সোমবার   ১৮ জানুয়ারি ২০২১

সর্বশেষ:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে ইসি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ: নূরুল হুদা বারবার আসতে পারব না, যত খুশি সাজা দিন: খালেদা জিয়া ‘আকাশবীণার’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী ত্রিভুবনে আবারও বিমান দুর্ঘটনা ট্রেন-বাসের সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ২৫ ভুয়া ছবি দিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে মিয়ানমার: প্রধানমন্ত্রী
২৬৯

ট্যুরিস্টদের জন্য চালু হচ্ছে ছাদখোলা বাস সার্ভিস

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৩ ডিসেম্বর ২০২০  

পর্যটন বিকাশে আবারও আসছে ছাদখোলা বিশেষ বাস সার্ভিস। দেশের পাচটি বিভাগীয় শহরের জন্য এসব বাস আনা হচ্ছে। মূলত দেশবিদেশী পর্যটকদের জন্যই এই সেবা দেয়া হবে। প্রাথমিকভাবে আনা হবে ছয়টি বাস। যা দিয়ে দেশের আকর্ষণীয় স্থানগুলো ঘুরে দেখার সুযোগ পাবেন পর্যটকরা। বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী এ্যাডভোকেট মাহবুব আলী এমপি বলেছেন- বর্তমানে পৃথিবীর সব দেশেই এ ধরনের বিশেষ বাস সার্ভিস রয়েছে। আমাদের দেশেও এক সময় ছিল। এখন আবার এই বিশেষ সার্ভিস চালুর ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এতে দেশ-বিদেশের পর্যটকরা ইউরোপ-আমেরিকার মতো ছাদখোলা বাসে ঘুরতে পারবেন দেশের বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান। প্রাথমিকভাবে পরীক্ষামূলকভাবে ছয়টি ট্যুরিস্ট বাস বা কোচ আনছে বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন। এর মধ্যে দুটি বাস চলবে ঢাকা বিভাগের আকর্ষণীয় বিভিন্ন পর্যটন এলাকায়। দুটি বাস চলবে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার পর্যটন এলাকায়। বাকি দুটি বাস চলবে সিলেট বিভাগের চারটি জেলায়। এসব বাস দেশী-বিদেশী পর্যটকদের কাছে জনপ্রিয় হলে আরও বাস আনা হবে।

এ বিষয়ে মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, দুনিয়ার সব উন্নত দেশ এমনকি নেপালের মতো ছোট দেশেও ট্যুরিস্টদের জন্য বিশেষায়িত বাস সার্ভিস চালু রয়েছে যা দিয়ে দেশের আকর্ষণীয় ও দর্শনীয় স্থানসমূহ ঘুরে ফিরে দেখা যায়। শহরের ভেতরে বাইরে এ সার্ভিস চলাচল করে। ঢাকাসহ দেশের সব বিভাগীয় শহরেই এ ধরনের বাসের যথেষ্ট চাহিদা ও জনপ্রিয়তা রয়েছে। এমন বাস্তবতা থেকেই এবার দেশের পর্যটন শিল্পকে আকর্ষণীয় করে তোলার জন্য এবারই প্রথম অত্যাধুনিক ট্যুরিস্ট বাস কিনতে যাচ্ছে সরকার। এ ছয়টি বাস কিনতে সম্ভাব্য খরচ ধরা হয়েছে ১৯ কোটি ২০ লাখ টাকা। প্রতিটি বাসের মূল্য হতে পারে সোয়া তিন কোটি টাকার মতো।

জানা গেছে, দৃষ্টিনন্দন এ সব দ্বিতল বাসের ছাদ থাকবে খোলা। থাকবে দীর্ঘসময় চলাচলের অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা। শুধু ওয়াইফাই নয়- থাকবে সীমিতাকারে টয়লেট সুবিধাও। আসন থাকবে ৪০ থেকে ৪৫ জনের। পর্যটকদের জন্য ছাদখোলা বাস কেনার প্রকল্পটি বর্তমানে পরিকল্পনামন্ত্রীর অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে। প্রকল্প ব্যয় ৫০ কোটি টাকার নিচে হওয়ায় এটি পরিকল্পনামন্ত্রী নিজ ক্ষমতাবলে অনুমোদন করতে পারবেন।

