সোমবার   ১৩ জুলাই ২০২০

ব্রেকিং:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ খালেদার অনুপস্থিতিতেই কারাগারে বিচার চলবে রব ও মান্নার বিয়ে যুক্তফ্রন্টে, পরকীয়া ঐক্যফ্রন্টে: মাহী এটা জোট নয়, ঘোট : তথ্যমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় পেলেন সিনহা আবারও সরকার গঠনে নৌকায় ভোট দেয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর পদ্মা সেতু প্রকল্পের নামফলক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী
২১১

এবার স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা জাতীয়করণের উদ্যোগ

ডেস্ক নিউজ

প্রকাশিত: ২ জুন ২০২০  

স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা শিক্ষকদের দীর্ঘ ৩৬ বছরের বঞ্চনার অবসান হচ্ছে। প্রাথমিকের মর্যাদায় জাতীয়করণের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ এ লক্ষ্যে কাজ করছে।

এ ব্যাপারে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মুনশী শাহাবুদ্দীন আহমেদ বলেন, এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান মূল ধারায় আনতে হবে। তাই জাতীয়করণ করা যায় কিনা সে বিষয় ভাবা হচ্ছে। আমরা চেষ্টা করছি। তবে প্রক্রিয়ার বিষয় রয়েছে। আমাদের তথ্য প্রয়োজন। জেলা প্রশাসন ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের মাধ্যমে কিছু তথ্য এনেছি। এই লক্ষ্যে (জাতীয়করণ) কাজ করছি।’

শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, দেশের ৪ হাজার ৩১২টি স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা বেতন কাঠামোর আওতায় নেওয়ার প্রক্রিয়া করা হয় গত বছর। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে নিবন্ধিত ও সরকারি অনুদান পাওয়া প্রতিষ্ঠান রয়েছে ১ হাজার ৫১৯টি। তবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ জরিপে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসার অস্তিত্ব পাওয়া গেছে সাড়ে তিন হাজারের মতো।

গত বছরের ৯ মে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পরিসংখ্যান তুলে ধরে এমপিওভুক্তির জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সারাংশ পাঠায় কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ। কিন্তু স্কুল-কলেজসহ কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নতুন এমপিওভুক্তির সুযোগ পেলেও স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি প্রতিষ্ঠান তা পায়নি।

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, দেশের প্রাথমিক শিক্ষা বাধ্যতামূলক। স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি শিক্ষাকে মূল ধারার বাইরে রাখতে চান না প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তাই স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসাগুলোকে প্রাথমিকের সমান মর্যাদায় জাতীয়করণ করার লক্ষ্যে কাজ করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ। গত বছর দেশের সব স্বতন্ত্র মাদ্রাসার তালিকা তৈরি এবং কতজন শিক্ষক কাজ করেন তার তথ্য সংগ্রহ করা হয়। সেই তথ্য আবার যাচাই-বাছাই করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

সর্বশেষ দেশের প্রাথমিক স্তরের স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা স্থাপন, স্বীকৃতি, পরিচালনা, জনবল কাঠামো এবং বেতন-ভাতা/অনুদান সংক্রান্ত নীতিমালা ২০১৮ সালের ১৮ নভেম্বর জারি করে সরকার। নীতিমালায় স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা শিক্ষকদের প্রাথমিক শিক্ষকের সমান মর্যাদা দেওয়া হয়। নীতিমালা অনুযায়ী ইবতেদায়ি মাদ্রাসায় প্রধানসহ ৫ জন শিক্ষক থাকবেন। এদের মধ্যে একজন ইবতেদায়ি প্রধান, দুই জন ইবতেদায়ি সহকারী শিক্ষক, একজন সহকারী শিক্ষক (বিজ্ঞান) এবং একজন ইবতেদায়ি ক্বারি শিক্ষক। ইবতেদায়ি প্রধান ১১তম গ্রেডে বেতন পাবেন। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের (প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত) বেতন গ্রেড ১১তম। তবে নীতিমালা অনুযায়ী ইবতেদায়ি সহকারী এবং ক্বারি শিক্ষক বেতন পাবেন ১৬তম গ্রেডে। বর্তমানে নিবন্ধিত ইবতেদায়ি প্রধান শিক্ষকরা দুই হাজার ৫শ’ টাকা এবং সহকারী শিক্ষকরা দুই হাজার ৩০০ টাকা সরকারি অনুদান পাচ্ছেন।

