুজের ফলন ভালো, খুশি কৃষক-ব্যবসায়ী 

  • হাজারো মানুষের ভাগ্য বদলে দিয়েছে যে বন্দর

  • অবশেষে চালু হলো গঙ্গা-কপোতাক্ষ সেচ প্রকল্প

  • কাল থেকে গণপরিবহন বন্ধ : সেতুমন্ত্রী