টোয়াব জানিয়েছে, পর্যটন কর্পোরেশননের বাস কেনার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন থাকলেও ইতোমধ্যে একটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠান এ ধরনের বাস সার্ভিস চালু করে দিয়েছে। যা ক্রমেই জনপ্রিয় হয়ে ওঠছে। গত জানুয়ারিতে একটি ৪৮ আসনের ছাদখোলা এই বাসটি কক্সবাজার সৈকত এলাকায় চালু করা হয়েছে। এটি প্রতিদিন সকাল ৯টায় কক্সবাজারের কলাতলী থেকে মেরিন ড্রাইভ সড়ক ধরে টেকনাফ পর্যন্ত চলাচল করছে। এছাড়া বান্দরবানেও চালু করা হয়েছে একই ধরনের বিশেষ বাস সার্ভিস। এখানে ভ্রমণে আসা পর্যটকদের বিনোদনের জন্য বান্দরবান সদরের স্বনামধন্য হোটেল হিলভিউ-এটি চালু করে। এই সার্ভিসের মাধ্যমে এখন থেকে বান্দরবান ভ্রমণে আসা পর্যটকরা বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্রে স্বাচ্ছন্দ্যে ভ্রমণ করতে পারবেন। পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি ফিতা কেটে হোটেল হিলভিউ-এর ট্যুরিস্ট বাসের উদ্বোধন করেন। এ সময় পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বলেন- পর্যটন জেলা বান্দরবান আজ থেকে আরও এক ধাপ এগিয়ে গেল। বান্দরবানে এখন থেকে পর্যটকরা এসি ও নন এসি দুইটি বাসের মাধ্যমে জেলার সব বিনোদন কেন্দ্রে ভ্রমণ করতে পারবেন। এই বাস ভ্রমণে পর্যটকরা যেমন নিরাপত্তা পাবে- তেমনি পাবে স্বল্পমূল্যে ভ্রমণের সুযোগ। অনুষ্ঠানে মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি, জেলা প্রশাসক দাউদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার জেরিন আখতার, পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য কাজল কান্তি দাশ, পৌরমেয়র মোহাম্মদ ইসলাম বেবী, বান্দরবান পরিবহন মালিক শ্রমিক সমন্বয় পরিষদের সভাপতি আবদুল কুদ্দুছ, সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা হাবিবুল হাসান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পর্যটন কর্পোরেশন চেয়ারম্যান রামচন্দ্র দাস বলেন, ‘আমরা প্রাথমিকভাবে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিভাগীয় শহরে এ ধরনের বাস চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তারপর পর্যায়ক্রমে জেলাগুলোতে চলাচল উপযোগী বাস চালুর ব্যবস্থা নেয়া হবে। এগুলো নিয়ে আরও কাজ চলছে। বিশেষ করে করোনা মহামারীর মাঝে স্বাস্থ্যবিধি মেনে যাতে পর্যটকরা নিরাপদে চলাচল করতে পারেন সে সুবিধাও থাকবে এ সব বাসে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সারাদেশে বর্তমানে পর্যটনের নিজস্ব ৪৫টি হোটেল মোটেল রয়েছে। সেগুলোতে বাস সার্ভিসের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। এসব বিষয় নিয়েও কাজ চলছে। পরিকল্পনা রয়েছে অন্যান্য সেবামূলক উদ্যোগ নেয়া। 

