মঙ্গলবার   ১৪ জুলাই ২০২০

ব্রেকিং:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ খালেদার অনুপস্থিতিতেই কারাগারে বিচার চলবে রব ও মান্নার বিয়ে যুক্তফ্রন্টে, পরকীয়া ঐক্যফ্রন্টে: মাহী এটা জোট নয়, ঘোট : তথ্যমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় পেলেন সিনহা আবারও সরকার গঠনে নৌকায় ভোট দেয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর পদ্মা সেতু প্রকল্পের নামফলক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী
১১৮

জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহেই বিদ্যুতের মূল্য বাড়ার শঙ্কা

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৭ নভেম্বর ২০১৯  

জানুয়ারির শুরুতেই বিদ্যুতের মূল্য বাড়ার শঙ্কা রয়েছে বলে জানা গেছে। এবার বিদ্যুতের মূল্য বাড়ানোর প্রস্তাবের ওপর ২৮ নভেম্বর থেকে গণশুনানি শুরু করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)। পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে বিদ্যুতের মূল্য বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে বিতরণ কোম্পানিগুলো। এর ফলে বর্ধিত মূল্য দিয়ে নববর্ষ শুরুর শঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা। এর আগে, চলতি বছরের শুরুর ‍দিকে গ্যাসের মূল্য বাড়িয়েছিল কমিশন।

বিদ্যুতের মূল্য বাড়ানোর প্রস্তাবে পিডিবি বলছে, ২০২০ সালে বিদ্যুৎ বিক্রি করে আয় হতে পারে ৩৬ হাজার ৬০০ কোটি টাকা। কিন্তু ওই সময় প্রয়োজন হবে ৪৫ হাজার ২০৮ কোটি টাকা। ফলে বাকি আট হাজার ৬০৮ কোটি টাকা পূরণের জন্য মূল্য সমন্বয় করতে কমিশনকে অনুরোধ করে পিডিবি।

অন্যদিকে, ক্যাপাসিটি পেমেন্টের যে হিসাব, তাতে বলা হচ্ছে, ২০২০ সালে ২০ হাজার ৩১ কোটি টাকা হবে সম্ভাব্য ক্যাপাসিটি পেমেন্ট। পিডিবি আগামী বছরজুড়ে বিদ্যুৎ উৎপাদনে সম্ভাব্য ঘাটতি দেখিয়েছে আট হাজার ৬০৮ কোটি টাকা। অর্থাৎ ক্যাপাসিটি পেমেন্ট কিছুটা কমানো গেলেই বিদ্যুতের মূল্য বাড়াতে হবে বলেও পিডিবি যুক্তি দেখিয়েছে।

পিডিবি সূত্র জানায়, যত দিন যাচ্ছে, ততই বাড়ছে ক্যাপাসিটি চার্জ। সরকার বারবার বড় ও সাশ্রয়ী বিদ্যুৎকেন্দ্রের কথা বললেও এখন পর্যন্ত সেগুলো উৎপাদনে আসেনি। ফলে এখনও ব্যয়বহুল তেলভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের ওপরই নির্ভরশীল দেশের বিদ্যুৎ খাত। এই কারণে প্রতিবছর বাড়ছে ক্যাপাসিটি চার্জ।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সরকারের সাশ্রয়ী ও বড় বিদ্যুৎকেন্দ্র আনতে যে পরিকল্পনা করা হয়েছিল, তা সুনির্দিষ্ট ও সঠিক ছিল না। তাই প্রতিবছর এই চার্জ বাড়ছে। নভেম্বরেই পায়রার কয়লাভিত্তিক ১৩০০ মেগাওয়াট ক্ষমতার বিদ্যুৎকেন্দ্রটি উৎপাদনে আসার কথা ছিল। কিন্তু সঞ্চালন লাইন একই সময়ে কাজ শেষ করতে না পারায় প্রথমে ডিসেম্বর মাসের কথা বলা হলেও এখন বলা হচ্ছে জানুয়ারিতে হতে পারে। একইভাবে পিছিয়ে পড়েছে অন্য বড় বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর কাজও। অন্যদিকে, এই চার্জের দোহাই দিয়েই প্রতিবছর বাড়ানো হচ্ছে বিদ্যুতের মূল্য।

২০১৭ সালে সর্বশেষ বিদ্যুতের মূল্য বাড়ানো হয়। এরপর দুই বছরের মাথায় এসে আবারও মূল্য বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। তবে, এভাবে বিদ্যুতের মূল্য বাড়ানোর বিরোধিতা করছেন জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, বিদ্যুতের এই ক্যাপাসিটি চার্জের দায় পুরোপুরি সরকারের। কিন্তু সরকার বিদ্যুতের মূল্য বাড়িয়ে পুরো দায় সাধারণ মানুষের ঘাড়ে চাপাচ্ছে, যা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয় বলেও মনে করছেন তারা।

