বৃহস্পতিবার   ২৪ অক্টোবর ২০১৯

ব্রেকিং:
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক ছুটি ৭৫ দিন আগামী মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির ভোটের ইঙ্গিত সিইসির জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী আস্থা ভোটে টিকে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নেপালের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ খালেদার অনুপস্থিতিতেই কারাগারে বিচার চলবে রব ও মান্নার বিয়ে যুক্তফ্রন্টে, পরকীয়া ঐক্যফ্রন্টে: মাহী এটা জোট নয়, ঘোট : তথ্যমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় পেলেন সিনহা আবারও সরকার গঠনে নৌকায় ভোট দেয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর পদ্মা সেতু প্রকল্পের নামফলক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী
১২৩

আগামি বছর ষষ্ঠ শ্রেণিতে অবৈতনিক পড়ালেখা

ডেস্ক নিউজ

প্রকাশিত: ৩ অক্টোবর ২০১৯  

দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত ছাত্রছাত্রীরা বিনামূল্যে লেখাপড়া করবে। ওই শ্রেণি পর্যন্ত কাউকে স্কুল-মাদ্রাসায় টিউশন ফি দিতে হবে না। সরকারই এ খরচ বহন করবে। প্রাথমিকভাবে আগামী বছর ষষ্ঠ শ্রেণিতে এ সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হবে।

পরের বছর সিদ্ধান্তটি সপ্তম শ্রেণিতে বাস্তবায়ন করা হবে। এভাবে পর্যায়ক্রমে প্রতি বছর একটি শ্রেণি অবৈতনিক শিক্ষায় অন্তর্ভুক্ত হবে। পাশাপাশি শিক্ষার অন্যান্য ব্যয় বহনের জন্য শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি কার্যকর অব্যাহত রাখা হবে।

তবে উপবৃত্তির আওতাও বাড়িয়ে ৬০ শতাংশ করা হবে। বর্তমানে একটি শ্রেণির ৪০ শতাংশ উপবৃত্তি পাচ্ছে।

বর্তমানে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত প্রাথমিক স্তরের শিক্ষার্থীরা অবৈতনিক ও বাধ্যতামূলক লেখাপড়া করছে। পাশাপাশি শিক্ষার্থীরা উপবৃত্তিও পাচ্ছে। বিপরীত দিকে মাধ্যমিক স্তরে টিউশন ফি দিয়ে লেখাপড়া করতে হচ্ছে। যে পরিমাণ শিক্ষার্থী উপবৃত্তি পাচ্ছে তাদের মধ্যে ১০ শতাংশ ছাত্র, বাকিরা ছাত্রী।

নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ১৫ শতাংশ ছাত্র এবং ৪৫ শতাংশ ছাত্রী উপবৃত্তি পাবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. সোহরাব হোসাইন যুগান্তরকে বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রাথমিক স্তরের মতো মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের ছাত্রছাত্রীদের লেখাপড়া অবৈতনিক করতে চান। শিক্ষায় টেকসই উন্নয়ন, ভিশন-২০৩০ এবং ২০৪১ অর্জনের লক্ষ্যে ঝরেপড়া রোধ এবং মান অর্জনই অবৈতনিক শিক্ষার প্রধান লক্ষ্য। এজন্যই পর্যায়ক্রমে ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত শিক্ষা অবৈতনিক করতে চান তিনি (প্রধানমন্ত্রী)। এ লক্ষ্যেই প্রথম ধাপ হিসেবে আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকেই ষষ্ঠ শ্রেণির লেখাপড়া অবৈতনিক করার প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’

সরকারের উল্লিখিত প্রাথমিক সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করার লক্ষ্যে ৬ অক্টোবর বৈঠক ডাকা হয়েছে। এতে সভাপতিত্ব করবেন সিনিয়র সচিব। ওই বৈঠকে সমন্বিত উপবৃত্তি কর্মসূচি এবং ষষ্ঠ শ্রেণিতে টিউশন ফি সুবিধা দেয়ার বিষয়ে আলোচনা করা হবে।

এতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের পাশাপাশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানদের ডাকা হয়েছে। বৈঠকে বিশেষ করে কোন পদ্ধতিতে এবং কীভাবে ষষ্ঠ শ্রেণির টিউশন ফি পরিশোধ করা যায়, তা আলোচনা করা হবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সরকারের মাধ্যমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচির (এসইডিপি) আওতায় শিক্ষা মন্ত্রণালয় অবৈতনিক মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষার কর্মসূচি বাস্তবায়ন করবে। প্রাথমিকভাবে ২০২৫ সালের মধ্যে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত অবৈতনিক শিক্ষা চালু করার চিন্তা ছিল। সেটা অনুযায়ী চলতি বছরই ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রছাত্রীদের টিউশন ফি পাওয়ার কথা ছিল।

কিন্তু প্রকল্পের কার্যক্রম শুরু করতে বিলম্বের কারণে এখন আগামী বছরের ১ জানুয়ারি থেকে এটি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। সেই হিসাবে ২০২৬ সালের মধ্যে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত অবৈতনিক শিক্ষা চালু হবে।

সমন্বিত উপবৃত্তি এবং অবৈতনিক মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা চালুর লক্ষ্যে সরকার ‘সমন্বিত উপবৃত্তি কার্যক্রম ও এসডিজি-৪ (শিক্ষায় টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা)’ শীর্ষক একটি কৌশলপত্র ইতিমধ্যে তৈরি করেছে।

এতে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত অবৈতনিক শিক্ষার লক্ষ্য অর্জনে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের গবেষক দল বিস্তারিত প্রস্তাব তুলে ধরেছে। পাশাপাশি ষষ্ঠ শ্রেণি থেকে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর পেছনের ব্যয় আলাদাভাবে নির্ধারণ করা হয়।

এরপর সারা দেশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শ্রেণিভিত্তিক মোট কত টাকা সরকারকে ব্যয় করতে হবে সেটি বের করা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে স্কুলের টিউশন ফি ও অন্যান্য ব্যয় হিসাবে আনা হয়েছে।

এ সংক্রান্ত বাস্তবায়ন কৌশলপত্রে বলা হয়েছে, অবৈতনিক শিক্ষার জন্য সরকারের দেয়া ফি প্রত্যেক স্কুল-মাদ্রাসা একই হারে টিউশন ফি নেবে। সেই ফির অর্থ সরকার শিক্ষার্থীর কাছে পাঠাবে। শিক্ষার্থী তা স্কুলে জমা দেবে। অথবা, ধার্য টিউশন ফি সরকার সরাসরি প্রতিষ্ঠানে পাঠাবে।

সরকার ষষ্ঠ শ্রেণিতে ১শ’, সপ্তমে ১৫০ টাকা; অষ্টম শ্রেণি ২শ’ টাকা; নবম ও দশম শ্রেণিতে যথাক্রমে ৩শ’ ও ৫শ’ টাকা করে টিউশন ফি দেয়ার চিন্তা করছে। এছাড়া একাদশ এবং দ্বাদশ শ্রেণিতে ৫শ’ টাকা প্রস্তাবিত টিউশন ফি। সেই হিসাবে আগামী বছর ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের অবৈতনিক শিক্ষা চালু করতে গেলে সারা দেশে লাগবে ৪ কোটি ৯ লাখ ৩৩ হাজার টাকা।

সরকার ইতিমধ্যে সম্ভাব্য শিক্ষার্থী সংখ্যাও নিরূপণ করেছে। ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণিতে (তিন শ্রেণিতে) ২০২১ সালে ৮০ লাখ ৪৪ হাজার ৬৭৩ জন এবং ২০২৫ সালে ৯০ লাখ ৫৪ হাজার ৩৫০ জন লেখাপড়া করবে। অপরদিকে নবম-দশম শ্রেণিতে ২০২১ সালে শিক্ষার্থী হবে ৪৩ লাখ ৩৪ হাজার ১০৯ জন।