এদিকে পর্যটন বাসের চলাচল সম্পর্কে পর্যটন কর্পোরেশন জানিয়েছে, ট্যুরিস্ট বাস চলাচল করবে সুনির্দিষ্ট কিছু নিয়ম কানুন মেনে। ভ্রমণপিপাসু পর্যটকরা সকালে নির্দিষ্ট এলাকা থেকে বাসে উঠবেন। সারাদিন বিভিন্ন দর্শনীয় এলাকা ঘুরে আবার আগের জায়গায় নেমে যাবেন। তারা এজন্য নির্ধারিত ভাড়া পরিশোধ করবেন। বাসগুলো রাজধানীর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হল, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার, লালবাগ কেল্লা, আহসান মঞ্জিল, বলধা গার্ডেন, বোটানিক্যাল গার্ডেন, জাতীয় সংসদ ভবন, সাভার স্মৃতিসৌধ, সোনারগাঁয়ের পানাম নগর, কারুপল্লীসহ বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানে ঘুরবে। একইভাবে কক্সবাজার জেলায় কলাতলী থেকে মেরিন ড্রাইভ সড়ক হয়ে টেকনাফসহ বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানে যাবে এসব বাস। সিলেট বিভাগের চারটি জেলায় চাবাগান, হাওড়, জমিদারবাড়ি, মাধবকুণ্ড জলপ্রপাতসহ আকর্ষণীয় পর্যটন কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হবে পর্যটকদের। এ ছাড়াও দেশের অন্য দর্শনীয় এলাকাতেও এসব বাস চলাচল করবে। তবে বর্ষাকালে এসব বাসের ছাদ খোলা রাখা যাবে কিনা কিংবা সে সময় কিভাবে তা চালু রাখা হবে- সেগুলো নিয়েও নেতিবাচক মতামত থাকলেও এ সার্ভিস কখনই বন্ধ রাখা হবেনা বিকল্প ব্যবস্থায় হলেও এটা চালু রাখা হবে।

বাংলার উন্নয়ন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • করোনা ভ্যাকসিনঃ কোন ধাপে কারা টিকা পাবেন?

  • করোনা মোকাবিলায় ২৭০০ কোটি টাকার দুই প্যাকেজ অনুমোদন

  • বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাওয়ার এক যুগ

  • বইমেলা হবে মাঠেই 

  • পাহাড়বাসীর দুর্ভোগ লাঘবে বিকল্প সড়ক নির্মাণে নেমেছে সেনাবাহিনী

  • করোনা মহামারির মাঝেও দেশের সর্বোচ্চ রেমিট্যান্সের রেকর্ড

  • রফতানিমুখী শিল্পখাতের আধুনিকায়নে হাজার কোটির তহবিল

  • জুলাই-ডিসেম্বরে রেমিটেন্স বেড়েছে ৩৮ শতাংশ

  • জনগণের কাছে সরকারি সেবা পৌঁছানোই ডিজিটাল বাংলাদেশের মূল দর্শন

  • গাইবান্ধায় ৮৪৬ ভূমিহীন পরিবার পাচ্ছে শেখ হাসিনার উপহার

  • সম্মিলিতভাবে কাজ করলে দারিদ্র্য থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী

  • সবুজ শিল্পবিপ্লব, কর্মসংস্থান হবে ১৫ লাখ

  • বঙ্গভ্যাক্সের ট্রায়ালের অনুমতি চেয়ে আবেদন গ্লোব বায়োটেকের

  • শেখ হাসিনার সাহসী নেতৃত্বে উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রার বিজয় হয়েছে: কাদের

  • করোনা মোকাবিলায় সরকারের আরো ২ হাজার ৭০০ কোটি টাকার প্রণোদনা 

  • শেখ হাসিনার মতো অতীতে কেউ এত উন্নয়ন করেননি: প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

  • শিশুরা যেন চলচ্চিত্র থেকে অনুপ্রেরণা পায়: প্রধানমন্ত্রী

  • বাইডেনের শপথ কেন্দ্র করে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে সতর্কতা

  • চলচ্চিত্রের স্বর্ণালী দিন ফেরাতে বিশেষ তহবিল গঠন: তথ্যমন্ত্রী

  • বইমেলার তারিখ নির্ধারণ হয়নি: প্রতিমন্ত্রী

  • জঙ্গিবাদের মূলোৎপাটন করা হবে: আইজিপি

  • চলচ্চিত্রকে বিশ্ব দরবারে নিয়ে যেতে হবে: প্রধানমন্ত্রী 

  • বিজয়ীরা নিলেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার

  • ভারতে ভ্যাকসিন নিয়ে ৫২ জনের দেহে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