বিদ্যুৎ বিভাগ জানায়, ২০১৪ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত পাঁচ বছরে সরকার বিদ্যুৎ খাতে ক্যাপাসিটি চার্জ বাবদ ৪৫ হাজার ৯৪৭ কোটি টাকা দিয়েছে। এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি দিয়েছে ২০১৮ সালে। এছাড়া, চলতি বছর ও আগামী বছরের সম্ভাব্য হিসাব আরও বেশি বলে জানা গেছে।

সূত্র জানায়, ২০১৪ সালে বিদ্যুতের মূল্য বাবদ ৭ হাজার ৫৩৪ কোটি টাকা ক্যাপাসিটি চার্জ দিয়েছে সরকার। ২০১৫ সালে এসে সেই চার্জ ৭ হাজার ৫৬০ কোটি টাকা দিতে হয়। এরপর ২০১৬ সালে তা আরও বেড়ে দাঁড়ায় ৮ হাজার ৬৪৩ কোটি টাকায়। ২০১৭ সালে আরও বেড়ে হয় ১০ হাজার ১০ কোটি টাকা। ২০১৮ সালে বেড়ে হয় ১২ হাজার ২০০ কোটি টাকা। এরপর ২০১৯ সালে ক্যাপাসিটি চার্জ ধরা হয়েছে ১৫ হাজার ৫১৫ কোটি টাকা, যা ২০২০ সালে ২০ হাজার ৩১ কোটি টাকা হবে বলে সম্ভাব্য পরিকল্পনা করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বুয়েটের অধ্যাপক ড. ইজাজ হোসেন বলেন, ‘অপরিকল্পিতভাবে উৎপাদনের ফলে বাড়ছে বিদ্যুতের খরচ। বড় বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো ঠিক সময়ে না আসার কারণ খতিয়ে দেখা প্রয়োজন।’ তিনি বলেন, ‘সরকারের উচিত সঠিক পরিকল্পনার মাধ্যমে দরকার হলে বিদ্যুতের মহাপরিকল্পনা আবারও পর্যালোচনা করে বড় ও সাশ্রয়ী বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিষয়ে মনোযোগী হওয়া। না হলে ভবিষ্যতেও ক্যাপাসিটি চার্জ বাড়তেই থাকবে। পাশাপাশি, বিদ্যুতের মূল্য বাড়ানোর প্রস্তাবও আসতে থাকবে।’

এদিকে, সম্প্রতি এক অনুষ্ঠান শেষে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদের কাছে বিদ্যুতের দামের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘পিডিবি সরকারের ভর্তুকি থেকে বের হয়ে আসতে চাইছে। এজন্য তারা বিইআরসির কাছে প্রস্তাব দিয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘ভর্তুকি কমাতে হলে বিদ্যুতের দামের বিষয়টি সামনে চলেই আসবে। কোম্পানিগুলো কমিশনের কাছে প্রস্তাব দিয়েছে। এখন কমিশন সহনীয় পর্যায়ে রেখে মূল্য সমন্বয় করবে বলে সরকার আশা করছে।’

বিদ্যুতের মূল্য বাড়ানোর পক্ষে যুক্তি দিয়েছেন জ্বালানি বিশেষজ্ঞ ড. ম. তামিম। তিনি বলেন, ‘দুই বছর আগে বিদ্যুতের মূল্য বেড়েছে। এই দুই বছরে মূল্যস্ফীতি বিবেচনা করলেই বিদ্যুতের মূল্য বাড়াতে হয়।’ তিনি বলেন, ‘তেলভিত্তিক ছোট বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো যতদিন থাকবে, ততদিন ক্যাপাসিটি চার্জ বাড়তেই থাকবে। বড় ও সাশ্রয়ী বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো উৎপাদনে এলে মূল্য কমে আসবে।’ ভবিষ্যতের কথা বিবেচনা করে বিদ্যুতের মূল্য এখন মেনে নিতেই হবে বলেও মনে করেন তিনি।

অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • মুজিব শতবর্ষ ঘিরে ১০০ নদীর তীরে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি

  • পঞ্চগড়ের ১৭০০ ছাত্রী পাচ্ছে বাইসাইকেল

  • রেলওয়েতে ১০টি ব্রডগেজ ইঞ্জিন উপহার দিল ভারত

  • বাড়ছে পোশাকের ক্রয়াদেশ

  • খুলনায় হচ্ছে শেখ হাসিনা মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়

