সোমবার   ১৩ জুলাই ২০২০

ব্রেকিং:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ খালেদার অনুপস্থিতিতেই কারাগারে বিচার চলবে রব ও মান্নার বিয়ে যুক্তফ্রন্টে, পরকীয়া ঐক্যফ্রন্টে: মাহী এটা জোট নয়, ঘোট : তথ্যমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় পেলেন সিনহা আবারও সরকার গঠনে নৌকায় ভোট দেয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর পদ্মা সেতু প্রকল্পের নামফলক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী
৩০১

আম্ফান-কাল বৈশাখীর ক্ষতিতেও পূরণ হবে বোরোর লক্ষ্যমাত্রা

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৩০ মে ২০২০  

করোনার প্রাদুর্ভাব এবং সুপার সাইক্লোন আম্ফানের আঘাত ও কাল বৈশাখীতে দেশব্যাপী বোরো ধানের ক্ষতি হলেও জাতীয় উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রায় কোনো প্রভাব ফেলবে না। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সরকার নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী ২০১৯-২০ অর্থ বছরে উৎপাদিত বোরো ধানে ২ কোটি ৪ লাখ ৩০ হাজার টন চাল উৎপাদন হবে। এ বছর মোট ৪৭ লাখ ৫৪ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ করা হয়েছে।

তারা বলছেন- ঝড়, বৃষ্টি, সাইক্লোনসহ বিভিন্ন দুর্যোগে যে ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, তা বাদ দিয়েই লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়। সুতরাং করোনা, আম্ফান ও কাল বৈশাখীতে দেশব্যাপী বোরো ধানের যে ক্ষতি হয়েছে, এটা না হলে সেটা হতো লক্ষ্যমাত্রার অতিরিক্ত। তাই তারা জোর দিয়েই বলছেন, সরকার বোরো ধানের চালের যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছেন তা পূরণ হবে।

আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার ধান চাষিদের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, সুপার সাইক্লোন আম্ফান আসার আগে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর থেকে নোটিশ করা হয়। সেখানে বলা হয়, সেসব জমির ৮০ ভাগ ধান পেকে গেছে, সেগুলো কেটে ফেলার জন্য। এমন নির্দেশনা পাওয়ার পর, অনেকে ৭০ ভাগ পেকেছে এমন জমির ধানও কেটে ফেলেছেন। আম্ফানের কারণে আগে যারা ধান কেটেছেন সেখানেও ২০ থেকে ৩০ ভাগ ফলন কম হয়েছে। যারা কাটতে পারেননি তাদের শতভাগই পানিতে ডুবে গেছে। এই ক্ষতি এবং এখন কাল বৈশাখীতে ধানের যে ক্ষতি হচ্ছে, তাতে জাতীয় ফলনেও প্রভাব পড়বে। একই সঙ্গে চলতি বোরো মৌসুমে ২ কোটি ৪ লাখ ৩০ হাজার মেট্রিক টন চালের যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে, তা পূরণ হবে কি না সেটা নিয়েও অনেকে সংশয় প্রকাশ করছেন।

তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন ভিন্ন কথা। তারা বলছেন, যেটা ক্ষতি হয়েছে সেটা সারপ্লাস (উদ্বৃত্ত) থেকে হয়েছে। সে কারণে লক্ষ্যমাত্রা পূরণে কোনো অসুবিধা হবে না।

বাংলাদেশ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের তথ্যানুসারে, চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের বোরো মৌসুমে ২ কোটি ৪ লাখ ৩০ হাজার টন চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ৪৭ লাখ ৫৪ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ করা হয়েছে। এবার হাওরের সাত জেলায়- কিশোরগঞ্জ, নেত্রকোনা, সুনামগঞ্জ, সিলেট, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বোরো আবাদ হয়েছে ৯ লাখ ৩৬ হাজার হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে শুধু হাওরেই ৪ লাখ ৪৫ হাজার হেক্টর জমি। হাওর অঞ্চলে বোরো ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে, ৩৭ লাখ ৪৫ হাজার মেট্রিক টন। সারা দেশের মোট উৎপাদনের প্রায় ২০ ভাগের জোগান দেয় হাওর অঞ্চলের বোরো ধান। হাওরের ধান ঘরে ওঠায় লক্ষ্যমাত্রা অনেকটা নিশ্চিত হয়েছে।