মন্ত্রণালয়ের আগের হিসাব অনুযায়ী দেশে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা মোট ৪ হাজার ৩১২টি। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো প্রস্তাব অনুযায়ী দেশের স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসার মোট ৪ হাজার ৩১২টি প্রতিষ্ঠানের বেতন-ভাতা দিতে প্রতি বছর সরকারের ব্যয় হবে ৩১০ কোটি ৯৭ লাখ ৭১ হাজার ২৮০ টাকা। মোট প্রতিষ্ঠানের মধ্যে নিবন্ধিত সরকারি অনুদান পাওয়া প্রতিষ্ঠান এক হাজার ৫১৯টি। এসব মাদ্রাসা এমপিওভুক্ত করলে সরকারের ব্যয় হবে ১০৯ কোটি ৫৪ লাখ ৮৭ হাজার ৬১০ টাকা। আর অনুমোদনহীন ও বিনা অনুদানের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে ২ হাজার ৭৯৩টি। এসব প্রতিষ্ঠানের জন্য প্রতিবছর ব্যয় হবে ২০১ কোটি ৪২ লাখ ৮৩ হাজার ৬৭০ টাকা।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকরা বর্তমানে ১২তম গ্রেডে বেতন পাচ্ছেন। আর সহকারী শিক্ষকরা বেতন পাচ্ছেন ১৩তম গ্রেডে। সেই হিসেবে দেশের স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মোট ৪ হাজার ৩১২টি মাদ্রাসার চার জন করে শিক্ষক ধরে বেতন-ভাতা বাবদ ব্যয় হবে ৪০০ কোটি ৫ লাখ ২০ হাজার ১২০ টাকা। মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ জরিপ অনুযায়ী, বর্তমানে দেশে সাড়ে তিন হাজারে মতো স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা রয়েছে। এসব মাদ্রাসা জাতীয়করণ করা হলে বেতন-ভাতা বাবদ সরকারে প্রতি বছর ব্যয় হবে ৩২৫ কোটি ৯৭ হাজার ৫০০ টাকা।

বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা শিক্ষক পরিষদের সভাপতি এস এম জয়নুল আবেদীন জেহাদী জানান, ২০১৮ সালের জনবল কাঠামো অনুযায়ী সব প্রতিষ্ঠানে চার জন করে শিক্ষক নেওয়া হয়। অনেক প্রতিষ্ঠান চলছে তিন জন দিয়ে। সেক্ষেত্রে জাতীয়করণ করা হলে শুরুতে ব্যয় ৩০০ কোটির বেশি প্রয়োজন হবে না।

এস এম জয়নুল আবেদীন জেহাদী তাদের দাবি তুলে ধরে বলেন, ‘জাতীয়করণ না হওয়া পর্যন্ত চলতি বাজেটের বরাদ্দ ৩১১ কোটি টাকা সমন্বয় করে শিক্ষকদের বেতন দিতে হবে। আগামী বাজেটে জাতীয়করণের জন্য প্রয়োজনীয় বরাদ্দ রাখতে হবে। ২০১৮ সালের নীতিমালা জারি হওয়ার আগে ২০১৪ সালে শূন্যপদে নিয়োগ পাওয়া শিক্ষকের বিদ্যমান নিয়মে বেতন ভাতা দিতে হবে।’

আরও পড়ুন
শিক্ষা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • করোনা মোকাবিলায় ২ লাখ ১১ হাজার মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ

  • একনেকে প্রকল্প: অর্ধেক দামে মিলবে কৃষি যন্ত্রপাতি 

  • ঈদে সরকারি চাল পাচ্ছে ১ কোটি পরিবার

  • যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বাবুল আর নেই

  • পাকিস্তানে জঙ্গিদের সঙ্গে সংঘর্ষে ৪ সৈন্য নিহত

  • নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষা কেন কমেছে, ব্যাখ্যা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের

  • করোনা: ইউরোপ-আমেরিকা যা পারেনি, শেখ হাসিনা তা পেরেছেন

  • ডা. সাবরিনা ৩ দিনের রিমান্ডে

  • করোনা মোকাবিলায় মানবিক ছাত্রলীগ

  • স্বাভাবিক গতি ফিরছে ছয় মেগা প্রকল্পে

  • সরকারি কাজে ই-নথি ব্যবহারে গতি এসেছে

  • বঙ্গকন্যা ব্যবসায়ীদের যে সুযোগ-সুবিধা দিয়েছেন, অন্যকেউ তা দেয়নি

  • প্রধানমন্ত্রীর সাথে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করে করোনা যুদ্ধে জয়ী হতে হবে