২০২১ সালে সারা দেশে নিু মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পেছনে সরকারের এ খাতে ব্যয় হতে পারে ৪৪ কোটি ৩৯ লাখ ৫৫ হাজার টাকা। আর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের (নবম-দশম শ্রেণি) পেছনে ব্যয় হতে পরে ৩৪ কোটি ৯৪ লাখ ৩৬ হাজার টাকা। একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণিতে ২০২৬ সালে ১০ লাখ ১১ হাজার ৭৭৩ শিক্ষার্থী হবে। তাদের জন্য ব্যয় হবে ৮ কোটি ৯ লাখ ৪২ হাজার টাকা।

এসইডিপির প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব জাভেদ আহমেদ। তিনি বলেন, ষষ্ঠ শ্রেণিতে অবৈতনিক শিক্ষা চালুর লক্ষ্যে শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি পরিশোধ করার খাতে ইতিমধ্যে অর্থ বরাদ্দ করা হয়েছে। সরকার চায় আগামী বছরই অবৈতনিক শিক্ষা কার্যকর হবে এবং কোনো শিক্ষার্থীকেই ষষ্ঠ শ্রেণিতে টিউশন ফি (বেতন) দিতে না হয়। এজন্যই আমরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধানসহ অংশীজনদের নিয়ে বসছি।

লেখাপড়ার পেছনে একজন শিক্ষার্থীর দুই ধরনের ব্যয় আছে। একটি হচ্ছে, প্রাতিষ্ঠানিক অন্যটি পারিবারিক। পারিবারিক ব্যয়ের মধ্যে খাতা, কলম, জামা-কাপড় ইত্যাদি আছে। অবৈতনিক শিক্ষার ধারণায় সরকার শুধু প্রাতিষ্ঠানিক খরচ বহন করবে।

অপরদিকে সরকার বর্তমানে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে এমপিও বাবদ অর্থ দিচ্ছে। শিক্ষার্থীদের টিউশন ফিসহ অন্যান্য খরচ মেটাতে উপবৃত্তি বাবদ মোটা অংকের অর্থ ব্যয় করে। প্রতিষ্ঠানগুলো এর বাইরে ছাত্রছাত্রীদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ টিউশনসহ অন্যান্য ফি বাবদ আদায় করে। কিন্তু সেই অর্থের প্রায় সবই প্রতিষ্ঠান নিজেদের মতো করে ব্যয় করে।

আরও পড়ুন
শিক্ষা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
  • ‘বিশ্ব পোলিও দিবস’ আজ

  • জামালপুর থেকে অনলাইন ক্যাসিনোর ৫ সদস্য আটক

  • পাকিস্তান সফরে যশোরের মেয়ে নারী ক্রিকেট দলের মেঘলা

  • ম্যাজিস্ট্রেটের ওপর জেলেদের হামলা, পুলিশসহ ১২ জন আহত

  • ইতিহাসের অপেক্ষায় মৌসুমী

  • মিষ্টি দোকান থেকে বেরিয়ে এলো লক্ষ লক্ষ তেলাপোকা!