আম্ফান আঘাত হানার পরেরদিনই ২১ মে অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘দেশে ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের তাণ্ডবে মোট এক লাখ ৭৬ হাজার ৭ হেক্টর জমির ফসলের ক্ষতি হয়েছে। এর মধ্যে ৪৭ হাজার হেক্টর জমির ধান নষ্ট হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আম্ফানের আগে উপকূলীয় অঞ্চলের ১৭টি জেলার শতকরা ৯৬ ভাগসহ সারা দেশে ইতিমধ্যে ৭২ শতাংশ বোরো ধান কাটা হয়েছে। খুলনা অঞ্চলে প্রায় ৯৬ থেকে ৯৭ ভাগ ধান কাটা হয়। সাতক্ষীরাতেও ৯০ ভাগের বেশি ধান কাটা হয়েছে। পটুয়াখালীরও প্রায় সব ধান কাটা হয়। তবে ভোলাতে ধানের ক্ষতি হয়েছে। এর পরও আমাদের চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রায় কোনো ব্যত্যয় ঘটবে না। খাদ্য ঘাটতিরও কোনো আশঙ্কা নেই।’

আম্ফানে কৃষকের ধানের ক্ষতির বিষয়ে কথা হয় ইমেরিটাস অধ্যাপক ও বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য, পরিকল্পনা কমিশনের সাবেক সদস্য (সচিব) ড. এম এ সাত্তার মন্ডলের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে অনেক কৃষকই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। আবহাওয়া অধিদফতর যে পূর্বাভাস দিয়েছে, তাতে যে সকল কৃষক ধান কেটেছেন তারাও ক্ষতিগ্রস্ত হবে। কারণ প্রতিদিনই দেশের কোনো না কোনো অঞ্চলে কাল বৈশাখী হচ্ছে। আম্ফান এবং কালবৈশাখীর কারণে কৃষকের ধান নষ্ট হলেও খাদ্য ঘাটতির কোনো আশঙ্কা নেই। এতে মোট ফলনে প্রভাব পড়বে ও কৃষক ব্যক্তিগতভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। যেটা আমাদের সারপ্লাস হওয়ার কথা ছিল, সেটা হবে না। সরকার উৎপাদনের যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে সেটাও ঠিক থাকবে।’

বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল এগ্রিকেয়ার গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান ধানের উৎপাদন ও লক্ষ্যমাত্রা প্রসঙ্গে বলেন, ‘ফসল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা যখন নির্ধারণ করা হয় তখন ঝড়, ঝঞ্ঝা, সাইক্লোন, অতিবৃষ্টি, অনাবৃষ্টি এসব ধরেই নির্ধারণ করা হয়। যেহেতু এবার হাওরের ফসলটা পুরোটাই এসেছে, সে কারণে অন্য কোনো ক্ষতি লক্ষ্যমাত্রা পূরণে বড় কোনো সমস্যা করবে না। এবার ধানের উৎপাদন ভালো হয়েছে। সে কারণে সরকার যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে, তা পূরণ হবে।’

তিনি বলেন, ‘কৃষিকে টেকসই করতে হলে বাংলাদেশে কৃষিভিত্তিক শিল্প গড়ে তুলতে হবে। একই সঙ্গে বাংলাদেশে শিল্প গবেষণা প্রতিষ্ঠানও গড়ে তোলা খুবই জরুরি।’

আরেক বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এগ্রিকালচার অ্যান্ড সিড প্রোগ্রামের (সিসিডিবি) কোঅর্ডিনেটর সমীরণ বিশ্বাস বলেন, ‘যে সব এলাকায় সুপার সাইক্লোন আম্ফান আঘাত এনেছে, সে সব এলাকায় ধানের আবাদ খুব বেশি হয় না। যা হয়েছে তার ৯০ থেকে ৯৫ ভাগ ধান আগেই কাটা হয়ে গেছে। আম্ফানে যে ক্ষতি হয়েছে, তা জাতীয় উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রায় কোনো প্রভাব ফেলবে না। এছাড়া খাদ্যে উৎপাদনে বাংলাদেশের স্বয়ংসম্পন্নতায় কোন ব্যত্যয় ঘটাবে না।’

তিনি বলেন, ‘আম্ফানে দক্ষিণাঞ্চলে ধানের তেমন ক্ষতি হয়নি। তবে তরিতরকারিসহ অন্যান্য ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।’

অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • করোনা মোকাবিলায় ২ লাখ ১১ হাজার মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ

  • একনেকে প্রকল্প: অর্ধেক দামে মিলবে কৃষি যন্ত্রপাতি 

  • ঈদে সরকারি চাল পাচ্ছে ১ কোটি পরিবার

  • যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বাবুল আর নেই

  • পাকিস্তানে জঙ্গিদের সঙ্গে সংঘর্ষে ৪ সৈন্য নিহত

  • নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষা কেন কমেছে, ব্যাখ্যা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের

  • করোনা: ইউরোপ-আমেরিকা যা পারেনি, শেখ হাসিনা তা পেরেছেন

  • ডা. সাবরিনা ৩ দিনের রিমান্ডে

  • করোনা মোকাবিলায় মানবিক ছাত্রলীগ

  • স্বাভাবিক গতি ফিরছে ছয় মেগা প্রকল্পে

  • সরকারি কাজে ই-নথি ব্যবহারে গতি এসেছে

  • বঙ্গকন্যা ব্যবসায়ীদের যে সুযোগ-সুবিধা দিয়েছেন, অন্যকেউ তা দেয়নি

  • প্রধানমন্ত্রীর সাথে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করে করোনা যুদ্ধে জয়ী হতে হবে

  • করোনার লাগাম এখনো টেনে ধরা সম্ভব: ডব্লিউএইচও

  • এবারো ঈদগাহে ঈদের জামাত নয়

  • বিদেশ যেতে বাধ্যতামূলক হলো করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট

  • ঈদ নিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সভায় যেসব সিদ্ধান্ত

  • অর্থবছর শুরুর নয়দিনেই ৭৫ কোটি ডলার রেমিটেন্স

  • ১৬ জুলাই কোটি বৃক্ষরোপণের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

  • বিএনপি দুর্নীতিকে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দিয়েছে : কাদের

  • আমিরাতে যেতে নির্ধারিত ল্যাবেই করোনা টেস্ট

  • জেকেজির প্রতারণা : ডা. সাবরিনা পুলিশ হেফাজতে

  • জয়া-ঐশ্বরিয়া-আরাধ্যা করোনা নেগেটিভ

  • দাম্মাম থেকে ফিরলেন ৪১২ বাংলাদেশি

  • স্কুল-কলেজে আশ্রয়কেন্দ্র করার নির্দেশ

  • হালদায় পোনা উৎপাদনে এবার রেকর্ড সাফল্য

  • বন্যা মোকাবিলায় মাঠে ডিসিরা

  • ইতালি ফেরত ১৪৭ বাংলাদেশি হজ ক্যাম্পে কোয়ারেন্টিনে

  • মদনে প্রাকৃতিক গ্যাসের সন্ধান

  • চামড়া কিনতে ব্যবসায়ীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ঋণ দেয়ার নির্দেশ

  • আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বঙ্গকন্যার যত স্বীকৃতি

  • ১ আগস্ট ঈদ হলে বেশি বোনাস

  • আমন বীজে নগদ ভর্তুকি ও বিনামূল্যে সেচ সুবিধা দিচ্ছে সরকার

  • পুরোদমে চলছে সব মেগা প্রকল্পের কাজ

  • উপবৃত্তির ৪৩৯ কোটি টাকা পাচ্ছে শিক্ষার্থীরা

  • ‘করোনায় মারা যাওয়া প্রবাসীর পরিবারকে ৩ লাখ টাকা অনুদান’

  • প্রাকৃতিক দুর্যোগে মানবিক সহায়তা হিসেবে ১০,৯০০ টন চাল বরাদ্দ

  • ১৬ বছর বয়সীরাও পাবে এনআইডি কার্ড

  • করোনা সংকটেও রপ্তানি বেড়েছে ১৬ পণ্যে

  • বাবা বলতেন যখন আমি থাকব না তখন পড়িস: শেখ হাসিনা

  • বড় নিয়োগ আসছে প্রাথমিকে

  • ভরা মৌসুমের শুরুতেই জেলেদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ

  • বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিকরাই মাঠে গিয়ে কাজ করে: প্রধানমন্ত্রী 

  • বাংলাদেশে করোনার প্রকোপ কমে আসছে: জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়

  • স্বাভাবিক গতি ফিরছে ছয় মেগা প্রকল্পে

  • মাইক্রোসফটের পুরস্কার পেলেন বাংলাদেশি দুই গবেষক

  • ও‌সিদের ক‌ঠোর বার্তা দি‌লেন আই‌জি‌পি

  • এবার দেশেই তৈরি প্রাইভেটকার!

  • ট্রেনে মাত্র ১৫০০ টাকায় গরু আনা যাবে ঢাকায়

  • করোনা জয় করেই বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে : প্রধানমন্ত্রী

  • করোনা মোকাবিলায় মানবিক ছাত্রলীগ

  • উপবৃত্তির ৪৩৯ কোটি টাকা পাচ্ছে শিক্ষার্থীরা

  • একনেকে ২৭৪৪ কোটি টাকার ৯ প্রকল্প অনুমোদন

  • সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন আর নেই

  • সাহারা খাতুনের মরদেহ দেশে পৌঁছেছে, জানাজা সকাল ১১টায়

  • সাত দিনে কমেছে ১১ পণ্যের দাম

  • অতিরিক্ত দুই মাসের বেতন পাবেন ডাক্তার-স্বাস্থ্যকর্মীরা

  • কল করলেই মিলবে বিনামূল্যের অক্সিজেন সেবা

  • স্কুল-কলেজে আশ্রয়কেন্দ্র করার নির্দেশ

  • মৌসুমের শুরুতেই জেলেদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