  • করোনার লাগাম এখনো টেনে ধরা সম্ভব: ডব্লিউএইচও

  • এবারো ঈদগাহে ঈদের জামাত নয়

  • বিদেশ যেতে বাধ্যতামূলক হলো করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট

  • ঈদ নিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সভায় যেসব সিদ্ধান্ত

  • অর্থবছর শুরুর নয়দিনেই ৭৫ কোটি ডলার রেমিটেন্স

  • ১৬ জুলাই কোটি বৃক্ষরোপণের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

  • বিএনপি দুর্নীতিকে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দিয়েছে : কাদের

  • আমিরাতে যেতে নির্ধারিত ল্যাবেই করোনা টেস্ট

  • জেকেজির প্রতারণা : ডা. সাবরিনা পুলিশ হেফাজতে

  • জয়া-ঐশ্বরিয়া-আরাধ্যা করোনা নেগেটিভ

  • দাম্মাম থেকে ফিরলেন ৪১২ বাংলাদেশি

  • স্কুল-কলেজে আশ্রয়কেন্দ্র করার নির্দেশ

  • হালদায় পোনা উৎপাদনে এবার রেকর্ড সাফল্য

  • বন্যা মোকাবিলায় মাঠে ডিসিরা

  • ইতালি ফেরত ১৪৭ বাংলাদেশি হজ ক্যাম্পে কোয়ারেন্টিনে

  • মদনে প্রাকৃতিক গ্যাসের সন্ধান

  • চামড়া কিনতে ব্যবসায়ীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ঋণ দেয়ার নির্দেশ

  • আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বঙ্গকন্যার যত স্বীকৃতি

  • ১ আগস্ট ঈদ হলে বেশি বোনাস

  • আমন বীজে নগদ ভর্তুকি ও বিনামূল্যে সেচ সুবিধা দিচ্ছে সরকার

  • পুরোদমে চলছে সব মেগা প্রকল্পের কাজ

  • উপবৃত্তির ৪৩৯ কোটি টাকা পাচ্ছে শিক্ষার্থীরা

  • ‘করোনায় মারা যাওয়া প্রবাসীর পরিবারকে ৩ লাখ টাকা অনুদান’

  • প্রাকৃতিক দুর্যোগে মানবিক সহায়তা হিসেবে ১০,৯০০ টন চাল বরাদ্দ

  • ১৬ বছর বয়সীরাও পাবে এনআইডি কার্ড

  • করোনা সংকটেও রপ্তানি বেড়েছে ১৬ পণ্যে

  • বাবা বলতেন যখন আমি থাকব না তখন পড়িস: শেখ হাসিনা

  • বড় নিয়োগ আসছে প্রাথমিকে

  • ভরা মৌসুমের শুরুতেই জেলেদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ

  • বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিকরাই মাঠে গিয়ে কাজ করে: প্রধানমন্ত্রী 

  • বাংলাদেশে করোনার প্রকোপ কমে আসছে: জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়

  • স্বাভাবিক গতি ফিরছে ছয় মেগা প্রকল্পে

  • মাইক্রোসফটের পুরস্কার পেলেন বাংলাদেশি দুই গবেষক

  • ও‌সিদের ক‌ঠোর বার্তা দি‌লেন আই‌জি‌পি

  • এবার দেশেই তৈরি প্রাইভেটকার!

  • ট্রেনে মাত্র ১৫০০ টাকায় গরু আনা যাবে ঢাকায়

  • করোনা মোকাবিলায় মানবিক ছাত্রলীগ

  • করোনা জয় করেই বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে : প্রধানমন্ত্রী

  • উপবৃত্তির ৪৩৯ কোটি টাকা পাচ্ছে শিক্ষার্থীরা

  • একনেকে ২৭৪৪ কোটি টাকার ৯ প্রকল্প অনুমোদন

  • সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন আর নেই

  • সাহারা খাতুনের মরদেহ দেশে পৌঁছেছে, জানাজা সকাল ১১টায়

  • সাত দিনে কমেছে ১১ পণ্যের দাম

  • অতিরিক্ত দুই মাসের বেতন পাবেন ডাক্তার-স্বাস্থ্যকর্মীরা

  • কল করলেই মিলবে বিনামূল্যের অক্সিজেন সেবা

  • স্কুল-কলেজে আশ্রয়কেন্দ্র করার নির্দেশ

  • মৌসুমের শুরুতেই জেলেদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