  • নিরবের নায়িকা হচ্ছে স্পর্শিয়া

  • বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রীর স্ত্রী আর নেই

  • মহামারি মোকাবিলা করে দেশের অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রা অব্যাহত রয়েছে

  • ভারতের পরই বাংলাদেশ ভ্যাকসিন পাবে: দোরাইস্বামী

  • শেখ হাসিনা উন্নয়নবান্ধব সরকার প্রধান: রেজাউল করিম

  • উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট দিয়েছে জনগণ: কাদের

  • রাজধানীতে যানজট নিরসনে নির্মাণ হচ্ছে ১৫টি ‘রেডিয়াল রোড’ 

  • করোনার টিকা আসছে ২৫ জানুয়ারির মধ্যে

  • বিদেশে রপ্তানি হচ্ছে যশোরের বাঁধাকপি 

  • দেশে মাসে ২৫ লাখ মানুষকে টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা সরকারের

  • দেশের প্রথম মহাকাশ অবলোকন কেন্দ্র ফরিদপুরে

  • মুজিববর্ষে দেশের কোনো মানুষ গৃহহীন থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী 

  • ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের জন্য নতুন তহবিল

  • বিমান বহরে যুক্ত হচ্ছে নতুন ২টি উড়োজাহাজ

  • দেশের লবণশিল্পকে আরও সমৃদ্ধ করতে স্বল্পসুদে ঋণ দিচ্ছে সরকার

  • মাত্র এক যুগেই দেশকে বদলে দিয়েছে সরকার

  • বঙ্গবন্ধুর প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ উপলক্ষে স্মারক ডাকটিকিট

  • করোনা প্রতিরোধী নাকের স্প্রে তৈরি করলো বাংলাদেশি বিজ্ঞানীরা

  • ২০২৩ সালেই উৎপাদনে আসছে পটুয়াখালী তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র

  • বঙ্গবন্ধুর নামে ৪ দেশে ৫ স্কুল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ

  • দেশের প্রথম সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় দুগ্ধ খামার রংপুরে

  • বাহরাইন দূতাবাসের বঙ্গবন্ধু কর্নার উদ্বোধন

  • একটি সিদ্ধান্তই বাংলাদেশের ভাবমূর্তি পরিবর্তন করে দিয়েছে

  • বারোমাসী আম বাগান করে স্বাবলম্বী গাইবান্ধার তিন তরুণ

  • মানিকগঞ্জে গৃহহীন ১১৫ পরিবার পাচ্ছে স্বপ্নের ঠিকানা

  • ‘ভারতীয় রেলের চেয়ে উন্নত হবে বাংলাদেশের রেলওয়ে’

  • ভাঙ্গায় হচ্ছে দেশের প্রথম মহাকাশ অবলোকন কেন্দ্র

  • তিনি তো ফিরে আসবেনই

  • বাংলাদেশকে এখন সারাবিশ্ব সম্মান করে: প্রধানমন্ত্রী

  • এখন থেকে মুঠোফোনে পৌছে যাবে সকল ভাতা-বৃত্তির টাকা

  • আওয়ামী লীগ সরকারে আছে বলেই দেশ স্বনির্ভর ও উন্নত হয়ে গড়ে উঠছে

  • লালমনিরহাটে বিমান তৈরি করা হবে : প্রধানমন্ত্রী

  • অভিযোগ জানাতে নগরবাসী পেল ‘সবার ঢাকা’ অ্যাপ

  • প্রধানমন্ত্রীর দোয়া নিলেন বঙ্গবন্ধু সিনেমার তারকারা

  • মায়ের চরিত্রে দীঘিকে ভালোভাবে অভিনয় করতে বললেন প্রধানমন্ত্রী

  • সংগঠন গড়ার জন্য বঙ্গবন্ধু মন্ত্রিত্ব ছেড়ে দিয়েছিলেন: শেখ হাসিনা