  • মৌসুমী জয়ী হলে পদত্যাগ করবেন সবাই

  • রণবীর-আলিয়ার বিয়ে ২২ জানুয়ারি

  • বাগাতিপাড়ায় পিকআপের তাণ্ডবে আহত ১০

  • নভেম্বরে শুরু হচ্ছে ঢাকা ফোকফেস্ট

  • সাভারে সাংবাদিক পরিচয়ে চাঁদাবাজি, আটক ২

  • ভয়ঙ্কর ধর্ষণের শিকার চলচ্চিত্র পরিচালক

  • মা হলেন নায়িকা রুমানা

  • এবার ফোকফেস্ট মাতাবেন ২ শতাধিক শিল্পী

  • ডিভোর্স লেটার পাননি বলে জানালেন অভিনেতা সিদ্দিক

  • বিসিসিআইর সিংহাসনে সৌরভ গাঙ্গুলি

  • জয়ে ফিরেছে ভারতের মোহনবাগান

  • দুর্দান্ত জয়ে ধারাবাহিক চট্টগ্রাম আবাহনী

  • প্রধানমন্ত্রীর উপপ্রেস সচিব আশরাফুল আলম খোকনের আজ জন্মদিন

  • জাতিসংঘ দিবস আজ

  • অবশেষে কার্যকর হচ্ছে সড়ক পরিবহন আইন

  • আপত্তিকর অবস্থায় আটক সেই পুলিশ কর্মকর্তা প্রত্যাহার

  • আপাতত আমরা খুশি, বললেন সাকিব

  • নুসরাত হত্যার রায় আজ

  • অতিরিক্ত সচিব হলেন ১৫৬ কর্মকর্তা

  • প্রথম ‘মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশ’ হলেন শিলা

  • সাকিবদের সব দাবি মেনে নিয়েছে বিসিবি

  • কক্সবাজারের ডিসির বিরুদ্ধে দুপুরে মামলা, বিকালে খারিজ

  • দ. আফ্রিকায় ডাকাতের দেয়া আগুনে শিবচরের যুবকের মৃত্যু

  • জাতিসংঘ দফতরের সামনে গায়ে আগুন

  • আজ ‘কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস’ ও ১৩টি সেতু উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

  • মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় দেশসেরা রংপুরের রাগীব নূর

  • অনলাইনে সরকারি সেবা দিতে ‘একপে’, ‘একসেবা’ ও ‘একশপ’-এর যাত্রা শুরু

  • ২০১৯ সালে বিশ্বে তৃতীয় সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি বাংলাদেশে: আইএমএফ

  • বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ১৫৭ পরিবার পেল অর্থ সহায়তা ও বীজ

  • এক মিনিটেই ‘নগদ’ হিসাব

  • ২৮৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ঝুঁকিপূর্ণ শিশুশ্রম নিরসন প্রকল্প গ্রহণ 

  • পর্যটন শিল্প বিকাশে অবদান রাখবে পটিয়া বাইপাস সড়ক

  • ভুলতা উড়ালসড়কের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

  • প্রকাশ পেল ‌‌‘আহাদ ফাহিম’ এর গান ‘আমি মিথ্যে বলিনি’ এর ভিডিও

  • দ্রুত এগুচ্ছে ৬ লেনের মাতামুহুরী সেতুর নির্মাণকাজ

  • দেশকে শীর্ষ পঞ্চাশে নেওয়ার লক্ষ্য জয়ের

  • ‘সাড়ে ২২ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে’

  • ‘সবচেয়ে সুবিধাজনক অবস্থায় বাংলাদেশের অর্থনীতি’

  • আগামী প্রজন্মকে পরিচ্ছন্ন হয়ে ওঠার আহ্বান স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর

  • নতুন ঘর পাবেন ১৫ হাজার মুক্তিযোদ্ধাঃ  মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী

  • নদীর ভাঙন রোধে কাজ করছে সরকার: পানি সম্পদ উপমন্ত্রী

  • ২০১৮-১৯ অর্থবছরে সরকারের যত অর্জন

  • ‘চরের মানুষ পাকা রাস্তা,পড়ালেখার জন্য স্কুল-মাদ্রাসা পেয়েছে’

  • ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন স্বপ্ন নয় বাস্তবঃ জয়

  • মুসলিমবান্ধব পর্যটন বিকাশে বাংলাদেশ আদর্শ: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

  • যানজট নিরসনে ঢাকায় আরও ২টি মেট্রোরেলের প্রকল্প অনুমোদন

  • রাজধানীর কারওয়ান বাজারে ১৬৫ ভাসমান স্থাপনা উচ্ছেদ

  • যুবলীগ চেয়ারম্যানকে অব্যাহতি, চয়ন আহ্বায়ক ও হারুন সদস্য সচিব

  • ‘‌আমাকে কবর থেকে বের করো, এখানে ভীষণ অন্ধকার’‌

  • মুন্সিগঞ্জের ১৩ সেতুর উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

  • ক্যাসিনো সংশ্নিষ্টতা পেলেই আইনি ব্যবস্থা: তথ্যমন্ত্রী

  • এক বাঘিনীর জন্য দুই বাঘের তুমুল লড়াই

  • বরিশালে ৪শ কেজি অবৈধ পলিথিনসহ আটক ২

  • এমপিওভুক্তি: অগ্রাধিকার পাবে প্রত্যন্ত অঞ্চল: শিক্ষামন্ত্রী