  • ঐতিহাসিক ৭ই মার্চকে ‘জাতীয় দিবস’ ঘোষণা

  • করোনা পরীক্ষায় যুক্ত হলো আরও দুটি ল্যাব

  • ভারত-বাংলাদেশ ট্রান্সশিপমেন্টের যাত্রা শুরু

  • অচিরেই বানান-বিতর্কের অবসান ঘটবে : বাংলা একাডেমি

  • বুধবার সমাহিত হবেন এন্ড্রু কিশোর

  • করোনায় সুস্থ রোগীর সংখ্যা লাখ ছাড়াল

  • ৪ থেকে ৬ সপ্তাহে মিলতে পারে করোনার টিকা

  • ফিরলেন ওমানে আটকে পড়া ২৫৪ বাংলাদেশী 

  • বিদেশে রপ্তানি হচ্ছে রাজশাহীর আম

  • এমপিওভুক্ত বেসরকারি শিক্ষকরা ঈদের সাতদিন আগেই বোনাস পাবেন

  • যেখানেই দুর্নীতি, সেখানেই অ্যাকশন: স্বাস্থ্য সচিব

  • ‘অনলাইন পশুর হাটে’ স্বস্তি

  • আরো একটি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে

  • হেলিকপ্টারে ঢাকায় আনা হলো করোনা আক্রান্ত ডা. শফিককে

  • মাটির নিচ দিয়ে যাবে ঢাকার ঝুলন্ত তার

  • স্বাস্থ্যবিধি মেনে পশুর হাট বসবে

  • যশোর-৬ ও বগুড়া-১ আসনে উপনির্বাচন সোমবার

  • করোনায় মৃত ৩৮ জনের লাশ দাফন করলেন যুবলীগ নেতা

  • বাঙালি জাতিসত্তাকে অমর করেছেন বঙ্গবন্ধু

  • অর্ধেক দামে মিলবে কৃষি যন্ত্রপাতি, একনেকে প্রকল্প

  • দলের ভেতরে বর্ণচোরাদের ছাড় দেয়া হবে না : ওবায়দুল কাদের

  • কল সেন্টার ও আউটসোর্সিংয়ে বিনা জামানতে ঋণ দেওয়া হবে

  • ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চার শিক্ষার্থী গুগলে ডাক পেলেন

  • ‘নদীর সীমানা চিহ্নিত জায়গা দখলের দুঃসাহস দেখাবেন না’

  • ঈদে কর্মস্থলে থাকা বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন জারি

  • আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বঙ্গকন্যার যত স্বীকৃতি

  • স্বাভাবিক গতি ফিরছে ছয় মেগা প্রকল্পে

  • আমন বীজে নগদ ভর্তুকি ও বিনামূল্যে সেচ সুবিধা দিচ্ছে সরকার

  • উপবৃত্তির ৪৩৯ কোটি টাকা পাচ্ছে শিক্ষার্থীরা

  • ‘করোনায় মারা যাওয়া প্রবাসীর পরিবারকে ৩ লাখ টাকা অনুদান’

  • করোনা মোকাবিলায় মানবিক ছাত্রলীগ

  • প্রাকৃতিক দুর্যোগে মানবিক সহায়তা হিসেবে ১০,৯০০ টন চাল বরাদ্দ

  • ১৬ বছর বয়সীরাও পাবে এনআইডি কার্ড

  • করোনা সংকটেও রপ্তানি বেড়েছে ১৬ পণ্যে

  • বাবা বলতেন যখন আমি থাকব না তখন পড়িস: শেখ হাসিনা

  • বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিকরাই মাঠে গিয়ে কাজ করে: প্রধানমন্ত্রী 

  • ভরা মৌসুমের শুরুতেই জেলেদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ

  • বাংলাদেশে করোনার প্রকোপ কমে আসছে: জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়

  • অর্থবছর শুরুর নয়দিনেই ৭৫ কোটি ডলার রেমিট্যান্স

  • ও‌সিদের ক‌ঠোর বার্তা দি‌লেন আই‌জি‌পি

  • করোনা: ইউরোপ-আমেরিকা যা পারেনি, শেখ হাসিনা তা পেরেছেন

  • এবার দেশেই তৈরি প্রাইভেটকার!

  • মাইক্রোসফটের পুরস্কার পেলেন বাংলাদেশি দুই গবেষক

  • ট্রেনে মাত্র ১৫০০ টাকায় গরু আনা যাবে ঢাকায়

  • করোনা জয় করেই বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে : প্রধানমন্ত্রী

  • সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন আর নেই

  • উপবৃত্তির ৪৩৯ কোটি টাকা পাচ্ছে শিক্ষার্থীরা

  • সাহারা খাতুনের মরদেহ দেশে পৌঁছেছে, জানাজা সকাল ১১টায়

  • মৌসুমের শুরুতেই জেলেদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ

  • একনেকে প্রকল্প: অর্ধেক দামে মিলবে কৃষি যন্ত্রপাতি 

  • অতিরিক্ত দুই মাসের বেতন পাবেন ডাক্তার-স্বাস্থ্যকর্মীরা

  • স্কুল-কলেজে আশ্রয়কেন্দ্র করার নির্দেশ

  • কল করলেই মিলবে বিনামূল্যের অক্সিজেন সেবা

  • করোনায় মৃত্যুহার কমানোর পরিকল্পনায় সরকার: প্রধানমন্ত্রী

  • বিজিবিতে যুক্ত হলো অত্যাধুনিক যান ‘অল টেরেইন ভেহিক্যাল’